ঢাকা, বুধবার, ২৮ কার্তিক ১৪২৬, ১৩ নভেম্বর ২০১৯
Risingbd
সর্বশেষ:

ভাষা আন্দোলনের অগ্রনায়ক

এসকে রেজা পারভেজ : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৯-০৯-০৩ ৯:১৭:১৮ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৯-০৯-০৩ ১০:১৩:০৭ পিএম

এসকে রেজা পারভেজ : ‘ফাঁসির কাষ্ঠে যাবার আগে আমি বলব, বাংলা আমার দেশ। বাংলা আমার মায়ের ভাষা। আমি বাঙালি। জয় বাংলা’-বাংলাদেশ ও বাংলা ভাষার প্রতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের এই কথাই প্রমান করে ভাষার প্রতি তার প্রেম ও ভালোবাসা কতোটা।

১৯৪৭ খ্রিষ্টাব্দে ভাষা সংগ্রামের শুরু থেকে ’৫২-র চূড়ান্ত পর্যায় পর্যন্ত তার অংশগ্রহ, তার সংগ্রাম, তার রাজপথ কাপানো উপস্থিতি, তার নেতৃত্ব আন্দোলনকে বেগবান করেছে। তবে ভাষা আন্দোলনে বঙ্গবন্ধুর অবদান প্রচার মাধ্যমে এক প্রকার অপ্রকাশিতই রয়ে গেছে। কারণ ভাষা আন্দোলনের বঙ্গবন্দু নেতৃত্ব দিয়েছেন সামনে থেকে। 

১৯৪৮ সালে ভাষা আন্দোলনকে জোরদার করার জন্য ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় বটতলায় যে সাধারণ ছাত্রসভা অনুষ্ঠিত হয়, তাতে কারামুক্ত নেতা শেখ মুজিব সভাপতিত্ব করেন। এক কথায় শেখ মুজিব, তাজ উদ্দিন আহমদ, আব্দুল মতিন, মোহাম্মদ তোয়াহা প্রমুখ নেতার আপ্রাণ চেষ্টায় ভাষা আন্দোলন সারা দেশে গণ-আন্দোলনে পরিণত হয়। ১৯৪৯ সালে ভাষা আন্দোলনের নানা কর্মসূচি থেকে বঙ্গবন্ধু আরো দুবার কারা বরণ করেছিলেন। ৫২’র ভাষা আন্দোলনের সময়ে কারাগারে থেকে পরিস্থিতি নিয়ে ছটফট করেছেন সারারাত ঘুমাতে পারেননি।

এ সম্পর্কে বঙ্গবন্ধু তার অসমাপ্ত আত্মজীবনীতে লিখেছেন, ‘২১শে ফেব্রুয়ারি আমরা উদ্বেগ, উৎকণ্ঠা নিয়ে দিন কাটালাম, রাতে সিপাহিরা ডিউটিতে এসে খবর দিল, ঢাকায় ভীষণ গোলমাল হয়েছে। কয়েকজন লোক গুলি খেয়ে মারা গেছে। রেডিওর খবর। ফরিদপুরে হরতাল হয়েছে, ছাত্র-ছাত্রীরা শোভাযাত্রা করে জেলগেটে এসেছিল। তারা বিভিন্ন স্লোগান দিচ্ছিল, ‘রাষ্ট্রভাষা বাংলা চাই’, ‘বাঙালিদের শোষণ করা চলবে না’, ‘শেখ মুজিবের মুক্তি চাই’, ‘রাজবন্দিদের মুক্তি চাই’, আরও অনেক স্লোগান। আমার খুব খারাপ লাগল। কারণ, ফরিদপুর আমার জেলা, মহিউদ্দিনের নামে কোনো স্লোগান দিচ্ছে না কেন? শুধু ‘রাজবন্দিদের মুক্তি চাই’, বললেই তো হত।’

