ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৪ আশ্বিন ১৪২৬, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯
Risingbd
সর্বশেষ:

অতিরিক্ত ৪ লাখ মেট্রিকটন ধান উৎপাদনে প্রকল্প আসছে

হাসিবুল ইসলাম : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৯-০৯-১১ ৪:৪৭:৫৫ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৯-০৯-১১ ৪:৪৭:৫৫ পিএম
অতিরিক্ত ৪ লাখ মেট্রিকটন ধান উৎপাদনে প্রকল্প আসছে

নিজস্ব প্রতিবেদক: বছরে অতিরিক্ত ৪ দশমিক ২৭ লাখ মেট্রিকটন ধান ও ৫০ হাজার ৯৫০ মেট্রিকটন অন্যান্য ফসল উৎপাদনের লক্ষ্যে প্রায় সাড়ে পাঁচশত কোটি টাকার একটি প্রকল্প হাতে নিয়েছে পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়।

পরিকল্পনা মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, প্রস্তাবিত ‘সাতক্ষীরা জেলার পোল্ডারসমূহের নিষ্কাশন ব্যবস্থার উন্নয়ন’ শীর্ষক এই প্রকল্পটির মূল্যায়ন কমিটির (পিইসি) সভা আজ হয়ে গেছে। পরিকল্পনা কমিশনের কৃষি, পানি সম্পদ ও পল্লী প্রতিষ্ঠান বিভাগের সদস্য মোঃ জাকির হোসেন আকন্দের সভাপতিত্বে এই সভাটি অনুষ্ঠিত হয়। সভায় প্রকল্পটির নানা দিক মূল্যায়ন করে নতুন করে নির্দেশনা দিয়ে আবারো ঠিক করে করার জন্য সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়কে বলা হয়েছে বলে জানা গেছে।

প্রস্তাবিত এই প্রকল্পটির প্রাথমিক ব্যয় ধরা হয়েছে ৫৪৬ কোটি ৭৫ লাখ ৪৩ হাজার টাকা, যার পুরোটাই সরকারি অর্থায়নে করা হবে। এই প্রকল্পটি বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড বাস্তবায়ন করবে ২০১৯ সালের মার্চ মাস থেকে ২০২৩ সালের জুন মাসের মধ্যে।

প্রকল্পটির কার্যপত্র থেকে জানা গেছে, এই প্রকল্পের এলাকা ধরা হয়েছে সাতক্ষীরা জেলার পাঁচটি উপজেলা। উপজেলাগুলো হচ্ছে- সাতক্ষীরা সদর, কলারোয়া, দেভহাটা, আশাশুনি ও তালা উপজেলা।

প্রকল্পটির মূল উদ্দেশ্য সম্পর্কে পানি সম্পদ মন্ত্রণালয় জানায়, প্রকল্পটির মূল উদ্দেশ্য হচ্ছে সাতক্ষীরা জেলার পোল্ডার ১, ২, ৬-৮ এবং ৬-৮ (এক্সটেনশন) এর নিষ্কাশন ব্যবস্থার উন্নয়ন, পোল্ডারের অভ্যন্তরে বিদ্যমান নদী/খালগুলোকে আবারো খনন ও বাঁধ নির্মাণ, ও অন্যান্য অবকাঠামো নির্াণের মাধ্যমে পোল্ডারসমূহের কার্যকারিতা বৃদ্ধি করে প্রকল্প এলাকায় লবণাক্ত পানি প্রবেশ রোধ, বন্য নিয়ন্ত্রণ ও সেচ সুবিধা দেয়ার মাধ্যমে কৃষি উৎপাদন বৃদ্ধি করা। প্রকল্পের গ্রাস এরিয়া ১ দশমিক ৫৩ লাখ হেক্টর এবং নিট এরিয়া ৭৫ হাজার ৭৯০ হেক্টর।

মন্ত্রণালয় জানায়, প্রস্তাবিত এই প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে বছরে অতিরিক্ত ৪ দশমিক ২৭ লাখ মেট্রিকটন ধান ও ৫০ হাজার ৯৫০ মেট্রিকটন অন্যান্য ফসল উৎপাদন সম্ভব হবে।

প্রকল্পটির মূল কার্যক্রম হচ্ছে- নদী পুনঃখনন ৬০ দশমিক ৫০ কিলোমিটার (১২০ দশমিক ৫৩ ঘনমিটার), নদী ড্রেজিং ২৩ দশমিক ৫০ কিলোমিটার, খাল পুনরাকৃতিকরন ১০৯ দশমিক ৪২ কিলোমিটার, বাঁধের ঢাল প্রতিরক্ষাসহ ঘাট নির্মাণ ১৭০০ মিটার, রেগুলেটর মেরামত/পুনর্গঠন ২১ টি এবং রেগুলেটর প্রতিস্থাপন ৫ টি।


রাইজিংবিডি/ ঢাকা/১১ সেপ্টেম্বর ২০১৯/হাসিবুল/সাজেদ

ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন