ঢাকা, শনিবার, ৫ আশ্বিন ১৪২৬, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯
Risingbd
সর্বশেষ:

নারীদের মূত্রতন্ত্রের ইনফেকশনের ৯ কারণ

এস এম গল্প ইকবাল : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৯-০৫-২৫ ৯:২৩:২৮ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৯-০৫-২৫ ৯:২৩:২৮ পিএম
নারীদের মূত্রতন্ত্রের ইনফেকশনের ৯ কারণ
প্রতীকী ছবি

এস এম গল্প ইকবাল : যদি আপনার ইউরিনারি ট্র্যাক্ট ইনফেকশন অথবা মূত্রতন্ত্রের সংক্রমণ হয়ে থাকে, তাহলে আপনার ইতোমধ্যে মূত্রত্যাগের সময় জ্বালাপোড়া ও ঘনঘন অসম্পূর্ণ মূত্রত্যাগের অভিজ্ঞতা হয়েছে। ৬০ শতাংশ নারীর জীবনকালে কোনো না কোনো সময় মূত্রতন্ত্রের ইনফেকশন হতে পারে এবং প্রতি ৪ জনের মধ্যে একজনের পুনরাবৃত্তিমূলক ইনফেকশন হতে পারে, যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব ডায়াবেটিস অ্যান্ড ডাইজেস্টিভ অ্যান্ড কিডনি ডিজিজ (এনআইডিডিকে) অনুসারে। পুরুষদেরও মূত্রতন্ত্রের ইনফেকশন হতে পারে, কিন্তু তাদের তুলনায় নারীদের বেশি হয়ে থাকে।

আপনি এর জন্য আপনার অ্যানাটমিকে দোষারোপ করতে পারেন। নারীদের মূত্রনালি পুরুষদের মূত্রনালির চেয়ে খাটো, যে কারণে ব্যাকটেরিয়া সহজে মূত্রনালি অতিক্রম করে মূত্রাশয়কে আক্রমণ করতে পারে। ইন্ডিয়ানা ইউনিভার্সিটি হেলথের অব-গাইন কেলি এম. কাস্পার বলেন, ‘আমাদের মূত্রতন্ত্র এমনভাবে গঠন করা হয়েছে যেন এটি ব্যাকটেরিয়াকে বের করে দিতে পারে, কিন্তু এ প্রতিরক্ষা ব্যর্থ হতে পারে। এরকম ঘটলে ব্যাকটেরিয়ার বিকাশ ও বংশবিস্তারে ইনফেকশন সৃষ্টি হয়।’ মূত্রতন্ত্রের ইনফেকশনের সাধারণ উপসর্গ হলো- যন্ত্রণাদায়ক মূত্রত্যাগ, ঘনঘন মূত্রত্যাগের তাড়না থাকলেও অল্প পরিমাণে মূত্র নিষ্কাশন হওয়া, বিবর্ণ মূত্র অথবা মূত্রে দুর্গন্ধ, পেলভিকে চাপ বা ব্যথা, অত্যধিক ক্লান্তি এবং তীব্র ইনফেকশনের ক্ষেত্রে জ্বর।

মূত্রতন্ত্রের ইনফেকশন খুব কমন। এ ইনফেকশনের উপসর্গ দেখা দিলে লজ্জিত না হয়ে মেডিক্যাল সেবার অনুসন্ধান করুন, যেমন- অ্যান্টিবায়োটিকের একটি কোর্স উপসর্গ থেকে খুব দ্রুত মুক্তি দিতে পারে। প্রকৃতপক্ষে, চিকিৎসা নিতে দেরি হলে মারাত্মক জটিলতা সৃষ্টি হতে পারে, যেমন- কিডনি ইনফেকশন। আপনাকে মূত্রতন্ত্রের ইনফেকশন প্রতিরোধের জন্য সচেতন থাকতে হবে এবং সচেতন থাকার জন্য এ ইনফেকশনের কারণগুলো জেনে নেয়া প্রয়োজন। এখানে নারীদের মূত্রতন্ত্রের ইনফেকশনের সবচেয়ে সাধারণ কারণগুলো আলোচনা করা হলো।

* যৌনমিলন
অনেক নারী যৌনমিলন থেকে মূত্রতন্ত্রের ইনফেকশন পেয়ে থাকে। যৌনমিলনের সময় বিশেষ অঙ্গের নড়াচড়ায় অন্ত্র বা যোনি গহ্বর থেকে ব্যাকটেরিয়া মূত্রনালিতে ট্রান্সফার হতে পারে। আপনার ঝুঁকি কমাতে যৌনমিলনের ৩০ মিনিট পূর্বে এবং যৌনমিলনের পর মূত্রত্যাগ করুন, বলেন আমেরিকান ইউরোলজিক্যাল অ্যাসোসিয়েশনের মুখপাত্র লিসা এন. হাউয়েস। শারীরিক মিলনের পর গুপ্তাঙ্গ ধৌতকরণ খারাপ কিছু নয়, কিন্তু প্রচুর পরিমাণে সোপ প্রোডাক্টের ব্যবহার এড়িয়ে চলুন। এছাড়া গবেষণায় পাওয়া গেছে যে, ডায়াফ্রাম ও স্পার্মিসাইডের ব্যবহার মূত্রতন্ত্রের ইনফেকশন বিকশিত হওয়ার ঝুঁকি বাড়াতে পারে।

* ঋতুবন্ধ
মেনোপজ বা ঋতুবন্ধের পর নারীদের মধ্যে মূত্রতন্ত্রের ইনফেকশন খুব কমন, সম্প্রতি প্রিভেনশনকে বলেন স্ট্যানফোর্ড ইউনিভার্সিটির ইউরোগাইনিকোলজিস্ট কবিতা মিশ্র। এর কারণ হলো, ইস্ট্রোজেনের উৎপাদন কমে যাওয়ায় যোনির পিএইচে পরিবর্তন। এটি যোনির ব্যাকটেরিয়া ও ইস্টের ভারাসাম্য ব্যাহত করে ইনফেকশনের সম্ভাবনা বাড়িয়ে তোলে। অ্যাট্রপি (যোনিপ্রাচীর পাতলা হয়ে যাওয়া) আছে এমন পোস্টমেনোপজাল নারীদের মূত্রনালির নিকট ছোট ক্ষত হতে পারে, যা মূত্রতন্ত্রের ইনফেকশনের ঝুঁকি বৃদ্ধি করে।

* কোষ্ঠকাঠিন্য
আপনার মলও মূত্রতন্ত্রের ইনফেকশনের কারণ হতে পারে। কোষ্ঠকাঠিন্যতায় মূত্রাশয় সম্পূর্ণরূপে খালি হওয়া কঠিন, যার মানে হলো আটকে থাকা ব্যাকটেরিয়া বিকশিত হয়ে বা বংশবিস্তার করে ইনফেকশন সৃষ্টির জন্য যথেষ্ট সময় পায়, বলেন ডা. হাউয়েস। অন্যদিকে, ডায়রিয়াও মূত্রতন্ত্রের ইনফেকশনের ঝুঁকি বৃদ্ধি করতে পারে, কারণ তরল মলের ব্যাকটেরিয়া সহজে যোনি ও মূত্রনালিতে প্রবেশ করতে পারে। আপনার জন্য পরামর্শ হলো, ব্যাকটেরিয়ার স্থানান্তর প্রতিরোধের জন্য বাথরুম সেরে সামনে থেকে পেছনে পরিষ্কার করুন।

* অনিয়ন্ত্রিত ডায়াবেটিস
ডা. হাউয়েস বলেন, ‘রক্ত শর্করার মাত্রা উচ্চ হলে অতিরিক্ত চিনি মূত্রের মাধ্যমে অপসারিত হয়। এটি ব্যাকটেরিয়ার অতিবিকাশের জন্য অনুকূল পরিবেশ তৈরি করে, যা ইনফেকশনের দিকে ধাবিত করে।’ এছাড়া ডায়াবেটিস রোগীদের ইমিউন সিস্টেম দুর্বল থাকে, যেকারণে ইনফেকশন সৃষ্টিকারী ব্যাকটেরিয়াকে হঠানো কঠিন হয়ে পড়ে। আপনি হয়তো শুনেছেন যে অতিরিক্ত চিনি খেলে মূত্রতন্ত্রের ইনফেকশন হয়, কিন্তু ডা. হাউয়েস নিশ্চিত করেছেন যে ডায়াবেটিস না থাকলে অতিরিক্ত চিনি খাওয়াতে এ ইনফেকশন হয় না।

