ঢাকা, সোমবার, ৫ কার্তিক ১৪২৬, ২১ অক্টোবর ২০১৯
Risingbd
সর্বশেষ:

‘ক্যাপ্টেন’ ছাড়া ‘শিপ’ যাচ্ছে বিদেশ!

রাহাত সাইফুল : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৯-০৫-১৩ ৫:৫৮:৫৮ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৯-০৫-১৩ ৮:৩৬:০৮ পিএম

রাহাত সাইফুল : চলচ্চিত্র পরিচালককে বলা হয় ‘ক্যাপ্টেন অব দ্য শিপ’। সিনেমা নির্মাণের পরিকল্পনা থেকে শুরু করে, অভিনেতা-অভিনেত্রী ও অন্যান্য কলাকুশলীদের সকল বিষয়ে নির্দেশ প্রদান, ভালো-মন্দ দিকগুলো বিবেচনা বা দেখাশোনা করা এবং একটি চলচ্চিত্র নির্মাণে সর্বোত্তম পরিশ্রম করেন নির্মাতা। পরিচালকের পরিকল্পনা অনুযায়ী কাজ করেন নৃত্য পরিচালক, ফাইট ডিরেক্টরসহ অন্যান্যরা।

ইদানীং প্রায়ই শোনা যায়, পরিচালক ছাড়াই সিনেমার গানের শুটিং হচ্ছে। আবার কখনো শোনা যায়, পরিচালককে বাদ দিয়েই সিনেমার শুটিং করা হচ্ছে। এসব নিয়ে কখনো কখনো অভিযোগও ওঠে। আবার কখনো কখনো পরিচালকের সম্মতিতে কাজগুলো হয়ে থাকে। কিন্তু পরিচালক ছাড়া একটি পরিপূর্ণ চলচ্চিত্র নির্মাণ কীভাবে হয়?

এ প্রশ্নের উত্তর না মিললেও এই তালিকায় এবার নাম লেখালেন গুণী নির্মাতা মালেক আফসারি। তার নির্মানাধীন ‘পাসওর্য়াড’ সিনেমার শুটিং করতে আজ সোমবার তুরস্ক যাচ্ছে শুটিং ইউনিট। কিন্তু সেই দলে নেই এই নির্মাতা। তুরস্ক না যাওয়ার বিষয়টি রাইজিংবিডিকে নিশ্চিত করেছেন তিনি।

পরিচালক ছাড়া সিনেমার শুটিং হবে। এতে কাজটি কতটা আপনার মনের মতো হবে বলে মনে করেন? এমন প্রশ্নের উত্তরে মালেক আফসারি রাইজিংবিডিকে বলেন, ‘তুরস্কে তিনটি গানের শুটিং হবে। এ গানগুলোর নৃত্য পরিচালনা করবেন কলকাতার বাবা যাদব। তিনি অত্যান্ত ভালো একজন কোরিওগ্রাফার। আমি যা চাচ্ছি তার থেকে বেশি দিবেন বলে মনে করছি। এই জন্যই তো তাকে বেশি টাকা দিয়ে নেওয়া হয়েছে। আর এমন ঘটনা এখন সবখানেই ঘটছে।’

বাবা যাদবকে কত টাকা দিয়ে নেওয়া হয়েছে? এ প্রশ্নের উত্তরে মালেক আফসারি বলেন, ‘এটা আমি বলতে চাচ্ছি না। আর তা ছাড়া এটা প্রযোজকের বিষয়।’

পরিচালক ছাড়া চলচ্চিত্রের শুটিং কতটা সঠিকভাবে সম্পন্ন হয়, সে বিষয়ে রাইজিংবিডিকে মতামত দিয়েছেন গুণী চলচ্চিত্র নির্মাতা মতিন রহমান। তিনি বলেন, ‘একজন পরিচালক তার নিজস্ব ভাবনা, পরিকল্পনাতেই চলচ্চিত্র নির্মাণ করেন। এখন যদি পরিচালক মনে করেন তার কাজ, ভাবনা অন্য কারো দ্বারা সমাধান হয়, তাহলে তাকে পরিচালক হিসেবে চিহ্নিত করার আগে দুবার ভাবতে হবে। কারণ প্রত্যেকটা ফ্রেম প্রত্যেকটা কম্পজিশন পরিচালক তার ভাবনায় রাখেন। কিছু কিছু কারিগরি বিষয় যেমন: ফাইটের বিষয়। এখানে পরিচালক তার ভাবনার বিষয় বলতে পারেন। সেটা বাস্তবায়ন করবেন ফাইট ডিরেক্টর। তবে পরিচালকের সামনেই এসব বিষয় ঘটে। এ সময় পরিচালক বুঝে নেন শিল্পী তার গল্পের প্রয়োজনে কতটা ভাব প্রকাশ করছেন। বিষয়টি দূরে থেকে বুঝে নেয়াটা সম্ভব নয়। একজন শিল্পী যে মুদ্রাটা করে দেখাচ্ছেন সেটা সিনেমার জন্য কতটা জরুরি আর ব্যাকগ্রাউন্ড আমার সিনেমার সঙ্গে কতটা মিল রয়েছে— তা দূরে থেকে বোঝা যাবে না।’

তিনি আরো বলেন, ‘বাংলাদেশের সংস্কৃতিতে আছে, পুরো সিনেমা নির্মাণ হওয়ার পর অন্যের নাম পরিচালক হিসেবে যাচ্ছে। এটা আমাদের সিনেমার জন্য অবশ্যই খারাপ দিক।’

‘পাসওয়ার্ড’ সিনেমায় শাকিব খানের বিপরীতে অভিনয় করছেন শবনম বুবলী। এছাড়াও অভিনয় করেছেন ইমন, মিশা সওদাগর, ডনসহ অনেকে।

এর আগে পরিচালক ছাড়াই শাকিব খান-বুবলী জুটির ‘ক্যাপ্টেন খান’ সিনেমার গানের শুটিং থাইল্যান্ডে হয়েছে। কিন্তু পরিচালক ওয়াজেদ আলী সুমন বাংলাদেশে ছিলেন। যদিও এটি তার সম্মতিতে হয়েছে। তা ছাড়া একই পরিচালকের ‘রক্ত’ সিনেমার শুটিং কক্সবাজার হয়েছে কিন্তু তখন ঢাকায় ছিলেন তিনি। সর্বশেষ তার পরিচালিত ‘মনে রেখ’ সিনেমার শুটিং তাকে ছাড়াই নেপালে হয়েছে।

চলচ্চিত্র নির্মাতাদের এমন অবহেলায় ‘ক্যাপ্টেন অব দ্য শিপ’ খ্যাতিটা প্রায় হারাতে বসেছে। তাদের পারিশ্রমিকও ছিল অভিনেতাদের তুলনায় অনেক বেশি। সময়ের সঙ্গে পরিচালকদের পারিশ্রমিক এখন তলানিতে ঠেকেছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।




রাইজিংবিডি/ঢাকা/১৩ মে ২০১৯/রাহাত/শান্ত

ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন