ঢাকা, রবিবার, ২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ১৭ নভেম্বর ২০১৯
Risingbd
সর্বশেষ:

সাকিব ফিরবে সাকিবের মতো

অলোক আচার্য : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৯-১০-৩০ ৩:০৬:৩৬ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৯-১০-৩০ ৯:৪২:৫৯ পিএম

বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসানকে সব ধরনের ক্রিকেট থেকে এক বছর দূরে থাকার নিষেধাজ্ঞার শাস্তি দিয়েছে আইসিসি। দুই বছরের নিষেধাজ্ঞা পেলেও এর মাঝে এক বছর স্থগিত নিষেধাজ্ঞা। অর্থাৎ আইসিসির সব নিয়ম মেনে চললে আগামী বছরের ২৯ অক্টোবর থেকে আবার ক্রিকেটে ফিরতে পারবেন তিনি। গণমাধ্যমে এমন খবর প্রচার হওয়ার পর থেকেই ক্রিকেট নিয়ে শুরু হয়েছে আলোচনা-সমালোচনা। এমন সংবাদে বাংলাদেশ আজ ভারাক্রান্ত। সামনে ভারতের সঙ্গে সিরিজ কিন্তু আমাদের সাকিবকে ছেড়েই সেখানে যেতে হবে। এটি বাংলাদেশের মানুষের জন্য; সর্বোপরি বিশ্বের ক্রিকেট ভক্তদের জন্য বিরাট দুঃসংবাদ!

একজন ভালো ক্রিকেটারের খেলা কেবল সেই দেশের মানুষকে আনন্দ দেয় না, বরং বিশ্বের মানুষের মন কেড়ে নেয়। সাকিব মূলত বিশ্বমানের খেলোয়াড়। আমার বিশ্বাস অতি ভাগ্য করেই এমন একজন অলরাউন্ডারকে দলে পেয়েছি। আমরা যখন শচিন টেন্ডুলকার, জয়সুরিয়া, শহিদ আফ্রিদি বা ব্রায়ান লারার খেলা দেখার জন্য মুখিয়ে থাকতাম, তেমন বিশ্ব এখন সাকিবের খেলা দেখার জন্য অপেক্ষা করে। তার অলরাউন্ড নৈপূণ্য বাংলাদেশকে বহুবার জয়ের মুখ দেখিয়েছে।

বাংলাদেশসহ দক্ষিণ এশিয়ায় জনপ্রিয় খেলাগুলোর মধ্যে অন্যতম ক্রিকেট। এখানকার মানুষের ক্রিকেটের প্রতি মুগ্ধতা অন্যসব দেশের মানুষের চেয়ে বেশি। এসব দেশে খেলা হলে গ্যালারিতে দর্শকের উপচে পরা ভিড় প্রমাণ করে ক্রিকেটের জনপ্রিয়তা কতটুকু। ফলে যারা মাঠে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে তারাও জনপ্রিয়। প্রত্যেকেরই কমবেশি অবদান থাকে দেশের বিজয়ে। প্রত্যেক দেশেরই কিছু খেলোয়াড় থাকে যারা হয় সেদেশের ক্রিকেট ভক্তদের প্রাণ। সাকিব আমাদের তেমনই একজন।

আমার বিশ্বাস বাংলাদেশের ক্রিকেটের উত্থানের প্রতিটি অধ্যায় এদেশের মানুষের মনে দাগ কেটে আছে। প্রতিটি জয়ের ইতিহাস আমাদের মনে আছে। ফুটবলের আলো এদেশে বহুবছর ম্রিয়মান। তবে ক্রিকেটটা গত কয়েক বছর ধরে অধিক উজ্জ্বল আলো ছড়াচ্ছে। বাঘা বাঘা সব প্রতিদ্বন্দ্বীকে ধরাশায়ী করেছে আমাদের টাইগাররা। ফলে নিশ্চিত করে বলা যায়, বাংলাদেশের মানুষের আনন্দের একটি বড় উৎস ক্রিকেট। আমরা ক্রিকেট নিয়ে চিন্তা করি, ক্রিকেটারদের নিয়ে ভাবি, তাদের সুখ-দুঃখে সমব্যথী হই; বড় স্বপ্ন দেখি। ফলে বলতে আজ দ্বিধা নেই ক্রিকেট আমাদের আবেগের সঙ্গেও মিশে আছে। তার অনেকটুকু জুড়ে আছেন সাকিব। বিশেষ করে গত বিশ্বকাপে তার খেলা ক্রিকেটপ্রেমীর মন ভরিয়ে দিয়েছে।