* মূত্র ধরে রাখা
যদি আপনার মূত্রত্যাগের বেগ আসে, তাহলে বাথরুমে যান। ৬ ঘণ্টা বা তার বেশি সময় মূত্র ধরে রাখলে মূত্রতন্ত্রের ইনফেকশনের সম্ভাবনা বেড়ে যায়, কারণ মূত্রাশয়ে প্রবেশ করা ব্যাকটেরিয়া অতিবিকাশের জন্য প্রচুর সময় পেয়ে থাকে, বলেন ডা. হাউয়েস। দীর্ঘ যাত্রার সময় যাত্রা বিরতিতে মূত্রত্যাগ করতে ভুলবেন না।

* পানিশূন্যতা
প্রচুর পরিমাণে পানি পান কেবলমাত্র তৃষ্ণাই নিবারণ করে না, এটি মূত্রতন্ত্রের ইনফেকশনও প্রতিরোধ করে। নিয়মিত মূত্রত্যাগ করলে আপনার শরীর মূত্রতন্ত্রে ইনফেকশন সৃষ্টি করতে পারে এমন ব্যাকটেরিয়া বের করে দিতে সক্ষম হয়। তাই ইনফেকশন এড়াতে প্রতিদিন ৬ থেকে ৮ গ্লাস পানি পান করুন, এনআইডিডিকে’র তথ্যানুসারে।

* নারীদের প্রোডাক্ট
নোংরা প্যাড বা টেম্পনে ব্যাকটেরিয়া খুব সহজে বিকশিত হতে পারে, বলেন ক্যালিফোর্নিয়ার বিভারলি হিলসের প্রাইমারি কেয়ার ফিজিশিয়ান এহসান আলি। মাসিক চক্রের সময় মূত্রতন্ত্রের ইনফেকশন প্রতিরোধে অন্তত প্রতি ৪ ঘণ্টা পরপর টেম্পন পরিবর্তন করুন এবং সারারাত টেম্পন পরে থাকবেন না। প্যাডও প্রতি ৪ থেকে ৬ ঘণ্টায় পরিবর্তন করা উচিত।

* অস্বস্তিকর অন্তর্বাস
আপনার অন্তর্বাসও হতে পারে মূত্রতন্ত্রের ইনফেকশনের বিস্ময়কর কারণ, বলেন নিউ ইয়র্কের প্র্যাকটিসিং গাইনিকোলজিস্ট অ্যালিসা ডিওয়েক। তিনি কটনের বায়ু চলাচল করতে পারে এমন অন্তর্বাস পরতে পরামর্শ দিচ্ছেন, কারণ এটি অতিরিক্ত আর্দ্রতা প্রতিরোধে সাহায্য করে। আপনি জানেন যে অতিরিক্ত আর্দ্রতা ব্যাকটেরিয়ার জন্য অনুকূল পরিবেশ সৃষ্টি করে। তিনি পাতলা, ঘর্ষণশীল জি স্ট্রিংয়ের থং পরতে নিষেধ করছেন, কারণ এটি ব্যাকটেরিয়া ট্রান্সফার করতে পারে।

* কিডনি পাথর
কিডনি পাথর হলো পুঞ্জিভূত শক্ত খনিজ যা কিডনির ভেতর গঠিত হয়। যেহেতু কিডনি পাথর মূত্রতন্ত্রে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করতে পারে ও মূত্র ধরে রাখতে পারে, তাই ব্যাকটেরিয়া বিকাশের জন্য প্রচুর সময় পায় বলে মূত্রতন্ত্রের ইনফেকশন হতে পারে, বলেন ডা. আলি। এ ইনফেকশনের চিকিৎসা নিতে বিলম্ব করলে কিডনি ড্যামেজ হতে পারে, তাই মূত্রতন্ত্রের ইনফেকশনের উপসর্গ লক্ষ্য করলে যত দ্রুত সম্ভব ডাক্তারের শরণাপন্ন হোন।

তথ্যসূত্র : প্রিভেনশন

পড়ুন : * মূত্রনালির সংক্রমণের ৭ উপসর্গ
* পুরুষের ইউরিনারি ইনকনটিনেন্স সমস্যা



রাইজিংবিডি/ঢাকা/২৫ মে ২০১৯/ফিরোজ

ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন