ঢাকা, সোমবার, ৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ১৮ নভেম্বর ২০১৯
Risingbd
সর্বশেষ:

সাতক্ষীরায় ঘূর্ণিঝড় মোকাবেলায় প্রস্তুতি নিয়েছে প্রশাসন

এম.শাহীন গোলদার : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৯-০৫-০১ ৪:৫৯:১১ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৯-০৫-০১ ৫:০৬:৩৩ পিএম

সাতক্ষীরা সংবাদদাতা : সাতক্ষীরায় ঘূর্ণিঝড় ‘ফণী’র সম্ভাব্য আঘাত মোকাবেলায় প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি নিয়েছে জেলা প্রশাসন। জেলায় সার্বক্ষণিক নিয়ন্ত্রণকক্ষ খোলা হয়েছে। নিয়ন্ত্রণ কক্ষের টেলিফোন নম্বর-০৪৭১-৬৩২৮১।

আজ বুধবার বিকেল সাড়ে ৫টায় জেলা প্রশাসক সম্মেলন কক্ষে প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি ও করণীয় বিষয়ে আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হবে।

সাতক্ষীরা জেলার নিয়ন্ত্রণকক্ষ জানায়, ইতোমধ্যে জেলার উপকূলীয় শ্যামনগর ও আশাশুনি উপজেলায় মাইকিং করে জনগণকে সতর্ক করা শুরু হয়েছে। খোলা রাখতে বলা হয়েছে সাইক্লোন সেন্টারগুলো। প্রত্যেক উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রয়োজনীয় ওষুধ রিজার্ভ রাখা হয়েছে। গঠন করা হয়েছে মেডিকেল টিম। একই সঙ্গে শুকনো খাবার এবং প্রয়োজনে ব্যবহারের জন্য যানবাহন প্রস্তুত রাখা হয়েছে।

সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক এস এম মোস্তফা কামাল জানান, সুন্দরবনে মাছ ও মধু আহরণকারীদের দ্রুত উপকূলে ফিরে আসতে বলা হয়েছে। সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের আপাতত কর্মস্থলে থাকার অনুরোধ জানানো হয়েছে। বিপদ সংকেত বৃদ্ধি পেলে গ্রামবাসীকে সরিয়ে নেয়ার ঘোষণা দেয়া হয়েছে।

স্বেচ্ছাসেবককে দুর্যোগকালীন উদ্ধার তৎপরতার জন্য প্রস্তুত থাকতে বলা হয়েছে।

মধ্যপশ্চিম বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থানরত অতি প্রবল ঘূর্ণিঝড় ‘ফণি’ সামান্য উত্তরপশ্চিম দিক অগ্রসর হয়েছে। এটি এখন ভারতের ওড়িশা উপকূলের দিকে ধেয়ে যাচ্ছে বলে জানিয়েছে ভারতের আবহাওয়া অফিস। ভারতের পুরী থেকে ৭১০ কিলোমিটার দক্ষিণ-দক্ষিণপশ্চিম এবং অন্ধ্রের বিশাখাপত্তম থেকে ৪৯০ কিলোমিটার দক্ষিণ-দক্ষিণপূর্বে রয়েছে ঘূর্ণিঝড়টি।

বুধবার ঢাকা আবহাওয়া অধিদপ্তরের এক বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, ঘূর্ণিঝড়টি আজ সকাল ৯টায় চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দর থেকে ১২৬০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে, কক্সবাজার সমুদ্রবন্দর থেকে ১২১০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে, মংলা সমুদ্রবন্দর থেকে ১১২৫ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে এবং পায়রা সমুদ্র বন্দর থেকে ১১৩০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে অবস্থান করছিল।

এ কারণে চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মংলা ও পায়রা সমূদ্র বন্দরসমূহকে ৪ নম্বর দূরবর্তী হুঁশিয়ারি সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে। উত্তর বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত সব মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলারকে পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত উপকূলের কাছাকাছি থেকে সাবধানে চলাচল করতে বলা হয়েছে। সেই সঙ্গে তাদের গভীর সাগরে বিচরণ না করতে বলা হয়েছে।




রাইজিংবিডি/সাতক্ষীরা/১ মে ২০১৯/শাহীন গোলদার/বকুল

ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন