ঢাকা     শুক্রবার   ০৭ আগস্ট ২০২০ ||  শ্রাবণ ২৩ ১৪২৭ ||  ১৭ জ্বিলহজ্জ ১৪৪১

শর্ত সাপেক্ষে সোনালী পেপারের লেনদেনের অনুমতি

|| রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৯:১২, ১২ জুলাই ২০২০  

ওভার দ্য কাউন্টার (ওটিসি) থেকে মূল মার্কেটে ফিরেছে সোনালী পেপার অ্যান্ড বোর্ড মিলস। তবে কোম্পানিটির লেনদেন স্থগিত রেখেছে উভয় স্টক এক্সচেঞ্জ।

পুনঃতালিকাভুক্তির জন্য কোম্পানিটি সকল শর্ত পরিপালন করেছে কি-না তা যাচাই সাপেক্ষে লেনদেনের অনুমতি দেয়া হবে বলে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) সূত্রে জানা গেছে।

তথ্য মতে, সোনালী পেপারের বিভিন্ন তথ্য-উপাত্ত যাচাই করে মতামত প্রদানের জন্য সম্প্রতি উভয় স্টক এক্সচেঞ্জকে (ডিএসই ও সিএসই) চিঠি দিয়েছে বিএসইসি। চিঠিতে সোনালী পেপারের প্রসপেক্টাসে উল্লিখিত ভেটেড ডকুমেন্ট ও সর্বশেষ অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন পর্যবেক্ষণ করতে স্টক এক্সচেঞ্জকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। পাশাপাশি ফ্লোর প্রাইস বিবেচনায় কোম্পানিটি মূল মার্কেটে কত টাকা লেনদেন করতে পারে সে বিষয়েও মতামত দেবে উভয় স্টক এক্সচেঞ্জ।

বিএসইসি সূত্রে জানা গেছে, গত বছরের ২৭ নভেম্বর বিগত কমিশনের (বিএসইসি) মেয়াদে পুনঃতালিকাভুক্তির বেশ কিছু শর্ত থেকে অব্যাহতি সাপেক্ষে সোনালী পেপার অ্যান্ড বোর্ড মিলসকে উভয় স্টক এক্সচেঞ্জের মূল মার্কেটে লেনদেনের অনুমোদন দেয়া হয়। শর্তগুলোর মধ্যে কোম্পানিটির পরিশোধিত মূলধন ৩০ কোটি টাকা থাকার বাধ্যবাধকতা, সর্বশেষ তিন হিসাব বছরে পরিচালন কার্যক্রমে নিট তারল্য প্রবাহে ধনাত্মক থাকা ও পরিচালকদের ডিউ ডিলিজেন্স সার্টিফিকেট, উদ্যোক্তা ও পরিচালকদের পৃথক নিঃশর্ত অঙ্গীকারনামা প্রদান ইত্যাদি।

তবে চলতি বছরে মে মাসে পুনর্গঠিত হয় কমিশন। ওই নতুন কমিশনের নির্দেশেই কোম্পানিটিকে মূল মার্কেটে লেনদেন শুরুর কার্যক্রম স্থগিত রেখেছে উভয় স্টক এক্সচেঞ্জ কর্তৃপক্ষ। বিগত কমিশন কোম্পানিটিকে যে প্রক্রিয়ায় পুনঃতালিকাভুক্তির অনুমোদন দিয়েছে, তা স্বচ্ছ ছিল না বলে মনে করে বর্তমান কমিশন। সে কারণেই পুনঃতালিকাভুক্তির সকল প্রক্রিয়া মেনেই সোনালী পেপারকে লেনদেনের অনুমোদন দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিএসইসি।

এ বিষয়ে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা রাইজিংবিডিকে বলেন, ‘বিএসইসির নির্দেশ অনুযায়ী আমরা কোম্পানিটির পুনঃতালিকাভুক্তির জন্য সার্বিক বিষয়ে পর্যবেক্ষণ করছি। পর্যবেক্ষণ শেষে শিগগিরই আমাদের মতামত বিএসইসিতে পাঠাবো।’

এ বিষয়ে সোনালী পেপার অ্যান্ড বোর্ড মিলসের কোম্পানি সচিব রাশেদুল হোসাইন রাইজিংবিডিকে বলেন, ‘গত ২ জুলাই ডিএসই ও সিএসইর মূল মার্কেটে লেনদেন চালু হওয়ার কথা ছিল সোনালী পেপারের। কিন্তু ওই দিন হঠাৎ স্টক এক্সচেঞ্জ জানিয়েছে লেনদেন স্থগিত রাখা হয়েছে। তবে কেন লেনদেন হচ্ছে না তা জানানো হয়নি।’

প্রসঙ্গত, সোনালী পেপার ১৯৭৭ সালে ব্যবসা শুরু করে। ১৯৮৫ সালে ডিএসইতে তালিকাভুক্ত হয়। কোম্পানির পরিশোধিত মূলধন ১৫ কোটি ১২ লাখ টাকা। এর মধ্যে উদ্যোক্তাদের শেয়ার রয়েছে ৬৯ দশমিক ৩ শতাংশ। ২০১৮-১৯ হিসাব বছরে এ কোম্পানির শেয়ারপ্রতি মুনাফা (ইপিএস) হয়েছে ৪ টাকা ১৯ পয়সা। আর ২০১৯-২০ হিসাব বছরের অর্ধবার্ষিকে ইপিএস হয়েছে ১ টাকা ৮ পয়সা। কোম্পানিটির সর্বশেষ সমাপ্ত হিসাব বছরে শেয়ারপ্রতি নিট সম্পদ মূল্য (এনএভি) দাঁড়িয়েছে ৩৩৬ টাকা ৯০ পয়সা। চলতি বছরের ৩০ জানুয়ারি কোম্পানিটি ওটিসিতে সর্বশেষ ২৭৩ টাকায় লেনদেন হয়।

 

ঢাকা/এনটি/বুলাকী

রাইজিংবিডি.কম

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়