ঢাকা, সোমবার, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭, ২৫ মে ২০২০
Risingbd
সর্বশেষ:

বাড়ি ফিরতে চান ভুল ট্রেনের যাত্রী ফাতেমা

আদমদীঘি (বগুড়া) সংবাদদাতা : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০২০-০৪-০১ ৫:৩৩:৫৪ পিএম     ||     আপডেট: ২০২০-০৪-০১ ৫:৩৩:৫৪ পিএম
ভুল ট্রেনে চড়ে সান্তাহারে আটকে পড়া ফাতেমা বেগম

ঢাকায় চিকিৎসা করিয়ে যশোরে নিজ বাড়িতে ফিরতে চেয়েছিলেন ফাতেমা বেগম (৭০)। কমলাপুর স্টেশন থেকে ট্রেনেও চেপে বসেন। কিন্তু যশোরের ট্রেনে না চড়ে ভুল করে চড়ে বসেন উত্তরবঙ্গের ট্রেনে। গত সাত দিন ধরে তিনি আটকে আছেন সান্তাহার স্টেশনে।

ফাতেমার বাড়ি যশোর সদরের শংকরপুর গোলপাতা মসজিদের পাশে। স্বামী মৃত শেখ খলিল মিয়া। তার তিন মেয়ে ও এক ছেলে। ছেলে দেলোয়ার হোসেন ভাঙ্গারি ব্যবসা করেন।

পরিবারের ঠিকানা বলতে পারলেও স্বজনদের কোনো মোবাইল নম্বর বলতে পারছেন না ফাতেমা বেগম। বাড়ি ফেরার জন্য মাঝেমধ্যে কান্নাকাটিও করছেন তিনি।

করোনাভাইরাস সংক্রমণের এই ঝুঁকিপূর্ণ সময়ে গণপরিবহন বন্ধ থাকায় তাকে বাড়ি পাঠানোর কোনো ব‌্যবস্থা করা যাচ্ছে না। তাই সান্তাহার পৌরসভার মেয়র তোফাজ্জল হোসেন ভুট্টু মঙ্গলবার (৩১ মার্চ) সকালে সান্তাহার স্টেশন থেকে তাকে নিয়ে পৌরসভার একটি ঘরে রেখেছেন। তার দেখভালের জন্য দায়িত্ব দিয়েছেন একজন পিয়নকে।

ফাতেমা বেগম জানান, চিকিৎসার জন্য ঢাকায় এক আত্মীয়ের বাড়িতে উঠেছিলেন। গত ২৫ মার্চ ওই আত্মীয়ের সাথে কমলাপুর স্টেশনে আসেন। যশোরের ট্রেনে না উঠে ভুলক্রমে উত্তরাঞ্চলের ট্রেনে উঠে পড়েন। এরপর ওই দিন সন্ধ্যায় যশোর মনে করে সান্তাহার স্টেশনে নেমে পড়েন।

করোনার প্রভাবে ২৬ মার্চ থেকে গণপরিবহন বন্ধ হয়ে পড়ে। ফলে তিনি আর কোথাও যেতে না পেরে সান্তাহার স্টেশনে অপেক্ষা করতে থাকেন। এক সময় ভয় পেয়ে কান্নাকাটি শুরু করেন। পরে সান্তাহার রেল স্টেশনের টিকিট কাউন্টারে তার আশ্রয় মেলে।

সান্তাহার পৌরসভার মেয়র তোফাজ্জল হোসেন ভুট্টু বলেন, ‘সান্তাহার স্টেশনে কান্নাকাটি করছিলেন ওই নারী। পরে সংবাদ পেয়ে রেল স্টেশনের টিকিট কাউন্টারে তার থাকা-খাওয়ার ব্যবস্থা করা হয়। মঙ্গলবার (৩১ মার্চ) সান্তাহার স্টেশন থেকে নিয়ে পৌরসভার একটি ঘরে রাখা হয়েছে। তাকে দেখভালের জন্য পৌরসভার এক পিয়নকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘তাকে ফিরিয়ে দিতে কয়েক জায়গায় যোগাযোগ করেছিলাম। তবে আমার সাথে এখনো কেউ যোগাযোগ করেনি। ফাতেমা বেগম বলছেন ট্রেনে উঠিয়ে দিলে তিনি যেতে পারবেন। কিন্তু কোনো পরিবহন এখন চলছে না। এছাড়া তাকে একা ছেড়ে দেওয়াও ঠিক হবে না।’

ফাতেমা বেগমের খোঁজ জানতে- তুহিন, মোবাইল নম্বর: ০১৭২৪-৮৬১৪৩২ এবং মেয়র তোফাজ্জল হোসেন ভুট্টু, মোবাইল নম্বর: ০১৭১১-৮৩৪১৩৩ এই দুটি মোবাইল ফোনে যোগাযোগের জন্য অনুরোধ করেছেন মেয়ার ভুট্টু।


জেন্টু/সনি