ঢাকা, শুক্রবার, ৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ২২ নভেম্বর ২০১৯
Risingbd
সর্বশেষ:

লিউকেমিয়ার নীরব উপসর্গ

এস এম গল্প ইকবাল : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৯-০৬-১০ ৯:১০:২২ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৯-০৬-১০ ৯:১৬:৫৮ পিএম
প্রতীকী ছবি

এস এম গল্প ইকবাল : লিউকেমিয়া বা রক্তকোষের ক্যানসার সারা শরীরে ছোট ও বিস্ময়কর উপসর্গ প্রকাশ করতে পারে। লিউকেমিয়ার ১৬ লক্ষণ নিয়ে দুই পর্বের প্রতিবেদনের আজ থাকছে প্রথম পর্ব। এসবের কোনো লক্ষণ দেখা দিলে তা ডাক্তার দ্বারা মূল্যায়ন করানো উচিত।

* লিউকেমিয়া কি?
লিউকেমিয়া হলো রক্ত ও অস্থিমজ্জার একটি ক্যানসার। এ ক্যানসারে রক্তকোষ অস্বাভাবিকভাবে উৎপাদিত হয়। যেহেতু অস্বাভাবিক রক্তকোষ সুস্থ রক্তকোষের স্থান দখলে নেয়, তাই রক্তের কার্যক্রমে ত্রুটি দেখা দেয় এবং শারীরিক উপসর্গ প্রকাশ পেতে থাকে। অ্যাকিউট লিউকেমিয়ার ক্ষেত্রে এ রোগ দ্রুত অগ্রসর হয়, অন্যদিকে ক্রনিক লিউকেমিয়ার ক্ষেত্রে এ রোগ ধীরে অগ্রসর হয়, যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব হেলথ অনুসারে। অ্যাকিউট লিউকেমিয়া ও ক্রনিক লিউকেমিয়া উভয়ের উপসর্গ একই হতে পারে। সন্দেহজনক কোনো উপসর্গ লক্ষ্য করে থাকলে দেরি না করে ডাক্তারের শরণাপন্ন হওয়া উচিত।

* ক্লান্তি ও দুর্বলতা
জনস হপকিন্স সিডনি কিমেল কম্প্রিহেনসিভ ক্যানসার সেন্টারের লিউকেমিয়া প্রোগ্রামের পরিচালক মার্ক লেভিস বলেন, ‘লিউকেমিয়ার সবচেয়ে কমন উপসর্গ হলো ক্লান্তি ও দুর্বলতা।’ প্রায়ক্ষেত্রে অ্যানিমিয়ার (লোহিত রক্তকণিকার ঘাটতি) কারণে এসব লক্ষণ দেখা দেয়। অ্যাকিউট লিউকেমিয়া ও ক্রনিক লিউকেমিয়া উভয় ক্ষেত্রে সামান্য ক্লান্তি থেকে অত্যধিক শারীরিক দুর্বলতা অনুভব হতে পারে এবং সময় অতিবাহিত হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে এ উপসর্গ আরো খারাপ হতে থাকে। ডা. লেভিস বলেন, ‘সময় পরিক্রমায় এ উপসর্গের তীব্রতা বেড়ে যায়।’

* শ্বাসকষ্ট
যেহেতু লিউকেমিয়ার রোগীরা দিনকে দিন আরো দুর্বল ও ক্লান্ত হতে থাকে, তাই তারা শ্বাসকষ্টও অনুভব করতে পারে- যার উৎপত্তি অ্যানিমিয়া অথবা বিরলক্ষেত্রে বুকের ভেতরের স্ফীতি থেকে। ডা. লেভিস বলেন, ‘লিউকেমিয়ার রোগীরা মুখ হা করে দ্রুত শ্বাস নিয়ে থাকে। তাদের পক্ষে ঘরের ভেতর হাঁটা কঠিন হতে পারে।’

* অস্বাভাবিক কালশিটে
ফিজিক্যাল ট্রমা বা শারীরিক আঘাত ছাড়াই অপ্রত্যাশিত কালশিটের প্রকাশ হলো লিউকেমিয়ার অন্যতম উপসর্গ, বলেন ক্যানসার ট্রিটমেন্ট সেন্টারস অব আমেরিকার ডিপার্টমেন্ট অব মেডিক্যাল অনকোলজির সভাপতি এবং ইস্টার্ন রিজিওনাল মেডিক্যাল সেন্টারের মেডিক্যাল অনকোলজির প্রধান পামেলা ক্রিলি। ডা. লেভিস বলেন, ‘প্লাটিলেটের নিম্ন সংখ্যা অথবা রক্ত জমাটবদ্ধতার সমস্যার কারণে এ অস্বাভাবিক কালশিটে হয়ে থাকে। কোনো ইনজুরি ছাড়াই শরীরের যেকোনো স্থানে এ কালশিটে হতে পারে, কিন্তু সাধারণত এক্সট্রেমিটিতে হয়ে থাকে, যেমন- হাত ও পা।’

