ঢাকা, শনিবার, ৫ আশ্বিন ১৪২৬, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯
Risingbd
সর্বশেষ:

সৌম্যর ডাবল সেঞ্চুরিতে শিরোপা আবাহনীর

ইয়াসিন : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৯-০৪-২৩ ৬:১৯:৪৩ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৯-০৪-২৪ ১১:২২:১৩ এএম
সৌম্যর ডাবল সেঞ্চুরিতে শিরোপা আবাহনীর

ক্রীড়া প্রতিবেদক: ওয়ালটন ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের শিরোপা জিতল আবাহনী লিমিটেড। সুপার লিগের শেষ রাউন্ডে শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাবকে ৯ উইকেটে হারিয়ে শিরোপা জিতেছে আবাহনী। এর মধ্য দিয়ে টানা দ্বিতীয় শিরোপা ঘরে তুলল প্রিমিয়ার লিগের সবথেকে সফল ক্লাবটি।

সৌম্যর ইতিহাস গড়ার দিন আবাহনী চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করেছে। আবাহনীর ওপেনার মঙ্গলবার বিকেএসপিতে ২০৮ রান করেছেন। প্রথম বাংলাদেশি ক্রিকেটার হিসেবে লিস্ট ‘এ’ক্রিকেটে সৌম্য পেয়েছেন ডাবল সেঞ্চুরির স্বাদ। এছাড়া ১৬ ছক্কা হাঁকিয়ে এক ইনিংসে সর্বোচ্চ ছক্কার রেকর্ডও এখন তার।

এদিন আরো সেঞ্চুরি পেয়েছেন আবাহনীর জহুরুল ইসলাম অমি ও শেখ জামালের তানবীর হায়দার। তবে তাদের অর্জন ম্লান হয়েছে সৌম্যর অনন্য কীর্তিতে। 



আগে ব্যাটিং করে শেখ জামাল তানবীরের সেঞ্চুরিতে ৯ উইকেটে ৩১৭ রান তোলে। জবাবে ১৭ বল আগে ৯ উইকেটের বিশাল জয় তুলে নেয় আবাহনী। সৌম্যর ২০৮ বাদে জহুরুল ইসলামের ব্যাট থেকে আসে ১০০ রান।

বিকেএসপিতে আজ সৌম্যর জয়জয়কার। রানের পাহাড় টপকাতে শুরু থেকেই আক্রমণাত্মক ব্যাটিংয়ের দরকার ছিল আবাহনীর। কাজের কাজটা করে দেন সৌম্য। ৫২ বলে হাফ সেঞ্চুরি ও ৭৮ বলে সেঞ্চুরি পেয়ে যান এ ব্যাটসম্যান। শেষ ম্যাচে ১০৬ রানের ইনিংস খেলার পর আক্ষেপ করে বলেছিলেন, ‘ইনিংস আরও বড় করা উচিত ছিল।’ সেদিনের আক্ষেপ আজ দূর করেন বাঁহাতি ওপেনার। উইকেটের চারপাশে শটস খেলে নিজের ইনিংসকে অনন্য উচ্চতায় নিয়ে যান এ ব্যাটসম্যান। সেঞ্চুরিকে রূপ দেন ডাবলে। 



বাংলাদেশের ক্রিকেটারদের এর আগে সর্বোচ্চ ব্যক্তিগত ইনিংস ছিল ১৯০ রানের। রকিবুল হাসান দুই আসর আগে আবাহনীর বিপক্ষে মোহামেডানের হয়ে প্রিমিয়ার লিগেই করেছিলেন ওই রান। আজ সৌম্য ছাড়িয়ে যান সবাইকে। তৈরি করেছেন নতুন ল্যান্ডমার্ক। তাকে দারুণ সঙ্গ দেন জহুরুল ইসলাম অমি। ৩১২ রানের উদ্বেধনী জুটি গড়েন তারা। অমি ১২৭ বলে তুলে নেন লিগের তৃতীয় সেঞ্চুরি। জয়ের খুব কাছে গিয়ে অমি আউট হলেও সৌম্য জয় নিয়ে ফেরেন সাজঘরে। ১৫৩ বলে ২০৮ রানের ইনিংসটি খেলেছেন ১৪ চার ও ১৬ ছক্কায়।

বাংলাদেশের ক্রিকেটারদের এর আগে এক ইনিংসে সর্বোচ্চ ছক্কা ছিল ১১টি। যৌথভাবে শীর্ষে ছিলেন মাশরাফি, সৌম্য ও সাইফ। আজ সৌম্য ছাড়িয়ে যান সবাইকে। আর ১৬ ছক্কা হাঁকিয়ে লিস্ট ‘এ’ ক্রিকেটে রোহিত শর্মা, ক্রিস গেইল ও এবি ডিভিলিয়ার্সের পাশে বসেছেন এ ব্যাটসম্যান।



সৌম্যর তান্ডবে দিশেহারা ছিলেন বোলাররা। তাইজুল ইসলাম মাত্র ৫ দশমিক ১ ওভারে দিয়েছেন ৫৭ রান। ছক্কা হজম করেছেন ৭টি। এছাড়া পেসার মেহরাব ৮ ওভারে ৬৪, নাসির ৭ ওভারে ৪৮, মিনহাজুল আবেদীন আফ্রিদি ১০ ওভারে ৬৩ রান খরচ করেছেন।

এর আগে টস জিতে ব্যাটিং করতে নেমে ৮৫ রান তুলতেই ৫ উইকেট হারায় শেখ জামাল। সেখান থেকে দলকে টেনে তোলেন তানবীর হায়দার। ১১৫ বলে ১০ চার ও ৬ ছক্কায় ১৩২ রানের ইনিংস উপহার দেন ডানহাতি ব্যাটসম্যান। তার ঝড়ো ইনিংসে রানের পাহাড়ে উঠে শেখ জামাল। এছাড়া ইলিয়াস সানী ৪৫, মেহরাব হোসেন ৪৪ ও ফারদীন হাসান ৩৪ রান করেন।

বল হাতে আবাহনীর সেরা মাশরাফি বিন মুর্তজা। ৫৬ রানে পেয়েছেন ৪ উইকেট। একটি করে উইকেট নিয়েছেন সাইফউদ্দিন, মিরাজ, মোসাদ্দেক ও সৌম্য।



ইতিহাস গড়ার দিনে সৌম্য হয়েছেন ম্যাচসেরা।

১৬ ম্যাচে ১৩ জয় নিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে আবাহনী। সমান ম্যাচে সমান জয় নিয়ে লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জ রানার্সআপ। পয়েন্ট ও মুখোমুখি লড়াই সমান হওয়ার পর রান রেটের হিসেব টানা হয়েছে।  ০.৩৪৯ রান রেটে এগিয়ে আবাহনী শিরোপা উৎসব করেছে।  




রাইজিংবিডি/ঢাকা/২৩ এপ্রিল ২০১৯/ইয়াসিন

ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন