ঢাকা, সোমবার, ১৩ মাঘ ১৪২৬, ২৭ জানুয়ারি ২০২০
Risingbd
সর্বশেষ:

রোহিঙ্গা গণহত্যা : বিশ্বব্যাপী মিয়ানমারকে বয়কটের ডাক

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৯-১২-০৯ ৯:৪২:১৯ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৯-১২-১০ ৩:০৫:০১ পিএম

মিয়ানমারের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করার জন্য বিশ্বব্যাপী একটি প্রচার কার্যক্রম শুরু করেছে বেশ কিছু সংগঠন।

আন্তর্জাতিক আদালতে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে গণহত্যা মামলার শুনানির আগে তারা এ প্রচার শুরু করেছে বলে জানিয়েছে বিবিসি ও রয়টার্স।

১০ ডিসেম্বর মঙ্গলবার থেকে ১২ ডিসেম্বর পর্যন্ত জাতিসংঘের সর্বোচ্চ আদালত আইসিজেতে রোহিঙ্গা গণহত্যা মামলার শুনানি হবে।

শুনানিতে মিয়ানমারের পক্ষে অংশ নিতে ইতোমধ্যে নেদারল্যান্ডসের দ্য হেগে পৌঁছেছেন রাষ্ট্রীয় উপদেষ্টা অং সান সু চি। আগামীকাল গাম্বিয়ার বক্তব্যের মধ্য দিয়ে ওই শুনানি শুরু হচ্ছে।

এর আগে আন্তর্জাতিক আদালতে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে এ মামলা করে পশ্চিম আাফ্রিকার ছোট্ট দেশ গাম্বিয়া।

দ্য হেগে এই শুনানির শুরুর আগে 'বয়কট মিয়ানমার ক্যাম্পেইন' নামে দেশটিকে বয়কট করার আহবান সম্বলিত একটি প্রচার শুরু করে জার্মানভিত্তিক ফ্রি রোহিঙ্গা কোয়ালিশনসহ ১০ দেশের ৩০ মানবাধিকার কর্মী, শিক্ষাবিদ ও পেশাজীবী সংগঠন।

ওই কোয়ালিশনের ওয়েবসাইটের বরাত দিয়ে রয়টার্স জানিয়েছে, মিয়ানমারের রোহিঙ্গা মুসলিমদের সমর্থনকারী মানবাধিকার কর্মীরা মিয়ানমারকে বিশ্বব্যাপী বয়কটের এ প্রচারে নেমেছে। তাদের একযোগে এ প্রচারের উদ্দেশ্য মিয়ানমারে সুচি ও সেনাবাহিনীর কোয়ালিশন সরকারের ওপর চাপ সৃষ্টি করা।

'বয়কট মিয়ানমার ক্যাম্পেইন' শীর্ষক বিবৃতিতে ফ্রি রোহিঙ্গা কোয়ালিশন বলছে আন্তর্জাতিক আদালতে গণহত্যা মামলার শুনানির প্রাক্কালে রোহিঙ্গা অধিকার কর্মীরা যে 'গ্লোবাল বয়কট মুভমেন্ট' শুরু করেছে তাতে করপোরেশন, বিদেশী বিনিয়োগকারী, পেশাজীবী ও সাংস্কৃতিক সংগঠনকে মিয়ানমারের সঙ্গে তাদের প্রাতিষ্ঠানিক সম্পর্ক ছিন্ন করার আহবান জানিয়েছে।

প্রসঙ্গত, ২০১৭ সালের আগস্টে রাখাইনে রোহিঙ্গাদের হত্যা, বর্বর নির্যাতন, ধর্ষণ, ঘরবাড়িতে অগ্নিসংযোগ করে মিয়ানমার সেনাবাহিনী। তাদের হাত থেকে জীবন বাঁচাতে বাংলাদেশে পালিয়ে এসে আশ্রয় নেয় সাত লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা।

মিয়ানমার বাহিনীর এই নৃশংসতাকে ‘গণহত্যা’ আখ্যা দিয়ে গত ১১ নভেম্বর জাতিসংঘের সর্বোচ্চ আদালত ইন্টারন্যাশনাল কোর্ট অব জাস্টিসে (আইসিজে) মামলা করে গাম্বিয়া। বাংলাদেশ ওই মামলার শুনানি পর্যবেক্ষণ করবে।


ঢাকা/এনএ