ঢাকা, সোমবার, ২৩ চৈত্র ১৪২৬, ০৬ এপ্রিল ২০২০
Risingbd
সর্বশেষ:

হাওরে ধানের বদলে ভুট্টার আবাদ বাড়ছে যে কারণে

রুমন চক্রবর্তী : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০২০-০২-২৪ ১২:৪৯:০৩ পিএম     ||     আপডেট: ২০২০-০২-২৪ ১২:৪৯:০৩ পিএম

হাওর মানেই শুকনো মৌসুমে বিস্তীর্ণ হাওর জুড়ে ধান চাষের সমারোহ। যেদিকে চোখ যাবে, ভেসে উঠবে সবুজ ধানের হাওরের মাঠ। হাওরের সে স্থানটি এখন দখল করেছে ভুট্টা।

কিশোরগঞ্জ জেলার হাওরের তিন উপজেলা ইটনা, মিঠামইন ও অষ্টগ্রামের বিভিন্ন এলাকা ঘুরে এমনই চিত্র দেখা গেছে। যে সকল জমিতে গতবছরও ধানের আবাদ হতো সেই সব স্থানে মাঠের পর মাঠ দেখা যাচ্ছে ভুট্টার আবাদ।

কৃষকরা বলছেন, এতে উৎপাদন খরচ কমার পাশাপাশি বাজারে ভাল দামও পাওয়া যাচ্ছে। চোখে মুখে তাদের নতুন ফসলে সুখের হাতছানি। তাই কৃষকরা এখন আর ধান চাষে ততটা আগ্রহী নন। উৎপাদন খরচ বেশি হওয়ায় ধান চাষে আগ্রহ হারাচ্ছে এখানকার কৃষক। শুকনো মৌসুমে এখন বিকল্প ফসল হিসেবে ভুট্টা চাষের দিকে ঝুঁকছেন তারা।

গত কয়েক বছর ধরে প্রাকৃতিক দুর্যোগসহ বিভিন্ন কারণে ধান চাষে লোকসান গুনতে হয়েছে তাদের। তাই যতই দিন গড়াচ্ছে হাওরের কৃষকরা ধানের প্রতি আগ্রহ হারাচ্ছে। সাথে তাল মিলিয়ে কমে যাচ্ছে ধানের আবাদ। কিন্তু তাতে থেমে নেই তাদের জীবনযাত্রা। ধানে লোকসান হলেও লাভের আশায় সেই জমিতে ভুট্টা ও সবজি চাষ করে সাফল্য পেয়েছেন তারা। তারা মনে করেন, প্রাকৃতিক দুর্যোগ ও আগাম বন্যায় হাওরাঞ্চলে ধান চাষে ঝুঁকি থাকলেও ভুট্টা চাষে তেমন কোন ঝুঁকি নেই। কারণ বর্ষার পূর্বেই কৃষক ভুট্টা ঘরে তুলতে পারেন। এসব কারণে কমে যাচ্ছে ধান চাষ, আর বেড়ে যাচ্ছে ভুট্টার আবাদ। তুলনামূলক কম খরচ ও লাভজনক হওয়ায় কৃষকরা ধান চাষ ছেড়ে অন্যান্য ফসল আবাদের দিকে ঝুঁকছে।

ইটনা উপজেলার রায়টুটি ইউনিয়নের কৃষক শওকত আলী বলেন, ‘আমাদের মূল চাষই হচ্ছে ধান। কিন্তু গত কয়েকবছর ধরে অকাল বন্যা, বৃষ্টিতে আমাদের অনেক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। মহাজনী ঋণ নিয়েও অনেক বিপাকে পড়েছি। তাই এখন থেকে অন্যান্য চাষ শুরু করেছি। বিশেষ করে ভুট্টা চাষে বেশি লাভ পাচ্ছি। আর সময়মতও ভুট্টা চাষ করে ঘরে তুলতে পারছি। ভুট্টা আবাদে খরচও কম হয়।’

মিঠামইন উপজেলার ভুট্টা চাষি রহমত খান জানান, কৃষক হিসেবে সবসময় ধান চাষেই আগ্রহ আমার। তাছাড়া হাওরে ধানের ফলনও ভাল হয়। কিন্তু পাহাড়ি ঢলে আর অনাবৃষ্টির আশঙ্কায় থাকতে হয়। ভুট্টা চাষ গত বছর থেকে শুরু করেছি। আর সবচেয়ে বড় ব্যাপার এটি নিরাপদ ফসল। লোকসান হওয়ার শঙ্কা থাকেনা। গতবছর কিছু জমিতে ভুট্টা চাষ করে লাভের মুখ দেখেছি। আর তাই এবছর এর কোন বিকল্প নেই।’

কিশোরগঞ্জ কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের অতিরিক্ত উপ-পরিচালক মো. আশোক পারভেজ জানান, বিগত বছর গুলোতে ধানের দাম কম পাওয়ায় কৃষকরা ধান চাষ রেখে ভুট্টা চাষে ঝুঁকছে। বিগত কয়েক বছর আগেও ৫০ হেক্টর জমিতে ভুট্টা চাষ হতো। বর্তমানে তা দিন দিন বেড়েই চলেছে। ধান চাষে খরচের তুলনায় লাভ কম। কিন্তু ভুট্টা চাষে ঠিক উল্টো। ভুট্টা চাষে সেচও কম দরকার হয়, আর ফলনও বেশি হয়।’

কৃষি বিভাগের সূত্র মতে, হাওরে অন্যান্য বছরের তুলনায় আশ্চর্য্যজনক হারে চলতি বছর ভুট্টার আবাদ বেড়েছে। এ বছর কিশোরগঞ্জের হাওর এলাকায় প্রায় ৬ হাজার ৬শত ৭০ হেক্টর জমিতে ভুট্টার আবাদ হয়েছে।

 

কিশোরগঞ্জ/টিপু