ঢাকা, সোমবার, ৪ কার্তিক ১৪২৬, ২১ অক্টোবর ২০১৯
Risingbd
সর্বশেষ:

ম্যানচেস্টারে শেষ রোমাঞ্চের অপেক্ষা

ইয়াসিন : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৯-০৯-০৮ ১০:০৯:২৪ এএম     ||     আপডেট: ২০১৯-০৯-০৮ ১০:৫৪:৫২ এএম

ক্রীড়া ডেস্ক: ম্যানচেস্টারের ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে শেষ হাসিটা কে হাসবে? অস্ট্রেলিয়া কি ম্যাচ জিতবে? নাকি হাত ফসকে বেরিয়ে যাওয়া ম্যাচ বাঁচাতে পারবে ইংল্যান্ড? জানা যাবে আজই।

আজ শেষ দিনে জয়ের জন্য অস্ট্রেলিয়ার প্রয়োজন ৮ উইকেট। ইংল্যান্ড লক্ষ্যের থেকে পিছিয়ে আছে ৩৬৫ রানে।

ফলোঅনের শঙ্কায় থাকা ইংল্যান্ড জস বাটলারের ব্যাটে ফলোঅন এড়িয়েছিল। কিন্তু প্রথম ইনিংসে অস্ট্রেলিয়াকে তারা লিড উপহার দিয়েছিল ১৯৬ রানের। অস্ট্রেলিয়ার ৪৯৭ রানের জবাবে তারা স্কোরবোর্ডে তোলে ৩০১ রান।

বিশাল লিডের সঙ্গে ৬ উইকেটে ১৮৬ রান যোগ করে দ্বিতীয় ইনিংস ঘোষণা করে অস্ট্রেলিয়া। ইংল্যান্ডকে ছুড়ে দেয় ৩৮৩ রানের লক্ষ্য।  শেষ বিকেলে ৭ ওভার বোলিংয়ের সুযোগ পায় ইংল্যান্ড। তাতেই প্রথম ইনিংসের সফল দুই ব্যাটসম্যানের উইকেট তুলে নেন অসিরা।

শনিবার দিনের খেলা শুরু করেন বেন স্টোকস ও জনি বেয়ারস্টো।  ফলোঅন এড়াতে তাদের দরকার ছিল ৯৭ রান। কিন্তু দিনের শুরু থেকে আসা-যাওয়ার মিছিলে ব্যাটসম্যানরা। পেসার মিচেল স্টার্কের গতির কাছে পরাস্ত হয়ে স্টোকস (২৬) ও বেয়ারস্টো (১৭) দ্রুত সাজঘরে ফেরেন। প্যাট কামিন্সকে বেশিক্ষণ টিকতে দেননি জোফরা আর্চারকে। স্টুয়ার্ট ব্রডের উইকেট উপড়ে ফেলেন স্টার্ক।

আরেক প্রান্তে লড়াই চালিয়ে যান বাটলার। তার ব্যাটেই শেষ পর্যন্ত ফলোঅনের লজ্জা এড়ায় স্বাগতিকরা। দ্রুত রান তোলার তাড়ায় শেষ ব্যাটসম্যান হিসেবে বাটলার যখন কামিন্সের বলে বোল্ড হন, তখন তার নামের পাশে ৪১ রান। আগের দিন ৪ উইকেট পাওয়া হ্যাজেলউড অসিদের সেরা বোলার।  স্টার্কের পকেটে গেছে দুই উইকেট।

দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাটিংয়ে আসে অস্ট্রেলিয়া। কিন্তু শুরুতেই বিপর্যয়ে পড়ে তারা। ডেভিড ওয়ার্নার সিরিজে ষষ্ঠবারের মতো ব্রডের বলে আউট হন। ব্রডের দ্বিতীয় শিকার মার্কাস হ্যারিস। ডানহাতি পেসার আর্চার সাজঘরের পথ দেখান মার্নাস লাবুশেন ও ট্রেভিস হেডকে। ৪৪ রান তুলতেই অস্ট্রেলিয়ার চার ব্যাটসম্যান সাজঘরে।

সেখান থেকে দলকে টেনে তোলেন স্টিভেন স্মিথ ও ম্যাথু ওয়েড। দারুণ ফর্মে থাকা স্মিথের ব্যাট থেকে আসে আরেকটি হাফ সেঞ্চুরি। অবশ্য সেঞ্চুরির পথেই ছিলেন তিনি। ৮২ রানে তার ইনিংসটি কাটা পড়ে লিচের বলে। ওয়েডের ব্যাট থেকে আসে ৩৪ রান। অধিনায়ক টিম পেইন করেন ২৩। দ্রুত রান তুলে ১৮৬ রানে ইনিংস ঘোষণা করে অস্ট্রেলিয়া।

শেষ বিকেলে পরিকল্পনামাফিক ইংল্যান্ডকে ব্যাটিংয়ে পাঠায় অসিরা। প্রথম ওভারেই মেলে সাফল্য। কামিন্স পরপর দুই দলে ররি বার্নস ও জো রুটের উইকেট তুলে নেন। প্রথম ইনিংসে দুইজনই পেয়েছিলেন হাফ সেঞ্চুরি। দিনের বাকিটা সময় কাটিয়ে দেন জো ডেনলি ও জেসন রয়। ইংল্যান্ডের স্কোরার্ডের রান ১৮।

ম্যাচ বাঁচাতে ইংল্যান্ডকে অবিশ্বাস্য কিছু করে দেখাতে হবে। আর অস্ট্রেলিয়ার প্রয়োজন ৮ উইকেট। ড্র করলেই অ্যাশেজ ধরে রাখবে অস্ট্রেলিয়া।


রাইজিংবিডি/ঢাকা/৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯/ইয়াসিন/পরাগ

ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন