ঢাকা, সোমবার, ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ০৯ ডিসেম্বর ২০১৯
Risingbd
সর্বশেষ:

‘প্রবাস জীবন লেখার অনুপ্রেরণা জুগিয়েছে’

সাইফ বরকতুল্লাহ : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৭-০২-০৮ ৯:১৯:২৭ এএম     ||     আপডেট: ২০১৭-০২-০৮ ১০:৩৮:২৯ এএম

এ সময়ের জনপ্রিয় লেখক দিলরুবা আহমেদ। স্বামী ইমতিয়াজ আহমেদ ও একমাত্র সন্তান শুমাইসা আহমেদকে নিয়ে বর্তমানে ডালাসে (টেক্সাসে আইটি ফিল্ডে কর্মরত) বসবাস করছেন। প্রবাসে থেকেও লেখালেখি করে যাচ্ছেন অবিরত। অমর একুশে গ্রন্থমেলা ২০১৭-তে অনন্যা প্রকাশনী থেকে তার বের হয়েছে নতুন উপন্যাস ‘ব্রাউন গার্লস’। নতুন বই ও লেখালেখি নিয়ে রাইজিংবিডি ডটকমের পক্ষ থেকে তার সাক্ষাৎকার নিয়েছেন সাইফ বরকতুল্লাহ

রাইজিংবিডি : লেখালেখি কেন করেন?

দিলরুবা আহমেদ : ভালো লাগে তাই। এটা অন্তর থেকে আসা একধরনের তাগাদা।

রাইজিংবিডি : লেখালেখিতে কীভাবে এলেন?

দিলরুবা আহমেদ : লিখতাম ছোটবেলা থেকেই। তবে গোপনে, নীরবে। কলেজজীবনে প্রথম লেখা বের হয় দৈনিক আজাদী পত্রিকায়। ভার্সিটিতে পড়ার সময় ‘ইতিহাসের স্বর্ণাক্ষরে’  নামে একটি কলাম কিছুদিন লিখেছিলাম ওই পত্রিকাতেই। এরপরে একটানা একটা বিরতি দিয়ে প্রবাসী হয়ে গিয়ে যে একাকিত্ব এসেছে, এই একাকিত্বই মনে হয় আমাকে আবার লিখতে অনুপ্রেরণা জুগিয়েছে। ‘টেক্সাস টক’ লিখতে শুরু করলাম। দুই বছর ধরে টানা প্রকাশিত হলো একটি জাতীয় দৈনিকে। আর লেখার জগতে আমার শেকড়ও শক্ত হতে শুরু করল।

রাইজিংবিডি : আপনার প্রকাশিত উল্লেখযোগ্য গ্রন্থ কী কী?

দিলরুবা আহমেদ : টেক্সাস টক, আমার ঘরে এসো, আঠার, ঝুমকালতার সারাটা দিন, হেঁটে চলেছি বন জোছনায়, মাছের মায়ের পুত্র শোক, এসো হাত ধরো, বলেছিল, প্রবাসী।

রাইজিংবিডি : এবার আপনার নতুন উপন্যাস ‘ব্রাউন গার্লস’ প্রকাশিত হয়েছে। এর গল্পটা যদি বলেন?

দিলরুবা আহমেদ : এ বইতে কয়েকটি প্রবাসী বাঙালি মেয়ের গল্প, ওদের সংগ্রাম, বসবাস, জীবনযাপন উঠে এসেছে। নিহা আমেরিকাতে আছে, হিয়া অস্ট্রেলিয়া থেকে ফিরে গেছে বাংলাদেশে। কেউ দেখছে স্বপ্ন বিদেশ যেতে, কেউ ভাবছে কেন এল। বৈরী সময়কে জয় করুক বাঙালি ললনারা। এসব নিয়েই রচিত উপন্যাসটি।

রাইজিংবিডি : বিদেশে বইমেলা আর ঢাকার বইমেলা- কোনো পরিবর্তন কী লক্ষ্য করেছেন?

দিলরুবা আহমেদ : বিদেশের বইমেলাগুলোতে দেখেছি, মেলায় যারা আসেন, তাদের সবার হাতেই কেনা বই দেখা যায়। বাংলাদেশে সেটা হয় না। আমি বলব, সবার অন্তত একটি হলেও বই কেনা উচিত।

রাইজিংবিডি : মেলায় পাঠক ও প্রকাশকদের প্রতি আপনার আহ্বান..

দিলরুবা আহমেদ : পাঠকদের বলব, অতি যান্ত্রিকতা হয়তো বা সময় দেয় না পড়তে বই। কিন্তু তারপরও গর্বিত ক্রেতা হোন, এবারের মেলায় অন্তত একটি বইয়ের। নতুন বইয়ের মলাটে, পাতায় যে সুবাস আছে, তা নিন প্রাণভরে। যা রন্দ্রে রন্দ্রে জাগিয়ে দেবে নেশা। টেনে নেবে অক্ষরের জীবনের পঠন-পাঠনে। আর প্রকাশকদের আহ্বান জানাই, নির্ভুল বানান, সুন্দর বাঁধাই ও গাঁথা জীবনের স্বপ্নের ফেরিওয়ালা যে আপনি, তাই পথ চলুন সাহসিকতায়, প্রত্যন্ত অঞ্চলের শেষ মানুষটি পর্যন্ত হোন আপনি সম্প্রসারিত।

রাইজিংবিডি : লেখালেখি নিয়ে আপনার ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা?

দিলরুবা আহমেদ : প্রবাস জীবন নিয়ে লিখে যাওয়া। আমার লেখাপড়ে যেন সবাই পেয়ে যায় প্রবাস জীবনের আমেজ। নাটকও লেখার ইচ্ছে আছে খুব।

 

 

রাইজিংবিডি/ঢাকা/৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৭/সাইফ/এএন

ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন