ঢাকা, শনিবার, ২৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ১৪ ডিসেম্বর ২০১৯
Risingbd
সর্বশেষ:

নাটোরে রেলের তেল চুরি থামছে না

নাটোর সংবাদদাতা : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৯-১১-০৮ ৮:৫০:০৫ এএম     ||     আপডেট: ২০১৯-১১-০৮ ২:৪২:১৬ পিএম

চোর চক্রের বিরুদ্ধে অভিযান চালানোর পরও নাটোরের লালপুরে রেলের তেল চুরি থামছে না। এতে রেল বিভাগ লোকসানে পড়ছে।

আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা কিছু চোরকে আটক করলেও পরিস্থিতির তেমন উন্নতি হয়নি। আটকের পর আদালত থেকে জামিনে মুক্ত হয়ে পুনরায় চুরি শুরু করেন তারা।

নাটোরের লালপুর উপজেলার আব্দুলপুর রেলওয়ে জংশনের আশপাশে প্রায়ই চোখে পড়ে ট্রেনের তেল চুরির দৃশ্য। উন্নতমানের বড় বড় প্যাকেটে (বস্তা) করে তেল ফেলে দেয়া হয় ট্রেন থেকে। অনেক সময় ট্রেন থামিয়েও ট্যাংক থেকে তেল বের করে নেয়া হয়।

রেল লাইনের পাশে দিনে-দুপুরে ট্রেনের তেল চুরির দৃশ্য দেখা যায়। চোরেরা তেলভর্তি বড় প্যাকেট (বস্তা) মাথায় করে নিয়ে গিয়ে শ্যালো ইঞ্জিনচালিত গাড়িতে করে চলে যান গোপন স্থানে। এরপর সেখান থেকে তেল চলে যায় বিভিন্ন দোকানে।

তেল চোর চক্রের কয়েকজন সদস্য নাম না প্রকাশ শর্তে জানান, রেলের তেল কিনে বিভিন্ন স্থানে বিক্রি করেন তারা। বিভিন্নজনকে ম্যানেজ করেই তারা এ কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন।

পরিচয় প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন জানান, প্রায় দুই বছর ধরে তেল চুরির সঙ্গে জড়িত তিনি। ট্রেনচালকের যোগসাজশে তিনি তেল কিনে নেন। পরে তা বিভিন্ন দোকানে প্রতি লিটার ৪০ থেকে ৪৫ টাকা দরে বিক্রি করেন। এতে তিনি বেশ লাভবান হন। এজন্য আটক হওয়ার ঝুঁকি থাকা সত্বেও তেল চুরি করেন। তেল চুরির দায়ে এর আগে তিনি আটকও হয়েছেন। ওই এলাকায় তার মতো আরো অনেকেই রেলের তেল চুরি করেন। এর সঙ্গে স্থানীয় প্রশাসন ও রেল বিভাগের কিছু কর্মকর্তা-কর্মচারী জড়িত।

স্থানীয় আব্দুল কাদের ও সজিব রহমান বলেন, এর আগেও এই তেল চোর চক্রের সদস্যরা অনেকবার হাতেনাতে ধরা পড়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের হাতে। কিন্তু প্রতিবার আদালত থেকে জামিনে বের হয়ে এসে আবার তেল চুরি শুরু করেন।

নাটোর র‌্যাব-৫ এর এএসপি রাজিবুল আহসান  বলেন, রেলের তেল চুরি বন্ধে নিয়মিত অভিযান চালানো হয়। বেশ কয়েকবার কয়েকজনকে আটকও করা হয়েছে। সর্বশেষ ২ হাজার ১০০ লিটার তেলসহ কয়েকজনকে আটক করা হয়। রাষ্ট্রীয় সম্পদ রক্ষার্থে এ অভিযান অব্যাহত থাকবে।

 

নাটোর/আরিফুল ইসলাম/রফিক

ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন