ঢাকা, শনিবার, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ০৭ ডিসেম্বর ২০১৯
Risingbd
সর্বশেষ:

আদম পাহাড়: নামার পথ কখন শেষ হবে? 

সত্যি বলতে কি, দূর থেকেই অ্যাডামস পিক বেশি সুন্দর! আদম পাহাড়ের চূড়ায় তেমন কোনো সৌন্দর্য নেই। নেই সেখানকার স্থাপনাতেও। ওই দূর থেকে কাশবন দেখার মতো।   

চোখের সামনে উদ্ভাসিত অ্যাডামস পিক!

রাতের আঁধারে উঠে ছিলাম অ্যাডামস পিক এ। তখন টের পাইনি। ঝরনার শব্দকেও মনে হচ্ছিলো বৃষ্টির শব্দ। ভয় পেয়ে ভালোই হয়েছিলাম জব্দ।

আদমের পায়ের ছাপ নিয়ে ভ্রান্তি বিলাস!

অবশেষে পূরণ হলো সাধ! স্বপ্নের অ্যাডামস পিক এ আমি! আদম পাহাড়ের চূড়ায় এঁকে দিলাম নিজের পায়ের ছাপ! বাপরে বাপ! ভেবে পুলকিত হচ্ছিলাম।

আদমের পায়ের ছাপ দেখতে হবে পূর্ণিমা রাতে!

আদম পাহাড়। অ্যাডামস পিক। এতো কাছে! হাত ছোঁয়া দূরত্বে। দশ বারো হাত উঠলেই পৌঁছে যাব পাহাড়ের চূড়ায়; যেখানে নেমেছিলেন সৃষ্টির প্রথম মানব আদম (আ.)।

অ‌্যাডামস পিক : সামিট করার মুহূর্তে ব্যাড লাক!

আহা, আদম পাহাড়। অ‌্যাডামস পিক। এতো কাছে তুমি। তারপরও সংশয়-আদৌ কি উঠতে পারব চূড়ায়!

শেষ রাতে আদম পাহাড়ের চূড়া...

অ‌্যাডামস পিকে উঠব, তাই বাংলাদেশ থেকে শ্রীলঙ্কার গহীন অরণ্যে আমরা। এত উঁচু পাহাড়ে উঠতে পারবে না, এই ভয়ে কিছুদূর গিয়ে ক্ষান্ত দিল সাংবাদিক ইমন।

মধ্যরাতে আদম পাহাড়ে

আদম পাহাড়ে ওঠা বেশ কষ্টসাধ্য। তারপরও জায়গাটি মানুষকে আকৃষ্ট করে। আদমের পায়ের ছাপ দেখতে, অথবা পৃথিবীর প্রথম মানবের আগমন হয়েছিল যে স্থানে- তা দেখতে সেখানে ছুটে যান সবাই।

আদম কেন অ্যাডামস পিকে নেমেছিলেন?

আদম পাহাড়। অ্যাডামস পিক। আদম (আ.) কে যেখানে নামানো হয়েছিলো সেটাই অ্যাডামস পিক। শ্রীলঙ্কার ওই পাহাড়টি এখন রীতিমতো বিখ্যাত জায়গা। সেই আদম পাহাড়ে উঠব! পারব তো! উত্তেজনায় রাতে ঘুম হচ্ছিলো না।  

দুর্গম আদম পাহাড়ে ওঠার আগে রেকি

উদয় হাকিম : শ্রীলঙ্কার মধ্যাঞ্চলের দুর্গম পাহাড়ি এলাকায় অবস্থিত অ্যাডামস পিক বা আদম পাহাড়। এই আদম চূড়া নিয়ে অনেক মিথ আছে। আছে অনেক রহস্য, গল্পকাহিনী।

অ্যাডামস পিক- আদম পাহাড়ের পথে

যাচ্ছিলাম অ্যাডামস পিক, আদম পাহাড়। এটি শ্রীলঙ্কার মাঝামাঝি একটি জায়গা। চারদিকে পাহাড় ঘেরা, পর্বতশ্রেণি বলা চলে।

যাচ্ছিলাম অ্যাডামস পিক- আদম পাহাড়ে

ইংরেজিতে বলা হয় অ্যাডামস পিক। আদম চূড়া। এই পাহাড়টি বিখ্যাত এ কারণেই- পৃথিবীর প্রথম মানব আদমের পায়ের ছাপ রয়েছে এখানে।

গল ফোর্ট : ঐতিহাসিক ব্যতিক্রমী দুর্গ

উদয় হাকিম, শ্রীলঙ্কা থেকে ফিরে  : গল ফোর্ট বা গল দুর্গ অন্যান্য দুর্গের চেয়ে ব্যতিক্রমী। সাধারণত দুর্গ বলতে বুঝি রাজা বাদশাহ বা সৈন্যদের আস্তানা; সেই সঙ্গে হাতি ঘোড়া গোলাবারুদের জায়গা।

গল ফোর্ট: শ্রীলঙ্কার আকর্ষণের কেন্দ্রস্থল

উদয় হাকিম, শ্রীলঙ্কা থেকে ফিরে: খোলা তীর। মাতাল সাগর। উচ্ছল ঢেউ। জলতরঙ্গ সুর। সুনীল আকাশ। রূপোলী জল। ফেনিল পানি! পাথুরে সৈকত। পোড়া মাটির দূর্গ, পোড়ো বাড়ি। লাগোয়া সবুজ ক্রিকেট মাঠ। এই হলো গল।

উনাবাতুনা- পৃথিবীর অন্যতম শ্রেষ্ঠ সমুদ্র সৈকত-২

উদয় হাকিম, কলম্বো (শ্রীলঙ্কা) থেকে ফিরে: অসম্ভব সুন্দর সৈকত এই উনাবাতুনা। বৃক্ষশোভিত গ্রিন বিচ। পরিচ্ছন্ন, কোলাহলমুক্ত।

উনাবাতুনা- পৃথিবীর অন্যতম শ্রেষ্ঠ সমুদ্র সৈকত

উদয় হাকিম কলম্বো (শ্রীলঙ্কা) থেকে ফিরে : পুরো শ্রীলঙ্কা হচ্ছে একটি দ্বীপ। একটি দ্বীপ নিয়ে একটি দেশ। চারদিকে ভারত মহাসাগর। সাগরের মাঝখানে সুন্দর একটি দ্বীপ।