ঢাকা, সোমবার, ৪ কার্তিক ১৪২৬, ২১ অক্টোবর ২০১৯
Risingbd
সর্বশেষ:

শরীরে স্প্লিন্টার নিয়ে বেঁচে আছেন আব্দুল্লাহ

মামুন চৌধুরী : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৭-০১-২৭ ১২:৪৬:৩৯ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৭-০১-২৭ ১:০০:১৮ পিএম
আব্দুল্লাহ সরদার

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি : শরীরে অসংখ্য স্প্লিন্টার নিয়ে বেঁচে আছেন হবিগঞ্জ সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রাক্তন সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল্লাহ সরদার।

তিনি ২০০৫ সালে হবিগঞ্জের বৈদ্যের বাজারে প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী শাহ এ এম এস কিবরিয়ার ওপর গ্রেনেড হামলার ঘটনায় গুরুতর আহত হয়েছিলেন। এখনো তিনি পুরোপুরি সুস্থ হয়ে উঠেননি।

এ ঘটনায় তিনি নিজে যেমন পঙ্গু হয়েছেন, তেমনি পঙ্গু করেছেন তার পুরো পরিবারকে। তার বাম হাত ও বাম পা এখনো স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে আসেনি। ২০০৫ সালের ২৭ জানুয়ারির ভয়াবহ স্মৃতির কথা বলতে গিয়ে তিনি এখনো আঁতকে ওঠেন।

সেই সময় গ্রেনেড হামলায় গুরুতর আহত হলে তাকে বারডেম হাসপাতালে চিকিৎসা করানো হয়। পরে শেখ হাসিনা তাকে আর্থিক সহায়তা করেন। ২৫ দিন বারডেম হাসপাতালে চিকিৎসা শেষে তিনি বাড়িতে ফিরে আসেন। গ্রেনেড হামলার ১২ বছর অতিবাহিত হলেও তিনি স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসতে পারেননি। সেদিন দুর্ঘটনার খবর শুনে তার বাবা স্মৃতি হারিয়ে ফেলেছিলেন। কয়েকদিন পর তার বাবা মৃত্যুবরণ করেন।

আব্দুল্লাহ সরদার বলেন, ‘আমি বাবার লাশ নিজের কাঁধে বহন করে কবরস্থানে নিয়ে যেতে পারিনি। একজন মানুষের জীবনে এর চেয়ে বড় দুঃখ আর কি হতে পারে।’

গ্রেনেড হামলার সময়  শাহ এ এম এস কিবরিয়ার পাশে দাঁড়িয়ে ছিলেন আব্দুল্লাহ সরদার। হঠাৎ বিকট শব্দে গ্রেনেড বিস্ফোরিত হয়। গ্রেনেডের আঘাতে তিনি মাটিতে লুটিয়ে পড়েন। সেই থেকে শরীরে অসংখ্য স্প্লিন্টার বহন করে পঙ্গুত্বের অভিশাপ নিয়ে বেঁচ আছেন আব্দুল্লাহ।

প্রসঙ্গত, ২০০৫ সালের ২৭ জানুয়ারি হবিগঞ্জের বৈদ্যের বাজারে এক জনসভায় শাহ এ এম এস কিবরিয়ার ওপর গ্রেনেড হামলা করা হয়। এতে কিবরিয়াসহ পাঁচজন নিহত হন। আহত হন আওয়ামী লীগের অর্ধশতাধিক নেতাকর্মী।

 

 

রাইজিংবিডি/হবিগঞ্জ/২৭ জানুয়ারি ২০১৭/মামুন চৌধুরী/উজ্জল

ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন