ঢাকা, রবিবার, ২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ১৭ নভেম্বর ২০১৯
Risingbd
সর্বশেষ:

মৌসুমীকে বিশেষ কমিটিতে রাখবো : মিশা

রাহাত সাইফুল : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৯-১০-২৬ ৪:১৩:৩৩ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৯-১১-০৪ ২:৪৮:৪৩ পিএম

বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির দ্বি-বার্ষিক নির্বাচন গতকাল ২৫ অক্টোবর বিএফডিসিতে অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতি পদে মিশা সওদাগরের বিপরীতে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন মৌসুমী। রাত একটায় নির্বাচন কমিশনার আনুষ্ঠানিকভাবে বিজয়ীদের নাম ঘোষণা করেন।

এতে মিশা সওদাগর ২২৭ ভোট পেয়ে সভাপতি নির্বাচিত হন। তার প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী মৌসুমী পেয়েছেন ১২৫ ভোট। এর আগেও মিশা সওদাগর শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক ও সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। পুনরায় সভাপতি হিসেবে নির্বাচনে জয়ী হওয়া ও শিল্পী সমিতি নিয়ে ভবিষ্যত পরিকল্পনাসহ নানা বিষয়ে রাইজিংবিডির প্রতিবেদক রাহাত সাইফুল এর সঙ্গে কথা বলেন মিশা সওদাগর। আলাপচারিতার বিশেষ অংশ রাইজিংবিডির পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হলো-

রাইজিংবিডি : সভাপতি পদে নির্বাচিত হওয়ায় আপনাকে অভিনন্দন।

মিশা সওদাগর : ধন্যবাদ।

রাইজিংবিডি : পর পর দুইবার শিল্পী সমিতির সভাপতি নির্বাচিত হলেন। এ বিষয়টা আপনার কাছে কেমন লাগছে?

মিশা সওদাগর : সব বিজয় আনন্দের। প্রতিবারই বিজয়ের আনন্দ পেয়েছি। সবার দোয়া ও ভালোবাসায় আবারও জয়ী হতে পেরেছি। চলচ্চিত্রের সব শিল্পী, কলাকুশলীসহ এফডিসির সবার কাছে আমি কৃতজ্ঞ। আপনারা লক্ষ্য করেছেন এবারের নির্বাচনের আমেজটাই ছিল ভিন্ন। উৎসাহ ও উদ্দীপনার মাধ্যমে নির্বাচন শেষ হয়েছে। কোনো রকম অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি। শান্তিপূর্ণভাবে শিল্পীরা ভোট দিয়েছেন। এবারের আনন্দটাই একটু ভিন্ন এবং বেশি।

রাইজিংবিডি : এবারের নির্বাচনে যারা জয় পাননি তাদের প্রসঙ্গে কিছু বলুন?

মিশা সওদাগর : মৌসুমী আমার বন্ধু। ওকে নিয়ে কাজ করব। নির্বাচনের আগেও বলেছি আমি জিতলে মৌসুমীকে নিয়ে কাজ করবো। আর আমি হেরে গেলে ফুলের মালা পরাবো। ও হেরেছে তাতে কি! ও আমার বন্ধু ছিল, আছে এবং থাকবে। মৌসুমীকে বিশেষ কমিটিতে রাখাবো। তাকে সঙ্গে নিয়ে এগিয়ে যাবে চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতি।

ফারুক ভাই, মাসুদ রানা ভাই, আলমগীর ভাইসহ আমাদের যারা অভিভাবক আছেন তাদের আমি পায়ে হাত দিয়ে সালাম করবো। আমরা আগেরবার উপদেষ্টা মন্ডলীর পরার্মশ ছাড়া কোনো কিছুই করিনি। এবারও করবো না। সিনিয়রদের সম্মান সবার আগে করতে হবে। যে যত বড় সুপারস্টার হোক না কেন একজন সিনিয়র শিল্পীকে তার প্রাপ্ত সম্মান দিতেই হবে।আমি যতই সভাপতি হই না কেন ফারুক, আলমগীর, সোহেল রানা, ববিতা, সুচন্দাদের কাছে সবসময়ই জুনিয়র।

রাইজিংবিডি : কোনো কাজগুলো আগে শুরু করবেন?

মিশা সওদাগর : জয়ী হওয়ার পরই আমার প্রথম কাজ হবে ইশতেহারে যা যা বলেছিলাম তার বাস্তবায়ন ঘটানো। শিল্পীদের সবাইকে নিয়ে চলচ্চিত্রের উন্নয়নে কাজ করে যাব। গতবার আমাদের যে কাজগুলো করা হয়নি সেগুলো এবার সম্পন্ন করব। নির্বাচন করার উদ্দেশ্য শিল্পীদের সেবা করা।
দুস্থ শিল্পীদের জন্য অল্প জায়গার মধ্যে হলেও আবাসনের ব্যবস্থা করা হবে। সিঙেল যে হলগুলো রয়েছে সেগুলো কীভাবে উন্নত করা যায় সে ব্যাপারে হল মালিকদের সহায়তা করা হবে।কারণ হল বাঁচলেই সিনেমা বাঁচবে, সিনেমা বাঁচলেই শিল্পীরা বাঁচবে। একটি ফান্ড করা হবে যেকোনো ব্যাংকে। কোনো শিল্পী যদি বিপদে পড়েন তাহলে ওই ফান্ডের ইন্টারেস্ট থেকে সহযোগিতা করা হবে।

রাইজিংবিডি: রাইজিংবিডিকে সময় দেয়ার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ।

মিশা সওদাগর : রাইজিংবিডিকেও ধন্যবাদ।

 

ঢাকা/রাহাত সাইফুল/ফিরোজ

ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন