ঢাকা, শুক্রবার, ২৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯
Risingbd
সর্বশেষ:

‘অন্য আবাসিক এলাকায়ও যাচ্ছে কেমিক্যাল গোডাউন’

আহমদ নূর : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৯-০৩-২৩ ৭:২০:৪৯ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৯-০৩-২৪ ৯:৫৮:৪১ এএম

নিজস্ব প্রতিবেদক : র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‍্যাব) মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদ বলেছেন, ‘টাস্কফোর্সের অভিযানের পর পুরান ঢাকার কেমিক্যাল ব্যবসায়ীরা কেমিক্যাল সরিয়ে রাজধানীর বিভিন্ন আবাসিক এলাকায় নিয়ে রাখছেন বলে আমাদের কাছে গোয়েন্দা তথ্য রয়েছে। অভিযানের ভয়ে কেউ নিজ বাসায় আবার কেউ তার আত্মীয়ের বাসায় রাখছেন। আগে পুরান ঢাকা ছিল টাইম বোম্ব। এখন সারা ঢাকা যেন টাইম বোমায় পরিণত না হয়- এ বিষয়টি খেয়াল রাখতে হবে।

শনিবার দুপুরে রাজধানীর পুরান ঢাকার বকশী বাজারে কারা কনভেনশন হলে আয়োজিত এক মতবিনিময় সভায় পুরান ঢাকার কেমিক্যাল ব্যবসায়ীদের উদ্দেশ্যে তিনি একথা বলেন।

পুরান ঢাকার আবাসিক এলাকা থেকে কেমিক্যাল, প্লাস্টিক ও অন্যান্য ঝুঁকিপুর্ণ দাহ্য পদার্থের কারখানা ও গোডাউন অপসারণের লক্ষ্যে বিশেষ এই মতবিনিময় সভার আয়োজন করে র‍্যাব-১০।

তিনি বলেন, ‘পুরান ঢাকার মানুষ এতদিন টাইম বোমার ওপরে বসবাস করছেন। চুড়িহাট্টার ঘটনায় যারা মারা গেছেন তারাও টাইম বোমার পাশে বসবাস করতেন। আমরা তৃতীয় আর একটি ঘটনা চাই না। আমরা আর একটি মানুষের মৃত্যুও দেখতে চাই না।’

দ্রুততম সময়ের মধ্যে এর সমাধান করার তাগিদ দিয়ে র‍্যাবের ডিজি বলেন, ‘কেমিক্যাল গোডাউন অপসারণ করার জন্য দেড়শ’ কোটি টাকার যে প্রজেক্টের কথা বলা হচ্ছে তা সম্পন্ন হতে সময় লাগবে দুই বছর। কিন্তু আমাদের হাতে এত সময় নেই। দুই মাসের মধ্যে সরাতে হবে।’

বেনজির আহমেদ আরো বলেন, ‘দেশে একাধিক ইকোনোমিক জোন গড়ে উঠেছে। অনেক ব্যবসায়ী তাদের নিজ উদ্যোগে তা গড়ে তুলেছেন। এমন ইকোনোমিক জোন গড়তে আপনারাও পারেন।’

অভিযান বন্ধে ব্যবসায়ীদের দাবির বিষয়ে র‍্যাব ডিজি বলেন, ‘ব্যবসায়ীরা বলছেন অভিযান বন্ধ করতে। আমরা কি দেশ থেকে আইন বন্ধ করে দিব? মানুষ হত্যা হবে আর আর আমরা কি আসামিকে গ্রেপ্তার করবো না? অভিযান চলবে তবে আমাদের কোনও ব্যবসায়ী ভাই যেন অযথা হয়রানির শিকার না হন সে বিষয়টি আমরা দেখবো। অন্যায়ভাবে যেন কারও কোনও ক্ষতি না হয় সেটি নিশ্চিত করেই অভিযান চলমান থাকবে।’

মেয়াদ উত্তীর্ণ কেমিক্যালের বিষয়ে র‍্যাব ডিজি বলেন, ‘আপনারা টাকা দিয়ে পণ্য কিনে আনেন, এর সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সকল কিছু লিখিত দিতে হবে। উৎপাদনের মেয়াদ, কোম্পানি নাম, সব কিছুই। টাকা দিয়ে কেন আপনারা মেয়াদ উত্তীর্ণ জিনিস কিনবেন? আপনারা মেয়াদ উত্তীর্ণ কেমিক্যাল রাখলে সেটা মেনে নেওয়া যাবে না।



রাইজিংবিডি/ঢাকা/২৩ মার্চ ২০১৯/নূর/শাহনেওয়াজ

ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন