ঢাকা, বুধবার, ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ২০ নভেম্বর ২০১৯
Risingbd
সর্বশেষ:

নার্ভাসনেস কাটাতে সাকিবের ওই শট

ইয়াসিন : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৯-০৯-০৯ ৮:৩৯:৩৯ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৯-০৯-০৯ ৯:৪০:০১ পিএম

চট্টগ্রাম থেকে ক্রীড়া প্রতিবেদক : টেস্ট ক্রিকেটে সাকিবের তেড়েফুঁড়ে আউট হওয়ার ঘটনা কম নয়।

চট্টগ্রাম টেস্টের আগে নেটে সাকিবের ব্যাটিং দেখে প্রশ্নই উঠেছিল, টেস্ট ক্রিকেটে আগ্রাসী শট খেলা কতোটা গুরুত্বপূর্ণ? সাকিব উত্তর দিয়েছিলেন এভাবে,‘উইকেটে শুধু থাকাই এখনকার টেস্ট ক্রিকেট নয়। আগে যেমন ছিল টিকে থাকাই গুরুত্বপূর্ণ। এখন থাকার সঙ্গে রানও করতে হয়। একেকজনের জন্য একেকটি গুরুত্বপূর্ণ। অনেক সময় আমার আত্মবিশ্বাস একটু নিচে থাকে। কিছু শট খেললে শরীর খুলে যায়।’

ম্যাচের আগে এমন উত্তর দেওয়ার পর আফগানিস্তানের বিপক্ষে শেষ দিনে এসে সাকিবকে যে ব্যাটিং নিয়েই প্রশ্নের মুখোমুখি হতে হবে তা ভাবতে পারেননি নিজেও।  মাত্র ৭০ মিনিট ক্রিজে থাকলেই আফগানিস্তানের বিপক্ষে হার এড়ানো যেত বাংলাদেশের। সাকিব ও সৌম্য ওই চ্যালেঞ্জ নিয়েই এসেছিলেন মাঠে। কিন্তু প্রথম বলে এমন কি হলো যে সাকিবের অফস্ট্যাম্পের একহাত বাইরের বল কাট করতে হবে? আগ্রাসী ওই শট খেলতে গিয়েই পুরো দল বিপদ ডেকে আনেন সাকিব।  ওই শট খেলার অনুশোচনায় ভুগছেন সাকিব।

‘হাতে চার উইকেট ছিল।  ১ ঘন্টা ১০ মিনিট ব্যাটিং করতে হতো।  আমি প্রথম বলে আউট হয়ে গিয়েছি।  কাজটা দলের জন্য আরও কঠিন হয়ে গিয়েছিল।  দায়িত্ব অনেকটা আমার ওপরই পড়ে, প্রথম বলে হয়তো কাট শটটা না মারলেও হতো।  না মারলেও হতো কি, না মারার মতোই ছিল।’

‘শটটা খেলে ফেলেছি।  ফলে দল অনেক চাপে পড়ে গিয়েছিল।  আমি যেহেতু উইকেটে ছিলাম আমারই দায়িত্ব ছিল যে মূল দায়িত্ব পালন করা। আমি ক্রিজে থাকলে বাকিরা ড্রেসিংরুমে অনেক স্বস্তি পেত।  হয়তো ম্যাচটা শেষ পর্যন্ত নিয়ে যেতে পারতাম কিংবা ড্রও করতে পারতাম।  যেহেতু আউট হয়ে গেছি।  দলের জন্য কাজটা কঠিন হয়ে গেছে। ’ – বলেছেন সাকিব।

তবে ওই শট খেলার পিছনে বড় কারণ ছিল নার্ভাসনেস কাটানো।  দ্বিতীয় দফার বৃষ্টির পর খেলা শুরু হলে কিছুটা চাপে ছিলেন।  ড্রেসিং রুমের পরিবেশ থেকে শুরু করে ম্যাচ বাঁচানোর চাপ, প্রতিপক্ষের চাপ; সব মিলিয়ে স্বস্তি পাচ্ছিলেন না।  আগ্রাসী ব্যাটিংয়ে অভ্যস্ত সাকিব মনে করেছিলেন, বল ব্যাটে আসলে স্বস্তির জায়গায় ফিরে যাবেন। ওই পরিকল্পনায় খেলেছিলেন শট। কিন্তু ফল পেলেন উল্টো।  সিদ্ধান্তটা যে ভুল ছিল তা মেনে নিয়েছেন সাকিব নিজেও। 

‘নার্ভাসনেসটা অনেক বেশি কাজ করছিল। দুপুর বেলা যখন ব্যাটিংয়ে নেমেছি তখন এতোটা কাজ করেনি। স্বাভাবিকভাবে আমি চাচ্ছিলাম যে প্রথম বলটা একটু ভালোভাবে মোকাবেলা করি। কিন্তু প্রথম বলে আউট হয়ে গেছি। আমারই ভুল।’ – বলেছেন সাকিব।


রাইজিংবিডি/চট্টগ্রাম/৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯/ইয়াসিন/আমিনুল

ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন