ঢাকা, বুধবার, ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ২০ নভেম্বর ২০১৯
Risingbd
সর্বশেষ:

৪ ডিসেম্বর ‌'জাতীয় বস্ত্র দিবস' ঘোষণা

হাসান মাহামুদ : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৯-০৯-০৯ ৩:০২:৩১ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৯-০৯-০৯ ৩:০৫:১৩ পিএম

সচিবালয় প্রতিবেদক : এখন থেকে প্রতিবছর ৪ ডিসেম্বর  ‘জাতীয় বস্ত্র দিবস’ উদযাপন হবে। দিবসটি ঘোষণা এবং উদযাপনসংক্রান্ত প্রস্তাব অনুমোদন দিয়েছে সরকার।

সোমবার মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠকে প্রস্তাবটি অনুদোমন দেয়া হয়।

বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম সাংবাদিকদের জানান, ৪ ডিসেম্বর ‘জাতীয় বস্ত্র দিবস’ ঘোষণার প্রস্তাবে অনুমোদন দেয়া হয়েছে। তারিখটিকে কেন্দ্র করে সারা দেশে বস্ত্র শিল্পের স্টেকহোল্ডাররা দিবসটি উদযাপন করবেন।

দিবসটি ঘোষণার প্রস্তাব করেছে বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়। দিবসটি ঘোষণার মাধ্যমে গৃহীত বিভিন্ন কার্যক্রমের ফলে বস্ত্র খাতে সোনালি ঐতিহ্য ফিরে আসবে বলে বিশ্বাস করছে মন্ত্রণালয়।

মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, গত সরকারের আমলে বস্ত্র ও পাট প্রতিমন্ত্রী মির্জা আজমের প্রচেষ্টায় ২০১৬ সাল থেকে প্রতিবছর ৬ মার্চ জাতীয় পাট দিবস ঘোষণা করে সরকার। দিবসটি কেন্দ্র করে পাটশিল্পে এক ধরনের আশার আলো জেগে ওঠে। গতি পায় পাটশিল্প। এই শিল্পের মতো বস্ত্রশিল্পকে আরো জনপ্রিয় ও গতিশীল করতে উদ্যোগ নেন তৎকালীন বস্ত্র ও পাট প্রতিমন্ত্রী মির্জা আজম। তিনি জাতীয় বস্ত্র দিবসের বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর সম্মতির জন্য ২০১৮ সালের ১৮ অক্টোবর চিঠি পাঠান।

ওই চিঠিতে বস্ত্রশিল্প খাতের অগ্রযাত্রায় জড়িত ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানসমূহকে অনুপ্রাণিত করার জন্য প্রতি বছর ডিসেম্বর মাসের ২, ৪ অথবা ৮ তারিখে কিংবা সুবিধাজনক দিবসকে ‘জাতীয় বস্ত্র দিবস’ নির্ধারণ করে তা উদযাপনের লক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদন চাওয়া হয়।

এতে বলা হয়, বর্তমান সরকারের নির্র্বাচনী ইশতেহারে পোশাক ও টেক্সটাইল শিল্পকে অধিক শক্তিশালী, নিরাপদ ও প্রতিযোগিতা সক্ষম করার এবং বাজার সম্প্রসারণ ও রফতানি বৃদ্ধিতে উৎসাহিত করার ঘোষণা রয়েছে। ২০১৪ সালের ১২ অক্টোবর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয় পরিদর্শনকালে বস্ত্রশিল্পে সোনালি ঐতিহ্য পুনরুদ্ধারের নির্দেশনা দেন। সে অনুযায়ী প্রয়োজনীয় কার্যক্রম চলছে।

বস্ত্র খাতের সঠিক বিকাশ ও সুরক্ষার জন্য সংশ্লিষ্ট সবার করণীয় নির্ধারণ করে ‘বস্ত্রনীতি ২০১৭’ এবং ‘বস্ত্র আইন ২০১৮’ প্রণয়ন করা হয়েছে। বস্ত্রশিল্পে সাফল্য অর্জন ও এর ধারাবাহিকতা বজায় রাখার জন্য সংশ্লিষ্ট সবাইকে উৎসাহ প্রদান ও উদ্বুদ্ধ করা প্রয়োজন।


রাইজিংবিডি/ঢাকা/৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯/হাসান/ইভা

ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন