ঢাকা, সোমবার, ১ আশ্বিন ১৪২৬, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯
Risingbd
সর্বশেষ:

নুহাশ হুমায়ূনের দুঃখ প্রকাশ

আমিনুল ইসলাম শান্ত : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৯-০৫-২৩ ১১:১৪:৫০ এএম     ||     আপডেট: ২০১৯-০৫-২৩ ৩:১৯:০৭ পিএম
নুহাশ হুমায়ূনের দুঃখ প্রকাশ
নুহাশ হুমায়ূন
Walton E-plaza

বিনোদন ডেস্ক: নন্দিত কথাসাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদের পুত্র নুহাশ হুমায়ূন। সম্প্রতি দুটি বিজ্ঞাপনচিত্র তৈরি করে সমালোচনার মুখে পড়েছেন তিনি। বিজ্ঞাপন দুটির একটি মোবাইল ফোনের অন্যটি পেইন্টের।

মোবাইল ফোনের বিজ্ঞাপনে পাহাড়ের একটি প্রত্যন্ত অঞ্চল দেখানো হয়েছে। এতে দেখা যায়— রমজানে সাহরি ও ইফতারের সময় জানার কোনো ব্যবস্থা নেই। এজন্য এক পাহাড়ি ছেলে ইফতারের সময় দোকানে আজান শুনে সে খবর পুরো পাড়ায় জানিয়ে দেয়। আবার সাহরির সময় ছেলেটি সবাইকে ঘুম থেকে ডেকে তোলে। একটি দৃশ্যে— একজন জেগে উঠে ছেলেটিকে ধমক দিয়ে বলেন, ‘আমি হিন্দু।’ পাহাড়ি এই ছেলেটির বাঙালি নাম রাফি। নির্মাণে এমন অসঙ্গতিপূর্ণ বিজ্ঞাপনটিকে অনেকে সাংস্কৃতিক আগ্রাসন বলছেন।

অন্যদিকে পেইন্টের বিজ্ঞাপনটিতে চাঁপাইনবাবগঞ্জের বরেন্দ্র এলাকার টিকোইল গ্রামকে তুলে ধরা হয়েছে। গ্রামটি স্থানীয়ভাবে আলপনা গ্রাম নামেই পরিচিত। মাটির তৈরি ঘরে যুগের পর যুগ ধরে নারীরা আলপনা এঁকে চলেছেন। সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো— নানারকম মাটি দিয়ে নানারকম রঙ এবং প্রাকৃতিকভাবে গাছ-লতা থেকে আঠা তৈরি করে তারা মাটির ঘরে আলপনার কাজটি করে থাকেন। কিন্তু টিকোইল গ্রামের নারীদের প্রাকৃতিক রঙ ব্যবহার করে আলপনার ঐতিহ্য বিষয়ে না জেনেই বিজ্ঞাপনটি নির্মাণ করার অভিযোগ উঠেছে।

বিজ্ঞাপন দুটি নিয়ে বিভিন্ন মহলে মিশ্র সমালোচনা চলছে। সুশীল সমাজের অনেকে কড়া সমালোচনা করেছেন। আবার সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুক ও ইউটিউবে মন্তব্য করে অনেকে বিজ্ঞাপন দুটির প্রশংসা করেছেন। এ বিষয়ে পরিচালক নুহাশ হুমায়ূনের মন্তব্য জানতে তার মুঠোফোনে একাধিকবার চেষ্টা করেও পাওয়া যায়নি। কিন্তু গতকাল বুধবার বিকেলে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন তিনি। পাঠকদের জন্য তার স্ট্যাটাসটি তুলে ধরা হলো—

‘আমার নির্মিত নতুন একটা বিজ্ঞাপন নিয়ে অনেক আলোচনা-সমালোচনা হচ্ছে। আমি এরসাথে কিছু যোগ করতে চাই।

এই বিজ্ঞাপনটি আমি নির্মাণ করেছি কিন্তু এটার মূল ভাবনা আমার ছিল না। থার্ড পার্টি যখন কনসেপ্টটা দেয়, আমার কাছে ভালো লাগে। কনসেপ্টটা হলো পরিবার নিয়ে। একটা প্রত্যন্ত গ্রাম। যেখানে মুসলিমরা হলো সংখ্যালঘু। এটা রমজান মাসের উপর ফোকাস করা একটা বিজ্ঞাপন। কিন্তু এর মূল ভাবনা শুধু রমজানের রোজা রাখায় সীমাবদ্ধ না। এটা একাত্মতা আর বন্ধনেরও গল্প। আমার কাজটি যেন বাস্তবসম্মত হয়, তাই আমি আমার টিমে এথনিক কমিয়্যুনিটি থেকে প্রতিনিধি রেখেছিলাম।

কিন্তু যেহেতু বিজ্ঞাপনের প্রথমে লেখা দেখায়— ‘A Nuhash Humayun Film’, তাই পরিচালক হিসেবে এর সব দায়িত্ব আমারই। এই বিজ্ঞাপনটা আমিই নির্মাণ করেছি, গল্পটাও আমার পছন্দ হয়েছে, এর স্ক্রিপ্ট আমি পরিমার্জন করেছি, যেই সোর্স থেকে তথ্য পেয়েছি– তাও বিশ্বাস করেই ব্যবহার করেছি। এই বিজ্ঞাপনের সব দায়দায়িত্ব মাথায় নিয়েই, আমি গভীরভাবে দুঃখ প্রকাশ করছি তাদের কাছে, যারা বিজ্ঞাপনটি দেখে কোনোভাবে কষ্ট পেয়েছেন অথবা যাদের কাছে মনে হয়েছে আমি চট্টগ্রামের পাহাড়ি জনগোষ্ঠীকে ভুলভাবে উপস্থাপন করেছি। আমি বিনীতভাবে জানাতে চাই, কাউকে কষ্ট দেয়া বা আঘাত করা কখনই আমার উদ্দেশ্য ছিল না।

চট্টগ্রামের পাহাড়ি জনগোষ্ঠীর অনেক গুরুত্বপূর্ণ বিষয় আর সমস্যা মিডিয়াতে তেমনভাবে সামনে আসে না। আমরা সেইসব গুরুত্বপূর্ণ জিনিসকে বাদ দিয়ে বিজ্ঞাপনটা নির্মাণ করেছি খুব সরলীকরণ করে, দেখে ভালো লাগবে এমন একটা গল্প নিয়ে। যেখানে অবশ্যই আগে চট্টগ্রামের পাহাড়ি জনগোষ্ঠীর সেইসব গুরুত্বপূর্ণ বিষয় সামনে আসা প্রয়োজন ছিল।

অনেক মানুষ আমাকে তাদের মতামত জানাচ্ছেন। কিছু ভালো, কিছু খারাপ আর কিছু বেশ কঠিন। অবশ্যই এইসব মতামত আমাকে নির্মাণের ক্ষেত্রে ভবিষ্যতে আরো অনেক দায়িত্ববান ও যত্নশীল করে তুলবে।

আমি এটাও দেখলাম অনেকেই এখানে টেনে আনছেন আমার পরিবারকে, ব্যক্তিগতভাবে আক্রমণ করছেন আমাকে, যেই ছেলেটি বিজ্ঞাপনের প্রধান ভূমিকায় অভিনয় করেছেন-তাকেও নোংরাভাবে আক্রমণ করা হচ্ছে। এইসব ঘৃণা প্রকাশ মূল বিষয়ের সাথে সংগতিহীন।

এই বিজ্ঞাপনের গল্পটি আমার ভালো লেগেছিল, কারণ এটার মূল ভাবনা ছিল একাত্মতা প্রকাশ। আমার ভাবতে খুব খারাপ লাগছে, এই বিজ্ঞাপনটা কোনোভাবে বিভেদ তৈরি করছে! কোনোভাবেই সেটা আমার উদ্দেশ্য ছিল না।

যারা এই বিজ্ঞাপনটি নিয়ে লিখছেন, কথা বলছেন, আর ভালো মন্দ যাই ভাবছেন- আমি আপনাদের জানাতে চাই, আমি আপনাদের কথা শুনছি, শিখছি আর আর পরিণত হচ্ছি।’

স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র নির্মাণের মাধ্যমে পরিচালনার হাতেখড়ি নুহাশ হুমায়ূনের। ২০১৭ সালে ‘হোটেল অ্যালবাট্রস’ নামে একটি নাটক রচনা ও পরিচালনা করেন তিনি। এছাড়া বেশ কয়েকটি স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র নির্মাণ করে প্রশংসা কুড়িয়েছেন নুহাশ।

 

 

 

 

রাইজিংবিডি/ঢাকা/২৩ মে ২০১৯/শান্ত

ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন
       
Marcel Fridge