‘রাতে যখন ঢাকার খবর পেলাম তখন ভীষণ চিন্তাযুক্ত হয়ে পড়লাম। কত লোক মারা গেছে বলা কষ্টকর। তবে অনেক লোক গুলি খেয়ে মারা গেছে শুনেছি। দুজনে পাশাপাশি বিছানায় শুয়ে আছি। ডাক্তার সাহেব আমাদের নড়াচড়া করতে নিষেধ করেছেন। কিন্তু উত্তেজনায় উঠে বসলাম। দুজন কয়েদি ছিল আমাদের পাহারা দেবার এবং কাজকর্ম করে দেবার জন্য। তাড়াতাড়ি আমাদের ধরে শুইয়ে দিল। খুব খারাপ লাগছিল, মনে হচ্ছিল চিন্তাশক্তি হারিয়ে ফেলেছি। গুলি করার তো কোন দরকার ছিল না। হরতাল করবে, সভা ও শোভাযাত্রা করবে, কেউ তো বিশৃংখলা সৃষ্টি করতে চায় না। কোনো গোলমালা সৃষ্টি করার কথা তো কেউ চিন্তা করে নাই। ১৪৪ ধারা দিলেই গোলমাল হয়, না দিলে গোলমাল হওয়ার সম্ভাবনা কম থাকে। অনেক রাতে একজন সিপাহি এসে বলল, ছাত্র মারা গেছে অনেক। বহু লোক গ্রেফতার হয়েছে। রাতে আর কোন খবর নাই। ঘুম তো এমনিই হয় না, তারপর আবার এই খবর।’

‘পরের দিন নয়-দশটার সময় বিরাট শোভাযাত্রা বের হয়েছে, বড় রাস্তার কাছেই জেল। শোভাযাত্রীদের স্লোগান পরিষ্কার শুনতে পেতাম, হাসপাতালের দোতলা থেকে দেখাও যায়, কিন্তু আমরা নিচের তলায়। হর্ন দিয়ে একজন বক্তৃতা করছে। আমাদের জানাবার জন্যই হবে। কি হয়েছে ঢাকায় আমরা কিছু কিছু বুঝতে পারলাম। জেল কর্তৃপক্ষ আমাদের কোনো খবর দিয়ে চায় না। আমরা যেন কোন খবর না পাই, আর কোনো খবর না দিতে পারি বাইরে, এই তাদের চেষ্টা। খবরের কাগজ তো একদিন পরে আসবে, ঢাকা থেকে। ২২ তারিখে সারা দিন ফরিদপুরে শোভাযাত্রা চলল। কয়েকজন ছাত্র-ছাত্রী এক জায়গায় হলেই স্লোগান দেয়। ছোট্ট ছোট্ট ছেলেমেয়েরা রাস্তায় বেড়ায় আর স্লোগান দেয়। ২২ তারিখে খবরের কাগজ এল, কিছু কিছু খবর পেলাম। মুসলিম লীগ সরকার কত বড় অপরিণামদর্শিতার কাজ করল। মাতৃভাষা আন্দোলনে পৃথিবীতে এই প্রথম বাঙালিরাই রক্ত দিল। দুনিয়ার কোথাও ভাষা আন্দোলন করার জন্য গুলি করে হত্যা করা হয় নাই।’

১৯৫২ সালে ভাষা আন্দোলন যখন তুমুল পর্যায়ে তখন শেখ মুজিবুর রহমান জেলে ছিলেন। ব্যক্তিগতভাবে রাজনৈতিক ময়দানে অনুপস্থিত থাকলেও জেলে বসেও নিয়মিত আন্দোলনকারীদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখতেন এবং প্রয়োজনীয় নির্দেশ প্রদান করতেন। (সূত্র : একুশে ফেব্রুয়ারি জাতীয় থেকে আন্তর্জাতিক- ড. মোহাম্মদ হান্নান, পৃ. ৫৩)। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আমৃত্যু বাংলা ভাষা প্রচলনের সফল, সার্থক ও যোগ্য নেতা ছিলেন। বিশ্বের দরবারে বাংলা ভাষার স্বীকৃতি আদায় এবং বাংলাভাষা ও বাংলা ভাষীদের আন্তর্জাতিক অঙ্গনে পরিচয় করিয়ে দিয়েছেন।