* অস্বাভাবিক রক্তক্ষরণ
অনাকাঙ্ক্ষিত কালশিটের মতো নাক, মাড়ি, অন্ত্র, ফুসফুস অথবা মস্তিষ্ক থেকে অস্বাভাবিক রক্তক্ষরণও প্লাটিলেট ঘাটতি অথবা রক্তজমাট সমস্যার অন্যতম লক্ষণ হতে পারে, যা অ্যাকিউট লিউকেমিয়া নির্দেশ করতে পারে, বলেন ডা. ক্রিলি।

* ত্বকের নিচে লাল বিন্দু
পেটিশিয়া বা ত্বকের নিচে রক্তক্ষরণ জনিত লাল বিন্দুকে ডা. ক্রিলি এভাবে বর্ণনা করেছেন, ‘এটি দেখতে তেমন যেন একজন চিত্রশিল্পী কলম দিয়ে ছোট ছোট লাল বিন্দু এঁকেছেন।’ এসব বিন্দু আপনার অলক্ষ্যে থেকে যেতে পারে, কারণ এগুলো খুব ছোট, ব্যথাবিহীন ও বেশিরভাগ ক্ষেত্রে নিম্নস্থ এক্সট্রেমিটিতে হয়ে থাকে- এটি প্লাটিলেট ঘাটতি নির্দেশ করে এবং পেটিশিয়া হলো লিউকেমিয়ার একটি উপসর্গ। ডা. লেভিস বলেন, ‘সাধারণত গোড়ালির চারপাশে পেটিশিয়া পাওয়া পায়, কারণ মাধ্যাকর্ষণ শক্তির প্রভাবে পায়ের নিম্নভাগে শারীরিক তরল জমা হয়।’

* স্ফীত ও বর্ধিত মাড়ি
মাড়ির আকার বৃদ্ধিকে জিনজিভাল হাইপারপ্লাসিয়া বলে। সাধারণত অল্পসংখ্যক অ্যাকিউট লিউকেমিয়ার রোগীদের মধ্যে এটি পাওয়া গেলেও তা কিন্তু অন্যতম সর্বাধিক স্পষ্ট লিউকেমিয়া উপসর্গ। ডা. ক্রিলি বলেন, ‘যদি আপনার কাছে লিউকেমিয়ার রোগী আসে, তাহলে সবসময় চেক করে দেখবেন যে তাদের মাড়ি বড় হয়ে গেছে কিনা।’ এ মাড়িকে ফোলার মতো দেখাতে পারে এবং আপনি প্রায়সময় মুখে অদ্ভুত টাইট অনুভব করতে পারেন, বলেন ডা. লেভিস।

* পেটভরা অনুভূতি বা পেটফাঁপা
ক্রনিক লিউকেমিয়া এবং কখনো কখনো অ্যাকিউট লিউকেমিয়ার একটি লক্ষণ হলো বর্ধিত প্লীহা, যা ক্ষুধা হ্রাসের কারণ হতে পারে। ডা. ক্রিলি বলেন, ‘যদি আপনার লিউকেমিয়া হয়ে থাকে, তাহলে খেতে বসলে তাড়াতাড়ি পেট ভরে গেছে অনুভব হতে পারে। রোগীরা দ্রুত পেট ভরে যাওয়ার কারণে অল্প খাবার খায়, এর কারণ হলো তাদের পাকস্থলি বর্ধিত প্লীহার চাপে থাকে।’

* পেটের উপরিভাগে বামে অস্বস্তি বা ব্যথা
লিউকেমিয়ার দ্বারা সৃষ্ট বর্ধিত প্লীহা কখনো কখনো পেটে অস্বস্তি অথবা এমনকি তীব্র ব্যথা সৃষ্টি করতে পারে। ডা. লেভিস বলেন, ‘কিছু সপ্তাহ আগে আমার কাছে ক্রনিক লিউকেমিয়ার একজন রোগী এসেছিল- প্লীহার আকার বেড়ে যাওয়ায় তার প্লীহার অংশবিশেষ ড্যামেজ হয়েছিল। এটি তার পেটে তীব্র ব্যথার উদ্রেক করে।’ যেহেতু প্লীহার অবস্থান পেটের উপরিভাগে বামদিকে, তাই সচরাচর সেখানেই অস্বস্তি হয়।

(আগামী পর্বে সমাপ্য)

তথ্যসূত্র : রিডার্স ডাইজেস্ট

আরো পড়ুন :
* রক্তদূষণের ১১ লক্ষণ
* রক্ত জমাটবদ্ধতার ৭ নীরব লক্ষণ
* রক্তস্বল্পতার ১০ উপসর্গ
* ব্লাড প্রেসার মাপায় ভুল হওয়ার ৯ কারণ
* যে ১৩ কারণে রক্তদান করা যায় না





রাইজিংবিডি/ঢাকা/১০ জুন ২০১৯/ফিরোজ

ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন