ঢাকা, শুক্রবার, ১৯ আষাঢ় ১৪২৭, ০৩ জুলাই ২০২০
Risingbd
সর্বশেষ:

কালবৈশাখীতে ২০ গ্রাম লণ্ডভণ্ড, আহত ১৫

বাদল সাহা : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৮-০৪-১৮ ১২:৪৮:৪৭ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৮-০৪-১৮ ১:৫৪:৩২ পিএম

গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি : গোপালগঞ্জের ওপর দিয়ে বয়ে যাওয়া কালবৈশাখীতে তিন উপজেলার ২০ গ্রামের দুই শতাধিক ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত এবং গাছপালা ও ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। এতে অন্তত ১৫ জন আহত হন।

ঘরবাড়ি হারিয়ে নিঃস্ব হয়ে এখন খোলা আকাশ আর গাছের নিচে বসবাস করেছে এসব পরিবার। দ্রুত সহায়তার দাবি জানিয়েছে পরিবারগুলো।

মঙ্গলবার বিকেল ও সন্ধ্যায় গোপালগঞ্জের সদর উপজেলার সাতপাড়, ভেন্নাবাড়ি, বৌলতলী, গান্ধিয়াশুর, চামটা কাশিয়ানী উপজেলার চরজাজিরা, চরভাটপাড়া, সিংগা, হাতিয়ারা, পুইশুর, দেবশুর সীতারামপুর ও মুকসুদপুর উপজেলার বানিয়ারচর, জলিরপাড়, ননীক্ষীর, মোচনা, বাশুদেবপুর, ধর্মরায়ের বাড়িসহ ২০টি গ্রামের ওপর দিয়ে বয়ে যায় কালবৈশাখী। মাত্র ১৫ মিনিটের ঝড়ে লণ্ডভণ্ড হয়ে যায় এসব গ্রাম। মন্দির, মসজিদসহ দুই শতাধিক ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত হয়। ঘর ও গাছে চাপা পড়ে অন্তত ১৫ জন আহত হন।

সহায়-সম্বল হারিয়ে নিঃস্ব হয়ে পড়েছে ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার। ছেলে-মেয়ে নিয়ে খোলা আকাশ ও গাছের নিচে বসবাস করছেন তারা। খাদ্য সংকটে পরায় না খেয়ে থাকতে হচ্ছে।
 


এদিকে ঝড়ে গাছপালা ও ধানসহ বিভিন্ন ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। ফলে ক্ষতিগ্রস্ত ধান চিটা হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা করছেন তারা।

ক্ষতিগ্রস্ত রাধারানী মণ্ডল বলেন, ‘হঠাৎ করেই গ্রামগুলোর ওপর দিয়ে কালবৈশাখী বয়ে যায়। এতে অনেক ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত হয়েছে। সবকিছু হারিয়ে আমরা এখন নিঃস্ব। আমাদের এখন পরিবার-পরিজন নিয়ে খোলা আকাশের নিচে বসবাস করতে হবে।’

গোপালগঞ্জ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক সমীর কুমার গোস্বামী বলেন, ‘ঝড়ে ধানসহ বিভিন্ন ফসলের ক্ষতি হয়েছে। যেসব ক্ষেতের ফসল নুয়ে পড়েছে সেসব ফসলের কিছু ক্ষতি হবে। আমরা কৃষকদের পরামর্শ দিয়ে যাচ্ছি যাতে তারা ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে পারেন।’




রাইজিংবিডি/গোপালগঞ্জ/১৮ এপ্রিল ২০১৮/বাদল সাহা/সাইফুল

       
 

আরো খবর জানতে ক্লিক করুন : গোপালগঞ্জ, ঢাকা বিভাগ