ভাষা আন্দোলনের ইতিহাস পর্যালোচনা করলে এ আন্দোলনে বঙ্গবন্ধুর অবদানের উঠে আসে। ১৯৪৭ সালে দেশ বিভাগের পর মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ পাকিস্তানের একচ্ছত্র অধিপতি হয়েই পূর্ব বাংলার প্রতি তৎকালীন শাসকগোষ্ঠী ভাষাসহ অন্যান্য ক্ষেত্রে বৈষম্যমূলক আচরণ শুরু করলেন। ফলে শুরু হয় ভাষা আন্দোলন। ১৯৪৭ সালে পাকিস্তান জন্মের সঙ্গে সঙ্গেই কলকাতার সিরাজউদ্দৌলা হোটেলে পূর্ব পাকিস্তানের পরবর্তী কর্তব্য নির্ধারণে সমবেত হয়েছিলেন কিছু সংখ্যক রাজনৈতিক কর্মী। সেখানে পাকিস্তানে একটি অসাম্প্রদায়িক রাজনৈতিক আন্দোলন ও সংগঠন করার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত হয়। সে প্রক্রিয়ার সঙ্গে সম্পৃক্ত ছিলেন শেখ মুজিবুর রহমান।

১৯৪৭ সালের ৬ ও ৭ সেপ্টেম্বর ঢাকায় পূর্ব পাকিস্তানের এক কর্মী সম্মেলনে শেখ মুজিবুর রহমান বললেন, ‘পূর্ব পাকিস্তান কর্মী সম্মেলন প্রস্তাব করিতেছে যে, বাংলা ভাষাকে পূর্ব পাকিস্তানের লিখার বাহন ও আইন আদালতের ভাষা করা হউক। সমগ্র পাকিস্তানের রাষ্ট্রভাষা কি হইবে তৎসম্পর্কে আলাপ-আলোচনা ও সিদ্ধান্ত গ্রহণের ভার জনসাধারণের উপর ছাড়িয়া দেওয়া হউক। এবং জনগণের সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত বলিয়া গৃহীত হউক।” (সূত্র : ‘ভাষা আন্দোলনে বঙ্গবন্ধুর ভূমিকা’ গাজীউল হক, ভাষা আন্দোলন ও বঙ্গবন্ধু, বঙ্গবন্ধু গবেষণা কেন্দ্র, ফেব্রুয়ারি ১৯৯৪)। ১৯৪৭ সালের ডিসেম্বরে রাষ্ট্রভাষা সংক্রান্ত দাবিসহ যে ২১ দফা দাবির ইশতেহার প্রনয়ণ করা হয়েছিলো তাতে শেখ মুজিবুর রহমান ছিলেন অন্যতম স্বাক্ষরদাতা। (রাষ্ট্রভাষা-২১ দফা ইস্তেহার- ঐতিহাসিক দলিল, শায়খুল বারী, পুনঃপ্রকাশ জানয়ারি ২০০২)।

১৯৪৮ সালের ১১ মার্চ ভাষা আন্দোলনের ইতিহাসে এক অনন্য অবিস্মরণীয় দিন। এই দিনে রাষ্ট্রভাষা বাংলার দাবিতে সর্বাত্মক সাধারণ ধর্মঘট পালিত হয়। এটাই ছিল ভাষা আন্দোলনের ইতিহাসে তথা পাকিস্তান প্রতিষ্ঠার পর এ দেশে প্রথম সফল হরতাল। এই হরতালে বঙ্গবন্ধু নেতৃত্ব প্রদান করেন এবং পুলিশি নির্যাতনের শিকার হয়ে গ্রেপ্তার হন।

