ঢাকা     রোববার   ০৯ আগস্ট ২০২০ ||  শ্রাবণ ২৫ ১৪২৭ ||  ১৯ জ্বিলহজ্জ ১৪৪১

পরিস্থিতি দেখতে আচমকা লাদাখে মোদি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ০৫:১২, ৩ জুলাই ২০২০  

ভারত-চীন সীমান্ত পরিস্থিতি দেখতে সেনাবাহিনী প্রধান মনোজ মুকুন্দ নরবণেকে নিয়ে আজ শুক্রবার সকালে লাদাখে যাওয়ার কথা ছিল প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিংহের। কিন্তু তা স্থগিত করা হয় বৃহস্পতিবার। রাজনাথ না গেলেও আজ সকালে লাদাখের লেহ সামরিক ঘাঁটিতে অবতরণ করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। সকাল ১০টার দিকে তার সেখানে যাওয়ার খবর দিয়েছে ভারতীয় সংবাদমাধ্যমগুলো। কিন্তু তিনি যে লাদাখ যেতে পারেন, এমন কোনও খবর আগে থেকে ছিল না।

কয়েক মাস ধরে চলা সীমান্ত উত্তেজনা মারাত্মক হয়ে ওঠে গত ১৫ জুন। গালওয়ান উপত্যকায় চীনের পিপলস লিবারেশন আর্মির সঙ্গে নিরস্ত্র সংঘাতে ২০ ভারতীয় সেনা নিহত হন। ওই ঘটনার পর লাদাখের গালওয়ান উপত্যকায় থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে। এনডিটিভ জানায়, সীমান্তের অবস্থা খতিয়ে দেখতেই আজ সকালে আচমকা লেহ ঘাঁটিতে যান মোদি। সঙ্গে ছিলেন তিন বাহিনীর প্রধান চিফ অব ডিফেন্স জেনারেল বিপিন রাওয়াত ও সেনা প্রধান নরবণে।

লেহ থেকে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখার (এলএসি) দিকে মোদি গেছেন বলে খবর দিয়েছে আনন্দবাজার পত্রিকা। সেখানে ভারতীয় বাহিনীর সীমান্ত চৌকি ঘুরে দেখছেন এবং সীমান্তে মোতায়েন সেনাদের সঙ্গে কথা বলেছেন বলে জানিয়েছে তারা। গালওয়ানে ওই রাতে আহত জওয়ানদের সঙ্গে দেখাও করেছেন মোদি। তবে তিনি আগে লেহতে গেছেন নাকি সীমান্তের কাছাকাছি অবস্থিত ল্যান্ডিং গ্রাউন নিমুতে তার বিমান আগে অবতরণ করেছে তা এখনও পরিষ্কার নয়।

রাজনাথের সফর স্থগিত হওয়ার পর প্রতিরক্ষা বিশেষজ্ঞরা ধারণা করেছিলেন, চীনের সঙ্গে আলোচনা প্রক্রিয়া এগোচ্ছে বলেই এমন সিদ্ধান্ত। কিন্তু শুক্রবার সকালে মোদির উপস্থিতির পর তারা মনে করছেন, আরও অনেক বড় বার্তা চীনকে দিতেই গেছেন তিনি।

প্রাণঘাতী ওই সংঘাতের পর এলএসি পরিস্থিতি দেখতে সেনা প্রধান নরবণে ও বিমান বাহিনীর প্রধান আরকেএস ভাদৌরিয়া আগেই লাদাখ ঘুরে এসেছিলেন। সামরিক প্রস্তুতি খতিয়ে দেখেন তারা। যে কোনও আগ্রাসনের জবাব দিতে ভারত প্রস্তুত বলেও জানানো হয় বিমান বাহিনীর পক্ষ থেকে।

 

ঢাকা/ফাহিম

রাইজিংবিডি.কম

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়