ঢাকা, সোমবার, ৭ শ্রাবণ ১৪২৬, ২২ জুলাই ২০১৯
Risingbd
সর্বশেষ:

‘রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন নিয়ে মিয়ানমার কথা রাখছে না, মিথ্যা বলছে’

হাসান মাহামুদ : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৯-০৬-১২ ২:৫৮:১৫ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৯-০৬-১৩ ২:৪৫:০৬ পিএম
‘রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন নিয়ে মিয়ানমার কথা রাখছে না, মিথ্যা বলছে’
Voice Control HD Smart LED

সচিবালয় প্রতিবেদক : রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন নিয়ে মিয়ানমার কথা রাখছে না, বরং ডাহা মিথ্যা বলছে বলে মন্তব্য করেছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন।

তিনি বলেন, রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন নিয়ে মিথ্যাচার করছে মিয়ানমার। তারা বলছে, বাংলাদেশের কারণে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে দেরি হচ্ছে। তবে বাংলাদেশ রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে এক পায়ে খাড়া।

বুধবার রোহিঙ্গা ইস্যুকে প্রাধান্য দিয়ে সমসাময়িক বিভিন্ন বিষয়ে বিদেশি কূটনীতিকদের ব্রিফ করেছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী। সকাল ১১টার দিকে রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন পদ্মায় এ উপলক্ষে অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এ সময় রোহিঙ্গা সংকটের সর্বশেষ পরিস্থিতি ব্যাখ্যা করে তাদের সহায়তা চান তিনি।

ব্রিফিং শেষে মন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেন, জাপানের ফিউচার এশিয়া সম্মেলনে মিয়ানমারের একজন মন্ত্রী বলেছেন, বাংলাদেশ থেকে যেসব রোহিঙ্গা যাচ্ছে না, এর জন্য বাংলাদেশ দায়ী। বাংলাদেশ কোনো ধরনের কো-অপারেশন করছে না। তার এ বক্তব্য সঠিক নয়। বাংলাদেশ রোহিঙ্গাদের ফেরত পাঠাতে সব সময় প্রস্তুত।

তিনি বলেন, মিয়ানমার বার বার কথা দিয়ে কথা রাখছে না। রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেওয়ার কথা ছিল মিয়ানমারের। কিন্তু তাদের অসহযোগিতার কারণে তা সম্ভব হয়নি। রোহিঙ্গাদের কারণে বাংলাদেশের ভূখণ্ডে বিভিন্ন রকম অপরাধ সংঘটিত হচ্ছে।

তিনি আরো বলেন, ৬ মাস আগে যখন মিয়ানমারের জয়েন্ট কমিশনের সঙ্গে আমাদের বৈঠক হয়, তখন তারা বলেছিল, রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেওয়ার ব্যাপারে তারা কাজ করছে। তারা বার বার প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন, রোহিঙ্গাদের নিয়ে যাবেন। কিন্তু এখন পর্যন্ত একজন রোহিঙ্গাও ফেরত যায়নি। এমনকি মিয়ানমারের নো-ম্যানসল্যান্ডে যারা আছেন তারাও ফেরত যায়নি।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আমরা প্রতিবেশী দেশের বিরুদ্ধে কিছু বলতে চাই না। কারণ, তারা আমাদের বন্ধু। কিন্তু তারা রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেওয়ার ব্যাপারে মিথ্যা বলছে। এমন ডাহা মিথ্যা আমরা কেমন করে হজম করব? আবার তাদের অনুরোধ করব, রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেওয়ার জন্য। রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেওয়া ব্যাপারে তাদের বন্ধুপ্রতীম দেশগুলোর প্রতিও অনুরোধ জানাব।

এক প্রশ্নের উত্তরে ড. মোমেন বলেন, আমরা বিদেশি কূটনীতিকদের রোহিঙ্গা পরিস্থিতি ব্যাখা করেছি। এ বিষয়ে তারা কী করবে, সেটা তাদের সিদ্ধান্ত। তবে আমরা তাদের সহায়তা চেয়েছি।

প্রসঙ্গত, রোহিঙ্গা সংকট শুরুর পর থেকেই বিভিন্ন সময় সরকারের পক্ষ থেকে বিদেশি কূটনীতিকদের কাছে পরিস্থিতি তুলে ধরা হয়েছে। তারই ধারাবাহিকতায় এই ব্রিফিংয়ের আয়োজন করা হয়।

আজকের অনুষ্ঠানে ঢাকায় নিযুক্ত যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, কানাডা, চীন, ভারত, সুইজারল্যান্ড, নরওয়ে, সুইডেন, ব্রাজিল, ফিলিস্তিন প্রভৃতি মিশনের প্রতিনিধি উপস্থিত ছিলেন। এছাড়া জাতিসংঘ, ইউরোপীয় ইউনিয়নের প্রতিনিধি অংশ নেন।



রাইজিংবিডি/ঢাকা/১২ জুন ২০১৯/হাসান/রফিক

Walton AC
ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন
       

Walton AC
Marcel Fridge