ঢাকা     শুক্রবার   ১৪ আগস্ট ২০২০ ||  শ্রাবণ ৩০ ১৪২৭ ||  ২৩ জ্বিলহজ্জ ১৪৪১

‘স্বপ্ন ছিল দেশের হয়ে প্রথম টেস্ট সেঞ্চুরি করব’

38 || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৪:৫৬, ৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯  
‘স্বপ্ন ছিল দেশের হয়ে প্রথম টেস্ট সেঞ্চুরি করব’

চট্টগ্রাম থেকে ক্রীড়া প্রতিবেদক: দেরাদুনে নিজের তৃতীয় টেস্ট ইনিংসেই সেঞ্চুরি পেয়ে যেতেন। মাত্র দুই রানের জন্য হয়নি।

আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে পারেননি।  তাই বলে বাংলাদেশের বিপক্ষেও পারবেন না? এমনটা তো হতে পারে না! এবার পারলেন রহমত শাহ।  মোহাম্মদ নাঈমের বলে পয়েন্ট দিয়ে চার মেরে ৯৮ থেকে ১০২ রানে পৌঁছালেন রহমত।  তিন অঙ্কের ম্যাজিকাল ফিগার ছুঁয়ে গড়লেন ইতিহাস।  প্রথম আফগান ব্যাটসম্যান হিসেবে ক্রিকেটের অভিজাত ফরম্যাটে তুলে নিলেন সেঞ্চুরি।

দেশের হয়ে প্রথম টেস্ট সেঞ্চুরি করবেন, এমন স্বপ্ন দেখতেন রহমত।  সেই স্বপ্ন পূরণ করে রোমাঞ্চিত ২৬ বছর বয়সি এ ক্রিকেটার,‘আমি সবসময় স্বপ্ন দেখতাম আফগানিস্তানের হয়ে প্রথম টেস্ট সেঞ্চুরি করবো।  আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে যখন ৯৮ রানে আউট হলাম খুব হতাশ হয়েছিলাম।  আজ সেই স্বপ্ন পূরণ হয়েছে।  সুযোগ পেয়েছি সেঞ্চুরি তুলে নিয়েছি। এটা আমার জন্য অনেক গর্বের। দেশের হয়ে প্রথম হাফ সেঞ্চুরি আমার, এখন প্রথম সেঞ্চুরিও আমার।’ – বৃহস্পতিবার চট্টগ্রামে প্রথম দিন শেষে বলছিলেন রহমত শাহ। 

২১০ মিনিট ক্রিজে থেকে দারুণ লড়াই করে সেঞ্চুরি পেয়েছেন।  কী দারুণ ধৈর্য। কী দারুণ দৃঢ়তা।  ধ্রুপদী জমাট ব্যাটিং। সাদা পোশাকে ২২ গজে যেভাবে ব্যাটিং করা দরকার, ঠিক সেভাবেই যেন নিজেকে মেলে ধরেছিলেন। কপি বুক স্টাইলের সব শট। ডিফেন্সে পুরোদস্তুর অভিজ্ঞতার ছাপ। সেঞ্চুরির আগ পর্যন্ত বাংলাদেশকে আউট করার কোনো সুযোগই দেননি।  যে বল যেভাবে খেলা দরকার, সেভাবেই খেললেন। কালেভাদ্রে মেরেছেন বাউন্ডারি। শট খেলতে কোনো জড়তা রাখেননি। সিঙ্গেল-ডাবল তুলে নিয়েছেন অনায়াসে। ৮৫ বলে ফিফটি, ১৮৬ বলে পেয়েছেন সেঞ্চুরি। ফিফটিতে পৌঁছতে মেরেছিলেন তিনটি চার, দুটি ছক্কা। আর সেঞ্চুরির ইনিংসে ছিল সব মিলে ১০টি চার, দুই ছক্কা।  উইকেট সহায়তা করায় ব্যাটিংয়ে কোনো সমস্যা হয়নি বলে জানিয়েছেন রহমত শাহ। 

‘উইকেট দারুণ ব্যবহার করেছে। বিশেষ করে নতুন বলে খুব সহজেই ব্যাটিং করা যাচ্ছিল।  আমার পরিকল্পনা ছিল ফ্রন্টফুটে খেলা। তারা ভালো বোলিং করছিল এবং ফিল্ডিং ছিল আক্রমণাত্মক।  রান পেতে সমস্যা হচ্ছিল কিন্তু একটু চেষ্টা করায় আমি সফল হয়েছি।’

টেস্ট ক্রিকেটে মানিয়ে নেওয়ার রহস্য জানাতে গিয়ে রহমত শাহ বলেছেন,‘আন্তর্জাতিক অঙ্গনে আমরা নিয়মিত সীমিত পরিসরে খেলছি। ইন্টার কন্টিনেন্টাল কাপ খেলছি যেটা চারদিনের টুর্নামেন্ট। আমরা সেই টুর্নামেন্ট দুবার জিতেছি এবং লংগার ভার্সন ক্রিকেট সম্পর্কে ভালো ধারণা পেয়েছি। চারদিন ও পাঁচদিনের ম্যাচে বড় কোনো তফাৎ নেই।’


রাইজিংবিডি/চট্টগ্রাম/৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯/ইয়াসিন

রাইজিংবিডি.কম

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়