ঢাকা     সোমবার   ১০ আগস্ট ২০২০ ||  শ্রাবণ ২৬ ১৪২৭ ||  ২০ জ্বিলহজ্জ ১৪৪১

তাজবিদের শরীরে করোনাভাইরাসের লক্ষণ নেই

279 || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৪:৪৩, ৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০  
তাজবিদের শরীরে করোনাভাইরাসের লক্ষণ নেই

রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করোনাভাইরাস আক্রান্ত সন্দেহে চীন ফেরত যুবকের দেহের নমুনা ঢাকা আইইডিসিআরে পাঠানো হয়েছে। মঙ্গলবার পরীক্ষার রিপোর্ট পাওয়া যাবে। এরপর নিশ্চিত হওয়া যাবে তিনি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত কিনা না।

তবে হাসপাতালের চিকিৎসকরা জানিযেছেন, হাসপাতালে ভর্তি তাজবিদ হোসেন করোনাভাইরাসে আক্রান্তে হওয়ার লক্ষণ দেখা যাচ্ছে না।

রমেক হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, নীলফামারীর ডোমার উপজেলার তাজবিদ হোসেনসহ ৭ যুবক ২৯ জানুয়ারি চীন থেকে দেশে ফেরেন। ঢাকা বিমানবন্দরে পরীক্ষা শেষে তাজবিদ নিজ বাড়িতে অবস্থান করছিলেন। হঠাৎ করে জ্বর, কাশি ও শ্বাসকষ্টে আক্রান্ত হলে শনিবার দুপুরে তাকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

রোববার ঢাকা থেকে রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইন্সটিটিউট-আইইডিসিআরের টিম এসে তার দেহের রক্ত, লালা আর ঘামের নমুনা নিয়ে গেছে।

স্বাস্থ্য বিভাগের পরিচালক ডা. আমিনুল ইসলাম বলেন, দেশে করোনাভাইরাস আক্রান্তের আশঙ্কা খুব কম। তার পরেও তারা মোকাবেলায় প্রস্তুত রয়েছেন। সন্দেহভাজন কাউকে পাওয়া গেলে তাকে পর্যবেক্ষণে রাখার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

রমেক হাসপাতালে ভর্তি তাজবিদ হোসেনের বিষয়ে তিনি বলেন, তিনি ১০ দিনের মতো বাড়িতে ছিলেন। তার দেহে করোনাভাইরাস সংক্রামক থাকলে তা পরিবারের অন্য সদস্যদের সংক্রামিত হওয়ার আশঙ্কা ছিল। কিন্তু এখানে সেটা হয়নি। তাই তার দেহে করোনাভাইরাস না থাকার সম্ভাবনা বেশি।

রমেক হাসপাতালের সহকারী পরিচালক ডা. মোকাদ্দেস হোসেন বলেন, হাসপাতালে ভর্তি তাজবিদ হোসেন মোটামুটি সুস্থ। জ্বর, সর্দি নেই। বুকে সামান্য ব্যথা আছে। এটা করোনাভাইরাসের লক্ষণ নয়।

এদিকে, স্বাস্থ্য বিভাগ রংপুরের প্রতিটি জেলা সদর হাসপাতালে ৫টি করে বেড খালি রেখেছে করোনাভাইরাস আক্রান্ত সন্দেহজনক কাউকে পাওয়া গেলে পর্যবেক্ষণ ও চিকিৎসা দেয়ার জন্য। স্বাস্থ্য বিভাগ বাংলাবন্ধা, হিলি, বুড়িমারীসহ সব স্থলবন্দরে বিশেষ টিম প্রস্তুত রেখেছেন। সন্দেহভাজন কাউকে পাওয়া গেলে সঙ্গে সঙ্গে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

রংপুর নগরীতে ইন্টারন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব এপ্লায়েড সায়েন্স এন্ড টেকনোলজি নামে একটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান নিজ সেমিনারকক্ষে ‘করোনাভাইরাস: চিন্তিত হলেও আতংকিত নয়’- বিষয়ক এক সেমিনারের আয়োজন করে। 

সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন জুনোটিক ডিজিজ বিশেষজ্ঞ বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. মো. সহিদুজ্জামান।

সেমিনারে প্রধান অতিথি ছিলেন রংপুর নর্দান প্রাইভেট মেডিকেল কলেজের মাইক্রোবায়োলজি বিভাগের প্রধান প্রফেসর ড. মুজিবুর রহমান। বিশেষ অতিথি ছিলেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ভেটেরিনারি এন্ড এনিমেল সায়েন্সেস বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. মো. হাকিমুল হক। সেমিনারে সভাপতিত্ব ওই করেন প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষ মো. মহসীন তালুকদার।

সেমিনারে বক্তারা বলেন, করোনাভাইরাস ১৯৬০ এর দশকে প্রথম আবিষ্কৃত হয়। এরপর থেকে বিভিন্ন সময়ে ভাইরাসটির বেশ কয়েকটি প্রজাতি পাওয়া যায়। যার মধ্যে উল্লেখযোগ্য ২০১৯ সালে চীনে নোবেল করোনাভাইরাস; যা উহান সি-ফুড মার্কেট নিউমোনিয়া ভাইরাস নামেও পরিচিত।

তারা বলেন, ২০২০ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত চীনের সঙ্গে ২৮টি দেশে করোনাভাইরাস সংক্রমণের খবর পাওয়া যায়। কিন্তু বাংলাদেশে এখন পর্যন্ত এই ভাইরাসে আক্রান্ত রোগী পাওয়া যায়নি। এ রোগে মৃত্যুর হার প্রায় ২ শতাংশ।

করোনাভাইরাস নিয়ে আতংকিত হওয়ার কিছু নেই বলে মন্তব্য করেন বিশেষজ্ঞরা।

 

রংপুর/নজরুল মৃধা/বকুল

রাইজিংবিডি.কম

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়