ঢাকা, বুধবার, ২৫ চৈত্র ১৪২৬, ০৮ এপ্রিল ২০২০
Risingbd
সর্বশেষ:
করোনাভাইরাস

ইতালিতে সুস্থ হয়েছেন ১ হাজার ২৫৮ জন

ইসমাইল হোসেন স্বপন, ইতালি : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০২০-০৩-১৩ ৩:১৪:২০ এএম     ||     আপডেট: ২০২০-০৩-১৩ ৩:১৪:২০ এএম

প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে চীনের পর সবচেয়ে বেশি প্রাণহানির ঘটনা ঘটেছে ইউরোপের দেশ ইতালিতে।

এই ভাইরাসে গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আরও  ১৮৯ জন প্রাণ হারিয়েছেন। দেশটিতে এখন পর্যন্ত মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১ হাজার ১৬ জন। 

ইতালির নাগরিক সুরক্ষা সংস্থা জানিয়েছে, বৃহস্পতিবার নতুন করে আরও আড়াই হাজারের  অধিক ব্যক্তি এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন।এ নিয়ে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৫ হাজার ১১২ জনে। 

এ ছাড়া করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ১ হাজার ২৫৮ জন রোগী চিকিৎসার মাধ্যমে সুস্থ হয়ে বাসায় ফিরেছেন বলে জানিয়েছে দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়।

এদিকে, করোনার প্রভাব ঠেকাতে ইতালি সরকার এর আগে বিভিন্ন পদক্ষেপ নিলেও নতুন রোগী আক্রান্তের সংখ্যা রাড়তে থাকায় সোমবার রাত ১০টায় (বাংলাদেশ সময় রাত ৩টা) আকষ্মিকভাবে প্রধানমন্ত্রী জোসেপ্পে কন্তে এক সংবাদ সম্মেলনে পুরো ইতালিকে রেডজোনের আওতাভুক্ত ঘোষনা করে।

পুরো দেশ রেডজোনের আওতাভুক্ত ঘোষণা করার পর থেকেই গৃহবন্দি হয়ে পড়েছে দেশের প্রায় ৬ কোটি মানুষ।দেশটির ব্যস্ততম শহর গুলো পরিণত হয়েছে ভুতুড়ে নগরীতে। পুরো দেশ যেন এক আতঙ্কের নগরী।

এ দিকে দেশটির পরিস্থিতির উন্নতির জন্য আগামী ৩ এপ্রিল পর্যন্ত সাময়িকভাবে সকল পর্যায়ের কার্যক্রম সীমিত করা হয়েছে। 

শহরগুলোর সবখানেই আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর উপস্থিতি বাড়ানো হয়েছে। ইতিমধ্যে অধিকাংশ অফিস বন্ধ হয়ে গেছে। আদালতের কার্যক্রম ৩১ মে পর্যন্ত স্থগিত ঘোষনা করা হয়েছে।

ট্যুরিস্ট এলাকাগুলো একেবারে ফাঁকা। হোটেল, রেস্টুরেন্টসহ  সব ব্যবসায় ধস নেমেছে। অসংখ্য প্রবাসী বাংলাদেশি বেকার হয়ে পড়ছে। সকাল ৬টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত রেস্টুরেন্ট, আলিমেন্টারি খোলা রাখা যাবে তবে প্রায় বেশির ভাগই বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। 

এদিকে জানা গেছে,রোমের বাংলাদেশ দূতাবাসের সকল কার্যক্রম গত মঙ্গলবার থেকে পরবর্তী নির্দেশ দেওয়া না পর্যন্ত স্থগিত থাকবে।

এখন পর্যন্ত কোনো প্রবাসী বাংলাদেশি এই ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার খবর পাওয়া যায়নি।


ইতালি/ইসমাইল হোসেন স্বপন/নাসিম