ঢাকা, সোমবার, ১৩ মাঘ ১৪২৬, ২৭ জানুয়ারি ২০২০
Risingbd
সর্বশেষ:

‘মূল্যস্ফীতির প্রধান নায়ক পেঁয়াজ’

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৯-১২-১০ ২:৫৭:১৮ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৯-১২-১১ ৮:২৯:৪৮ এএম

পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বলেছেন, সার্বিকভাবে মূল্যস্ফীতি বেড়েছে। আর এই মূল্যস্ফীতির প্রধান নায়ক হচ্ছে পেঁয়াজ।

মঙ্গলবার রাজধানীর শেরে বাংলা নগরে পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ে একনেক বৈঠক শেষে সংবাদ সম্মেলনে মন্ত্রী এ কথা বলেন। 

তিনি বলেন, “গত নভেম্বরে মূল্যস্ফীতির হার ছিল ৬ দশমিক শূন‌্য ৫ শতাংশ যা অক্টোবর ছিল শতকরা ৫ দশমিক ৪৭ শতাংশ।

‘চলতি বছরের নভেম্বর মাসে খাদ্য খাতে মূল্যস্ফীতির হার বেড়ে ৬ দশমিক ৪১ শতাংশ হয়েছে। গত মাসে এই খাতে মূল্যস্ফীতির হার ছিলো ৫ দশমিক ৪৯ শতাংশ। এছাড়াও বাড়িভাড়া, আসবাবপত্র, গৃহস্থলী, চিকিৎসা সেবা, পরিবহন, শিক্ষা উপকরণ এবং বিবিধ সেবাখাতের মূল্যস্ফীতির হার ঊর্ধ্বমুখী হয়েছে।

‘একই সময়ে খাদ্য বহির্ভূত খাতে মূল্যস্ফীতির হার বেড়ে হয়েছে ৫ দশমিক ৪৭ শতাংশ, গত মাসে যা ছিল ৫ দশমিক ৪৫ শতাংশ।”

তথ্যে আরো দেখা গেছে, প্রতি বছর পয়েন্ট টু পয়েন্টের ভিত্তিতে নভেম্বর পেঁয়াজ ছাড়াও ডাল, চিনি, মুড়ি, মাছ, মাংস, ব্রয়লার মুরগি, ফল, তামাক, দুগ্ধজাতীয় পণ্য এবং অন্যান্য খাদ্য সামগ্রীর দাম বেড়েছে। প্রতি মাসে ডিম, শাক-সবজি ও মসলা জাতীয় পণ্যের দামও চড়া হয়েছে।

এদিকে, গ্রামে নভেম্বর মাসে সার্বিক মূল্যস্ফীতি বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৬ দশমিক ০১ শতাংশে, যা তার আগের মাসে ছিল ৫ দশমিক ৩৬ শতাংশ। এর মধ্যে খাদ্যপণ্যের মূল্যস্ফীতি বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৬ দশমিক ৫৪ শতাংশে, (অক্টোবর মাসে ছিল ৫ দশমিক ৫৬ শতাংশ)। আর খাদ্য বহিভূর্ত পণ্যের মূল্যস্ফীতি কমে হয়েছে ৪ দশমিক ৯৯ শতাংশ (অক্টোবর মাসে ছিল ৪ দশমিক ৯৬ শতাংশ)।

সার্বিক মূল্যস্ফীতি বেড়েছে শহরেও, ৬ দশমিক ১২ শতাংশ। এর পরিমাণ অক্টোবর মাসে ছিল ৫ দশমিক ৬৭ শতাংশ। শহরে খাদ্যপণ্যের মূল্যস্ফীতি বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৬ দশমিক ১১ শতাংশে, যা তার আগের মাসে ছিল ৫ দশমিক ৩১ শতাংশ। এছাড়া খাদ্য বহিভূর্ত পণ্যের মূল্যস্ফীতি বেড়ে হয়েছে ৬ দশমিক ১৩ শতাংশ, যা এর আগের অক্টোবর মাসে ছিল ৬ দশমিক ০৯ শতাংশ।

 

ঢাকা/হাসিবুল/ইভা/সনি