ভাষাসৈনিক অলি আহাদ তার ‘জাতীয় রাজনীতি ১৯৪৫ থেকে ১৯৭৫’ গ্রন্থে লিখেছেন, ‘আন্দোলনে অংশগ্রহণ করার নিমিত্তে শেখ মুজিবুর রহমান গোপালগঞ্জ হতে ১০ মার্চ ঢাকায় আসেন। ১১ মার্চের হরতাল কর্মসূচিতে যুবক শেখ মুজিব এতটাই উৎসাহিত হয়েছিলেন যে, এ হরতাল ও কর্মসূচি তার জীবনের গতিধারা নতুনভাবে প্রবাহিত করে। ওই দিন বঙ্গবন্ধু গ্রেপ্তার হন।

এ সম্পর্কে বঙ্গবন্ধু তার লেখায় বলেছেন, ‘১৯৪৮ সালের ১১ মার্চ ছাত্রলীগের নেতৃত্বে সর্বদলীয় রাষ্ট্রভাষা পরিষদ গঠনের মাধ্যমে আমাদের আন্দোলন শুরু হয়। সেদিনই সকাল ৯ ঘটিকার সময় আমি আমি গ্রেপ্তার হই। আমার সহকর্মীদেরও গ্রেপ্তার করা হয়। এরপর ধাপে ধাপে আন্দোলন চলতে থাকে।’

ভাষা আন্দোলনে তৎকালীন জাতীয় নেতা শহীদ সোহরাওয়ার্দীর সমর্থন আদায়ে বঙ্গবন্ধু যে ভুমিকা পালন করেন তা ভাষা আন্দোলনের মাইলফলক হয়ে রয়েছে। আন্দোলনের প্রথম দিকে শহীদ সোহরাওয়ার্দী ভাষা-আন্দোলনের বিপক্ষে অবস্থান নিয়ে উর্দুকে রাষ্ট্রভাষা করার পক্ষে বিবৃতি দেন। সোহরাওয়ার্দী এই অবস্থানে দৃঢ় থাকলে ভাষা আন্দোলনে অনেক ক্ষতির সম্মুখীন হতে পারত। কিন্তু শেখ মুজিবুর রহমান সোহরাওয়ার্দীর এই মত পরিবর্তনে সহায়ক ভূমিকা পালন করেন এবং বাংলাকে রাষ্ট্রভাষা করার পক্ষে তার সমর্থন আদায় করেন এং শহীদ সোহরাওয়ার্দী একটি বিবৃতিও দেন। (তথ্যসূত্র : পূর্ববাংলার ভাষা আন্দোলন ও তৎকালীন রাজনীতি- ৩য় খণ্ড, বদরুদ্দীন উমর, পৃষ্ঠা-৩৯৬)।

১৯৫২ সালে দৈনিক ইত্তেফাক পত্রিকায় মওলানা ভাসানী এক বিবৃতিতে বলেন, ‘বাংলা ভাষার পক্ষে শহীদ সোহরাওয়ার্দীর মত পরিবর্তনে মুজিব সক্ষম না হলে শুধু ভাষা আন্দোলন নয়-আওয়ামী লীগের ভবিষ্যৎ অনিশ্চিত হয়ে পড়তো।’ বঙ্গবন্ধুর মতো দূরদর্শী নেতার পক্ষেই এটা সম্ভব ছিল। বাংলা ভাষা এবং ভাষা আন্দোলনের ইতিহাসে বঙ্গবন্ধুর এই অবদান চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবে।

দেশ স্বাধীনের পর ১৯৭৪ সালের ২৫ সেপ্টেম্বর বঙ্গবন্ধু জাতিসংঘে বাংলায় ভাষণ দিয়ে যে ঐতিহাসিক ভূমিকা পালন করেন, সেটি তো ইতিহাসের পাতায় চিরদিন স্বর্ণাক্ষরে লেখা থাকবে। বাংলা ভাষার অধিকার আদায়ের সংগ্রামে কিংবা ভাষার মর্যাদা রক্ষায় বঙ্গবন্ধুর অবদান শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করবে জাতি।


রাইজিংবিডি/ঢাকা/৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯/রেজা/এনএ

ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন