ঢাকা, সোমবার, ২২ আষাঢ় ১৪২৭, ০৬ জুলাই ২০২০
Risingbd
সর্বশেষ:

করোনা ঠেকাতে নরবলি!

অন্য দুনিয়া ডেস্ক : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০২০-০৬-০২ ১:৪০:৫৬ এএম     ||     আপডেট: ২০২০-০৬-০২ ২:৪৩:২৪ এএম

বিপদমুক্ত হতে বা মনোবাসনা পূরণে দেবতাকে তুষ্ট করতে ভক্তের বলিদান নতুন কোনো ঘটনা নয়। একসময় এই উপমহাদেশেই নরবলির প্রথা ছিল। অর্থাৎ মানুষকেই দেবতার উদ্দেশ্যে সিদ্ধি লাভের জন্য বলি দেওয়া হতো। সে যুগ আমরা পেরিয়ে এসেছি বহু আগে।

কিন্তু এই করোনাকালে সম্প্রতি ঘটে যাওয়া একটি ঘটনা সেই পুরনো যুগের কথাই যেন মনে করিয়ে দিলো।

করোনাভাইরাসের কারণে বিপর্যস্ত মানুষ। এই মহামারির প্রাদুর্ভাব কমাতে মানুষের চেষ্টার শেষ নেই। চিকিৎসাবিজ্ঞানীরা প্রতিষেধক আবিষ্কার করতে দিন-রাত কঠোর পরিশ্রম করছেন। বসে নেই তন্ত্র সাধকেরাও।

এরই মধ্যে করোনা দূর করতে নরবলি দিয়েছেন এক পুরোহিত। ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের ওড়িশার কটক জেলার বান্ধাহুদা গ্রামের একটি মন্দিরে। জানা যায়, সংসারি ওঝা (৭২) নামের ওই পুরোহিত স্বপ্নে দেখেন, নরবলি দিয়ে দেবতাকে তুষ্ট করতে পারলেই করোনা মহামারি থেকে রক্ষা পাবে বিশ্ববাসী। এই বিশ্বাস থেকেই তিনি সরোজ কুমার প্রধান (৫২) নামে এক ব্যক্তিকে বলি দেন। যদিও পরে তিনি পুলিশের কাছে আত্মসমর্পণ করেছেন।

স্থানীয়দের ধারণা, নিজেকে বাঁচাতেই সংসারি ওঝা স্বপ্নের গল্প সাজিয়েছেন। কারণ সরোজের সঙ্গে একটি আমবাগান নিয়ে দীর্ঘ দিনের বিবাদ চলছিল তার। সেই আক্রোশেই এ কাজ করতে পারেন তিনি। তবে তদন্তকারী কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, ঘটনার রাতে সরোজের সঙ্গে নরবলি নিয়েই সংসারী ওঝার ঝগড়া হয়। তর্কাতর্কির এক পর্যায়ে কুড়াল দিয়ে সরোজের মাথায় আঘাত করেন তিনি। সেই আঘাতেই সরোজের মৃত্যু হয়।

ঘটনাস্থল থেকে কুড়ালটি উদ্ধার করেছে পুলিশ। এ বিষয়ে তদন্ত চলছে।

পুলিশের ডিআইজি (সেন্ট্রাল রেঞ্জ) আশীষ কুমার সিং বলেন, ‘প্রাথমিক তদন্তে জানা গেছে, ঘটনার সময় আসামি মদ্যপ ছিলেন। পরদিন সকালে যখন তার হুঁশ ফেরে তিনি আত্মসমর্পণ করে দোষ স্বীকার করেন। ধারণা করা হচ্ছে, তিনি মানসিক ভারসাম্যহীন।’

সত্যপ্রকাশ পতি নামে স্থানীয় এক সমাজকর্মী বলেন, ‘একবিংশ শতাব্দীতে এসেও মানুষ এরকম কাজ করতে পারে এটা অবিশ্বাস্য! আমরা দোষীর বিরুদ্ধে কঠোর শাস্তি দাবি করছি।’

 

ঢাকা/মারুফ/তারা