ঢাকা, সোমবার, ৪ কার্তিক ১৪২৬, ২১ অক্টোবর ২০১৯
Risingbd
সর্বশেষ:

ভাগ্যের লিখন যায়না খণ্ডন

আসাদ আল মাহমুদ : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৯-০৬-২০ ৮:৩৮:২৩ এএম     ||     আপডেট: ২০১৯-০৬-২০ ১১:৩৩:১৭ এএম

আসাদ আল মাহমুদ : মো. সাহেব আলী। তিন ছেলে তার- মো. মাসুদ রানা, মাহাবুবুর রহমান রাজু ও মো. মিরাজ। রাজধানীর চকবাজারের চুরিহাট্টায় ওয়াহেদ ম্যানসনের নিচ তলায় এআর টেলিকম নামের দোকান ছিল রানা ও রাজুর।

চার মাস আগে গত ২০ ফেব্রুয়ারি চুরিহাট্টায় ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে নিহত হয়েছেন রানা ও রাজু। এ দুজনের আয়ে চলতো তার পরিবার। দুই সন্তানকে হারিয়ে দিশেহারা সাহেব আলী (৬৮)। মুখে হাসি নেই। চোখের জলে বুক ভাসে তার। 

চুরিহাট্টায় মঙ্গলবার কথা হয় সাহেব আলীর সঙ্গে। তিনি রাইজিংবিডিকে বলেন, ‘হায়রে কপাল। রানা-রাজুর ইনকামে (আয়ে) সংসার চলতো। সেই ছেলেদের আল্লাহ নিয়ে গেছেন। এখন সংসার চালাতে হিমশিম খাচ্ছি। দু:খ করে কি আর হবে। ভাগ্যের লিখন যায়না খণ্ডন।’ এই বলে তিনি কান্নায় ভেঙে পড়েন।

তিনি বলেন, ‘রানা-রাজুর মা সারাদিন কান্নাকাটি করেন। এখন তিনি বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত।’


তিনি আরো বলেন, ‘বড় ছেলে রানার স্ত্রী শোকে পাথর হয়ে গেছে। রানার একটি ছেলে আছে। নাম  মো. আরেফিন (৪)। প্রতিদিন ঘুম থেকে উঠে পাপ্পা (রানা) আর ছোট বাবাকে (চাচা রাজু) খোঁজে। ওর আব্বা ও চাচা যে বেঁচে নেই সেটা সে বোঝেনা। রানার ছেলে পাপ্পা পাপ্পা বলে ডাক দেয় আর এক ঘর থেকে অন্য ঘরে যায় আর বাবাকে খোঁজে। রাতেও ওর বাবার বালিশে কাউকে ঘুমাতে দেয়না। অগ্নিকাণ্ডের এক মাস আগে মেঝ ছেলে (রাজু) বিয়ে করেছে। আজ পাঁচ মাস হলো। সারাদিন রাজুর স্ত্রী কান্না করে।’

দুই সন্তান হারানো পিতা জানান, ‘তিনি ওয়াহেদ ম্যানসনের সামনে এসে দুই ছেলের দোকানের কাছে ছবি নিয়ে দাঁড়িয়ে থাকেন। ছেলেদের নিয়ে স্মৃতিচারণ করেন তিনি। এছাড়া রানা-রাজুর বন্ধু ও এলাকাবাসীও স্মৃতিচারণ করেন। 

সাহেব আলী জানান, তার গ্রামের বাড়ি নোয়াখালি জেলার সোনাইমুড়ির নাটেশ্বর ইউনিয়নের দক্ষিণ ঘোষকামতা গ্রামে। এখন তিনি কানে কম শোনেন, শরীরে আগের মতো শক্তি নেই। চারদিকে  ঘোর অন্ধকার দেখছেন তিনি। সরকারের কাছে কখনও আর্থিক সাহায্য চাননি। ছোট ছেলে মিরাজ টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে বিএসসি পাস করেছে।

তিনি বলেন, ‘আমি চাই মিরাজকে তার যোগ্যতার ভিত্তিতে উপযুক্ত একটি চাকরির ব্যবস্থা করা হোক।’

উল্লেখ্য, গত ২০ ফেব্রুয়ারি রাতে চুড়িহাট্টায় অগ্নিকাণ্ডে ৭১ জন নিহত হন। দগ্ধ ও আহত হন অনেকে। আগুনে নি:স্ব হয়ে যায় অনেক পরিবার।





রাইজিংবিডি/ঢাকা/২০ জুন ২০১৯/আসাদ/শাহনেওয়াজ

ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন