ঢাকা, শুক্রবার, ১৯ চৈত্র ১৪২৬, ০৩ এপ্রিল ২০২০
Risingbd
সর্বশেষ:

শান্তি ও সম্ভাবনাময় আগামীর প্রত্যাশায় চৈত্র সংক্রান্তি উদযাপন

হাসান মাহামুদ : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৯-০৪-১৩ ১০:০৭:৫৯ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৯-০৪-১৪ ১২:৩৩:৪৬ এএম

নিজস্ব প্রতিবেদক : ব্যর্থ প্রাণের আবর্জনা পুড়িয়ে ফেলে আগুন জ্বালো/একলা রাতের অন্ধকারে আমি চাই পথের আলো ...। সেই আলোর পথরেখায় বিদায় নিল আরেকটি বছর। সম্ভাবনাময় আগামীর প্রত্যাশায় সময়ের স্রোতধারায় বিলীন হলো বঙ্গাব্দ ১৪২৫।

শনিবার ছিল বিদায়ী বাংলা বছরের শেষ দিন ত্রিশে চৈত্র। হাজার বছরের ঐতিহ্যবাহী বাংলা সংস্কৃতির রীতিমাফিক চৈত্রসংক্রান্তি। এক সময়ের গ্রামীণ এই লোকাচার এখন মিশে গেছে নাগরিক জীবনে। তাই তো শহর ঢাকায় বসন্তের শেষ দিনটি হয়ে উঠলো বর্ণময়। মঙ্গল প্রদীপের আলোয় পুরনো বছরকে বিদায় জানিয়ে স্বাগত জানানো হলো নতুন বছরকে। লাঠিয়ালের লাঠিখেলায় শিল্পকলার আঙিনা উঠলো এক খণ্ড গ্রামবাংলা। কোথাও বা কবিতার শব্দমালায় উচ্চারিত হলো সম্প্রীতির বারতা। গানের সুরে সুরে আলিঙ্গন করা হয়েছে শিকড়কে। ছন্দোময় নৃত্যের তালে বছরের শেষ দিনটিতে ব্যক্ত হয়েছে অসুরবিনাশী সুরের বারতা। এভাবেই মানবিকতার মর্মবাণীতে শান্তির প্রত্যাশায় ধাবিত হয়েছে নাগরিক মন।

চৈত্রসংক্রান্তিকে ঘিরে নগর জুড়ে অনুষ্ঠিত হয়েছে অনুষ্ঠান। শেকড়সন্ধানী শহরবাসী ঐতিহ্যের আবাহনে সামিল হয়েছে চৈত্রসংক্রান্তি উদ্যাপনের সেসব আয়োজনে। চৈত্র সংক্রান্তি অনুষ্ঠানের আয়োজন করে বাংলাদেশ গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশান। বাংলা বছরের শেষ দিনকে ঘিরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের বকুলতলায় ছিল অনুষ্ঠান। সেগুনবাগিচার শিল্পকলা একাডেমির উন্মুক্ত ময়দানে ছিল লাঠিখেলাসহ লোকগান ও নৃত্য পরিবেশনা। লালমাটিয়ার বেঙ্গল বইয়ের উঠানেও ছিল চৈত্র নিয়ে আয়োজন।'

লাঠিখেলা ও লোকগানের পরিবেশনা: দুপুর গড়ানো বিকেলে ঢোলের বোলে সরগরম হয়ে ওঠে শিল্পকলা একাডেমির উন্মুক্ত আঙিনা। বাদ্য-বাজনার তালে তালে চলতে থাকে লাঠিখেলা। মাঠের চারপাশ ঘিরে থাকা দর্শক যেন ফিরে যায় তার চিরচেনা গ্রামীণ জীবনে।

বাংলা বছরের বিদায় উপলক্ষে ৩০ চৈত্র বা ১৩ এপ্রিল বিকেল ৪টায় বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির উন্মুক্ত প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত হয় বিজু উৎসব, লাঠি খেলা, ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী নৃত্য, ঢাক-ঢোল পরিবেশনা, লোকনৃত্য, সাইদুলের কিচ্ছা এবং অ্যাক্রোবেটিক প্রদর্শনী।

বিকেল গড়ানো সন্ধ্যায় শুরু হয় বিচিত্র আঙ্গিকের লোকগানের পরিবেশনা। গীত হয় গম্ভীরা, পালাগানসহ ফকির লালন সাঁই, হাছন রাজা, বিজয় সরকার, কালুশা ফকিরের মতো লোকবিদের গান।

গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশনের চৈত্রসংক্রান্তি: প্রতি বছরের মতো এবারও বর্ণিল আয়োজনে চৈত্র সংক্রান্তি উদ্যাপন করেছে বাংলাদেশ গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশন। সন্ধ্যায় আয়োজনটির সূচনা হয় মঙ্গল প্রদীপ প্রজ্বলনের মাধ্যমে। এ সময় উপস্থিত ছিলেন নাট্যজন রামেন্দু মজুমদার, নাসির উদ্দীন ইউসুফ, মামুনুর রশীদসহ ফেডারেশনের নেতৃবৃন্দ। শিল্পকলা সহযোগিতায় অনুষ্ঠিত আয়োজনে সবার মাঝে আনন্দ ভাগাভাগি করে নেয়া হয় মুড়ি-মুড়কি বিতরণের মাধমে। সেই সঙ্গে ছিল নৃত্য-গীত কবিতায় সজ্জিত সাংস্কৃতিক পরিবেশনা।



রাইজিংবিডি/ঢাকা/১৩ এপ্রিল ২০১৯/হাসান/সাইফ