হ্যাঁ, দলে আরো অনেকেই আছেন- মাশরাফি, তামিম, মুশফিক, মোস্তাফিজ, লিটন, সৌম্য। কিন্তু সাকিব প্রত্যেকের চেয়ে আলাদা। এটা তিনি অনেকবার প্রমাণ করেছেন। কিন্তু হঠাৎ যেন ছন্দপতন ঘটে গেল আমাদের ক্রিকেটাঙ্গণে। এই অস্থিরতা কেবল ক্রিকেট সংশ্লিষ্টদের মধ্যে সিমাবদ্ধ নেই। ছড়িয়ে গেছে দেশের ক্রিকেটপ্রেমী মানুষের ভেতর। সাকিব আল হাসানের ক্রিকেটে নিষিদ্ধ হওয়ার শাস্তি আমাদের কাছে বজ্রপাতের মতো। আমরা অত্যন্ত মর্মাহত হয়েছি। কিছুদিন আগেই ক্রিকেটারদের দাবি-দাওয়া নিয়ে আন্দোলন চলছিল। সেগুলো যখন মিটে গেছে তখন স্বস্তি পেয়েছিলাম। এরপরেই এলো এমন খবর। সাকিবের এই সংবাদ আমাদের ব্যথিত করেছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তাই এ নিয়ে নানা জনের নানা মত। দেশের মানুষ সাকিবকে কতটা ভালোবাসেন তারই প্রমাণ এগুলো। আসলে কেবল সাকিব নয়, দেশের ক্রিকেটকে ভালোবাসি বলেই এই দুশ্চিন্তা। আমরা বিশ্বাস করি সাকিব যেদিন ফিরবেন, সেদিন অলরাউন্ডারের নৈপূণ্য নিয়েই ফিরবেন।

আজকে বাংলাদেশ ক্রিকেট যে অবস্থায় দাঁড়িয়ে সেখানে সাকিবের অবদান রয়েছে। তিনি দলের গুরুত্বপূর্ণ খেলোয়াড়। যদিও দলীয় প্রচেষ্টা ছাড়া বিজয় অর্জন করা কঠিন। সেই কঠিন কাজটিই সাকিব অনেক সময় করে দেখিয়েছেন। ফলে দলে আত্মবিশ্বাস বেড়েছে। এই আত্মবিশ্বাসে আঘাত করতেই ভারতের সঙ্গে সিরিজের আগে ঘটনাটি প্রকাশ করা হতে পারে। কেননা আন্তর্জাতিক ক্রিকেট এখন আর শুধু খেলা নয়, এখানে রাজনীতিও আছে। সেই রাজনীতি খেলোয়াড়দেরও বুঝতে হবে। মাঠের বাইরের রাজনীতির জবাব দিতে হবে ব্যাটে-বলে ঝড় তুলে। এই দল একটি ভারসাম্যপূর্ণ দল। যেখানে নিখাঁদ ব্যাটসম্যান, বোলার এবং অলরাউন্ডারের সমন্বয় রয়েছে। ওয়ানডে, টি টুয়েন্টি বা টেস্ট যেকোন ফরম্যাটেই আমাদের লড়াই করার ক্ষমতা রয়েছে। আমরা জিততে পারি। সাকিব আল হাসানকে শাস্তি দিয়ে বাংলাদেশের ক্রিকেটের অগ্রযাত্রা থামানো যাবে না। তিনি অবশ্যই ফিরবেন স্বরূপে।

একইসঙ্গে একথাও বলতে চাই- বাকিরা সাকিবের ভুল থেকে শিক্ষা নিবেন। বিশেষ করে তরুণ ক্রিকেটারদের অনেক কিছু শেখার আছে এই ব্যাপারে। বিগত দুটি বিশ্বকাপে আমাদের দেশ ভালো খেলেছে। আমরা সেই খেলা দেখে আনন্দিত হয়েছি। আমরা সেই আনন্দ থেকে বঞ্চিত হতে চাই না। ইতিমধ্যে মাশরাফি বলেছেন, সাকিব তার মতোই ফিরবেন। তার নেতৃত্বেই আমরা আগামী বিশ্বকাপের ফাইনাল খেলব। এই বিশ্বাস থেকেই আমরা সবসময় আমাদের ক্রিকেটাদের পাশে থাকি, থাকতে চাই। ফিরে আসুন সাকিব, বাংলাদেশ আপনার জন্য অপেক্ষা করবে।

লেখক: শিক্ষক ও কলামিস্ট


ঢাকা/তারা

ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন