ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৭ ফাল্গুন ১৪২৬, ২০ ফেব্রুয়ারি ২০২০
Risingbd
সর্বশেষ:

করোনাভাইরাস: প্রচলিত ধারণা বনাম বাস্তবতা

লাইফস্টাইল ডেস্ক : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০২০-০২-০৪ ২:৩৭:২৩ পিএম     ||     আপডেট: ২০২০-০২-০৪ ৬:৪১:৫৫ পিএম

‘২০১৯-এনসিওভি’ নামের করোনাভাইরাসের আতঙ্কে ভুগছে বিশ্ব। কারণ এই ভাইরাসে আক্রান্ত মানুষের সংখ্যা এবং মৃত্যুর সংখ্যা ক্রমেই বাড়ছে। গত ডিসেম্বরে চীনের উহান শহর থেকে শুরু হওয়া এই রোগ এখন চীনের বাইরেও বেশ কয়েকটি দেশে ছড়িয়ে পড়েছে। 

নতুন এই ভাইরাস সম্পর্কে নানা ধারণা মানুষের মধ্যে রয়েছে। যেগুলোর বেশিরভাগই সঠিক নয়। এরকম কিছু প্রচলিত ভুল ধারণা নিয়ে এ প্রতিবেদন।

প্রচলিত ধারণা: সার্জিক্যাল মাস্ক করোনা ভাইরাস থেকে সুরক্ষা দেবে।

বাস্তবতা: সাধারণ সার্জিক্যাল মাস্কের ভেতর দিয়ে ভাইরাস সহজেই প্রবেশ করতে পারে। বিশেষ ধরনের এ৯৫ রেসপিরেটর মাস্ক আপনাকে এ ক্ষেত্রে সুরক্ষা দিতে পারে। আর হ্যাঁ, নিয়মিত হাত ধোয়া এবং হাঁচির সময় মুখ ঢেকে রাখাই হলো সেরা অভ্যাস।

প্রচলিত ধারণা: বয়স্করা এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়।

বাস্তবতা: যেকোনো বয়সের মানুষ নতুন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হতে পারে। বয়স্ক এবং শারীরিকভাবে অসুস্থ লোকজনের এই ভাইরাসে অসুস্থ হয়ে পড়ার ঝুঁকি বেশি থাকে।

প্রচলিত ধারণা: করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হলে মৃত্যু নিশ্চিত। 

বাস্তবতা: এখন পর্যন্ত এই ভাইরাসে আক্রান্তদের মধ্যে ২.০৯ শতাংশ মানুষ মারা গেছেন।

প্রচলিত ধারণা: করোনাভাইরাসের চিকিৎসায় অ্যান্টিবায়োটিক ব্যবহার করা হবে।

বাস্তবতা: বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা নিশ্চিত করেছে যে, অ্যান্টিবায়োটিক করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে কার্যকরী না। অ্যান্টিবায়োটিক কেবল ব্যাকটেরিয়ার চিকিৎসা করে। আর করোনা হচ্ছে ভাইরাস। ফলে করোনাভাইরাস প্রতিরোধ বা চিকিৎসার জন্য অ্যান্টিবায়োটিক ব্যবহার করা হবে না।

প্রচলিত ধারণা: বিশ্বে এখন সবচেয়ে ভয়ঙ্কর ভাইরাস করোনা।

বাস্তবতা: মহামারী আকারে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার খবর উদ্বেগজনক। কিন্তু এটা মনে রাখা গুরুত্বপূর্ণ যে, বর্তমান সময়ের সবচেয়ে ভীতিকর ভাইরাস কিন্তু ২০১৯-এনসিওভি নয়। বরং সেটি হচ্ছে ফ্লু। 

প্রচলিত ধারণা: বাতাসে করোনাভাইরাস রয়েছে।

বাস্তবতা: জীবাণু সাধারণত বাতাসের মাধ্যমে ছড়ায় না। ভাইরাস হাঁচি বা কাশির মাধ্যমে মানুষ থেকে মানুষে ছড়ায়। আক্রান্ত ব্যক্তির হাঁচি বা কাশির ফোঁটা পড়েছে এমন কিছুতে স্পর্শ করার পর নিজের নাকে, মুখে বা চোখে হাত দেওয়া উচিত নয়।

প্রচলিত ধারণা: পোষা প্রাণী করোনাভাইরাস ছড়াতে পারে।

বাস্তবতা: এখন পর্যন্ত এমন প্রমাণ নেই যে, বাসার পোষা প্রাণী নতুন এই করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হতে পারে। তবে পোষা প্রাণী স্পর্শ করার পর সাবান দিয়ে ভালোমতো হাত ধুয়ে ফেলা উচিত। 

প্রচলিত ধারণা: করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হলে জম্বিদের মতো (ভয়ানক প্রাণী) আচরণ করে মানুষ।

বাস্তবতা: ভাইরাসটি আক্রান্ত ব্যক্তিদের জম্বির মতো আচরণ করায় না। কোনো তথ্যপ্রমাণ ছাড়াই বলা হয়েছিল যে, ভাইরাসটি নিয়ে গবেষণার সময় তা অসাবধানতায় ছড়িয়ে পড়ে। সেই সূত্রে মালয়েশিয়ার কয়েকজন সামাজিক যোগাযোগামাধ্যম ব্যবহারকারী এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে জম্বিদের মতো হেঁটে মারা গেছেন- এমন গুজব রটায়। 

প্রচলিত ধারণা: আমদানিকৃত জিনিসপত্রের মাধ্যমে করোনাভাইরাস ছড়াতে পারে।

বাস্তবতা: পণ্যদ্রব্য থেকে করোনা ভাইরাস ছড়াতে পারে এমন কোনো প্রমাণ এখনো মেলেনি।

ভুয়া তথ্যের ব্যাপারে সচেতন থাকুন

বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়ায় যেমন: ফেইসবুক, টুইটার, ইউটিউব এবং টিকটকে ২০১৯-এনসিওভি করোনা ভাইরাস নিয়ে প্রচুর ভুয়া এবং বিভ্রান্তমূলক পোস্ট রয়েছে। তাই সঠিক উৎস থেকে তথ্য নিশ্চিত হয়ে নিজেকে সচেতন রাখুন।

তথ্যসূত্র : গাল্ফ নিউজ


ঢাকা/ফিরোজ/তারা