ঢাকা, শুক্রবার, ২২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭, ০৫ জুন ২০২০
Risingbd
সর্বশেষ:

করোনা চিকিৎসাকর্মীরা হামলার শিকার হচ্ছেন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০২০-০৪-০৩ ১০:১৮:৪১ পিএম     ||     আপডেট: ২০২০-০৪-০৪ ৭:০৮:৩৫ এএম

ভারতে হামলার শিকার হচ্ছেন করোনাভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে কর্মরত চিকিৎসাকর্মীরা। শুক্রবার বিবিসি এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে।

স্থানীয় সংবাদমাধ্যমগুলোতে প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, চিকিৎসকদের গালিগালাজ শুনতে হচ্ছে এবং বাড়ি থেকে তাড়িয়েও দেওয়া হচ্ছে। রোগীদের হামলা ও অশ্লীল বাক্যবাণের শিকার হতে হচ্ছে নার্সদের। এমনকি করোনা আক্রান্ত রোগী শনাক্ত করায় প্রতিবেশীরা চিকিৎসকদের একঘরে করে রাখছেন বলেও খবর পাওয়া গেছে।

ভারতে এ পর্যন্ত প্রায় আড়াই হাজার লোক করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। মারা গেছেন ৬২ জন।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হওয়া একটি ভিডিওতে দেখা গেছে, মধ্যপ্রদেশের ইনদোর শহরে সুরক্ষা পোশাক পরা দুই নারী চিকিৎসককে লক্ষ্য করে পাথর ছুঁড়ে মারছে এক দল লোক। এক নারী করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন কিনা পরীক্ষা করতে ওই দুই চিকিৎসক ঘনবসতিপূর্ণ একটি এলাকায় গিয়েছিলেন।

হামলায় আহত হওয়ার পরও জাকিয়া সাইদ নামে এক চিকিৎসক বলেন, ‘এই হামলা আমাকে দায়িত্ব পালন থেকে বিরত রাখতে পারবে না।’

ঘটনার বিবরণ দিয়ে তিনি বিবিসিকে বলেন, ‘সন্দেহভাজন আক্রান্তদের সন্ধানে আমরা নিয়মিত রাউন্ডে ছিলাম। আমরা কখনোই ভাবিনি এ ধরনের হামলা হতে পারে। এ ধরনের দৃশ্য আমি কখনোই দেখিনি। এটা ছিল ভীতিকর। কোনোভাবে আমরা হামলাকারীদের কাছ থেকে পালিয়ে আসি। আমি আহত তবে ভীত নই।’

পুলিশ এ ঘটনায় সাত জনকে পরে গ্রেপ্তার করে।

উত্তর প্রদেশের গাজিয়াবাদের একটি হাসপাতালে কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে দিল্লিতে তাবলিগের ইজতেমায় যোগ দেওয়া অন্তত ২১ সাথীকে।  বৃহস্পতিবার এদেরই কয়েক জন হাসপাতালের নার্সদের লক্ষ্য করে অশ্লীল কথাবার্তা বলেছে। এদের কয়েক জন নার্সদের সামনেই নগ্ন হয়ে ঘোরাফেরা করেছেন। এমনকি কেউ কেউ হাসপাতালের কর্মীদের কাছে সিগারেটও দাবি করেছেন বলে অভিযোগ করেছেন এক চিকিৎসক।

দক্ষিণের শহর হায়দারাবাদ ও পশ্চিমের শহর সুরাটেও চিকিৎসক ও নার্সদের ওপর হামলার খবর পাওয়া গেছে।

বুধবার হায়দারাবাদের গান্ধী হাসপাতালের এক চিকিৎসক হামলার শিকার হয়েছেন। তিনি করোনায় আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসা করতেন।

এই শহরেরই আরেক চিকিৎসক অভিযোগ করেছেন, তিনি ও তার পরিবারের সদস্যরা যে ভবনে বাস করেন তাদের সেখানে থাকতে দেওয়া উচিৎ নয় বলে  প্রতিবেশীরা মনে করছেন।

তিনি বলেন, ‘আমরা আমাদের পরিবারকে নিরাপদে রাখতে চাই। কিন্তু আমাদের কাজ করতে যেয়ে আমরা নিপীড়নের শিকার হচ্ছি।’


ঢাকা/শাহেদ