ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৯ কার্তিক ১৪২৬, ১৪ নভেম্বর ২০১৯
Risingbd
সর্বশেষ:

চুলকানি আরো যেসব মারাত্মক রোগের লক্ষণ

এস এম গল্প ইকবাল : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৯-১০-১৮ ৮:১২:১৬ এএম     ||     আপডেট: ২০১৯-১০-১৮ ৮:১২:১৬ এএম

আপনি জানেন, ত্বকের শুষ্কতায় চুলকানি অনুভূত হয়। এ কারণে যাদের ত্বকে চুলকানির প্রবণতা রয়েছে, তাদের শীতের দিনগুলোতে চুলকানি বেড়ে যায়। এছাড়া চুলকানি কিছু চর্মরোগের সাধারণ বৈশিষ্ট্য। চুলকানি মারাত্মক রোগের লক্ষণ না হলেও হেলাফেলা করবেন না। কারণ এমন কিছু রোগ রয়েছে যেগুলোর অন্যতম উপসর্গ চুলকানি। এ নিয়ে দুই পর্বের প্রতিবেদনের আজ শেষ পর্ব।

থাইরয়েডের রোগ : থাইরয়েড থেকেও ত্বকে চুলকানি অনুভব হতে পারে, বলেন মাউন্ট সিনাই হাসপাতালের ডার্মাটোলজি বিভাগের ক্লিনিক্যাল প্রফেসর ডা. ক্যামেরন রোখসার। তিনি আরো বলেন, ‘থাইরয়েড রোগে কেন চুলকানি সৃষ্টি হয় তার নিশ্চিত কারণ শনাক্ত করা যায়নি, কিন্তু ধারণা করা হয় যে, ঘামগ্রন্থির পরিবর্তনে ত্বক শুষ্ক হয়ে চুলকানির উদ্রেক হতে পারে।’ যাদের হাইপোথাইরয়েড অথবা কম ক্রিয়াশীল থাইরয়েড রয়েছে তাদের ত্বকে শুষ্কতা ও চুলকানি বেশি লক্ষ্য করা গেছে। এর কারণ হচ্ছে থাইরয়েড হরমোনের অনুপস্থিতিতে ত্বকের কোষের কার্যক্রম কমে যায়।

সেলিয়াক রোগ: হাঁটু, কনুই, নিতম্ব ও চুলের রেখায় অত্যধিক চুলকানিযুক্ত ফুসকুড়ি বা ফোসকা সেলিয়াক রোগের উপসর্গ হতে পারে। ডা. জন জোন বলেন, যখন সেলিয়াক রোগী গ্লুটেন সমৃদ্ধ খাবার খান তখন তাদের ইমিউন সিস্টেম ইমিউনোগ্লোবিউলিন নামক অ্যান্টিবডি উৎপাদন করে প্রতিক্রিয়া দেখায়। এসব অ্যান্টিবডি ত্বকে গিয়ে ত্বকের কোষের সঙ্গে সংযুক্ত হয়ে চুলকানি বাড়িয়ে তোলে। ড্যাপসোন এ ধরনের চুলকানি থেকে সাময়িক মুক্তি দিতে পারে, কিন্তু অন্ত্রের ড্যামেজ মারাত্মক হলে সেলিয়াক রোগীদের গ্লুটেনমুক্ত ডায়েটে অভ্যস্ত হতে হবে। না হলে পুষ্টিহীনতা, রক্তস্বল্পতা, হাড় ক্ষয়, আলসারেটিভ কোলাইটিস এমনকি ক্যানসারও হতে পারে।

লিম্ফোমা: আপনার ত্বকে চুলকানি অনুভূত হলে ব্লাড ডিসঅর্ডার আছে কিনা খতিয়ে দেখতে হবে। ইয়েল স্কুল অব মেডিসিন ডিপার্টমেন্ট অব ডার্মাটোলজির সহকারী অধ্যাপক ডা. ক্যাথলিন কুক সুজি বলেন, বিশ্বের যেকোনো দেশে পাঁচ থেকে ৩০ শতাংশ লিম্ফোমা রোগীর চুলকানি অনুভূত হতে পারে।’ র‍্যাশযুক্ত অথবা র‍্যাশমুক্ত চুলকানি হজকিন রোগের প্রাথমিক উপসর্গ। এ রোগ ধরা পড়লে কেমোথেরাপি অথবা রেডিয়েশন থেরাপি শুরু করলে চুলকানি থেকে মুক্তি মিলবে।

অ্যালার্জি: অ্যালার্জি হচ্ছে বিশ্বের অন্যতম সর্বাধিক পরিচিত ক্রনিক স্বাস্থ্য সমস্যা। প্রকৃতপক্ষে, অনেক স্কিন অ্যালার্জিকে কন্টাক্ট ডার্মাটাইটিস আমব্রেলা টার্মের অধীনে শ্রেণীভুক্ত করা হয়েছে। কন্টাক্ট ডার্মাটাইটিস হচ্ছে ত্বকের চুলকানিযুক্ত র‍্যাশ, যা অ্যালার্জি সৃষ্টিকারী কোনোকিছুর সংস্পর্শে এলে আবির্ভূত হয়। পয়জন আইভি, নিকেল অথবা বেবি ওয়াইপ ও মেকাপের মতো পার্সোনাল কেয়ার আইটেমের কিছু উপাদান অ্যালার্জেন হিসেবে কন্টাক্ট ডার্মাটাইটিস সৃষ্টি করতে পারে। কিসের সংস্পর্শে এলে অ্যালার্জিজনিত র‍্যাশ উঠবে তা জানতে প্যাচ টেস্ট করতে পারেন। ডা. সুজি বলেন, ‘যখন আমরা একজন লোকের ব্যবহৃত সামগ্রী থেকে অ্যালার্জেন খুঁজি, তখন কাজটি অনেকটা গুপ্তধন খোঁজার মতোই মনে হয়।’

স্তন ক্যানসার: নিপলে প্যাজেট’স হচ্ছে স্তন ক্যানসারের একটি বিরল ধরন, যেখানে নিপলের ভেতর বা চারপাশে ক্যানসার কোষ রয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল ক্যানসার ইনস্টিটিউটের প্রতিবেদনে আছে, আমেরিকায় স্তন ক্যানসারের যত ঘটনা রয়েছে তার ৫ শতাংশ হচ্ছে প্যাজেট’স। এ রোগের প্রথম লক্ষণ হচ্ছে নিপল ও অ্যারিওলার চারপাশে আঁশযুক্ত লাল দাগ, যেখানে চুলকানি অনুভূত হয়। লোকজন এটিকে একজিমা ভেবে ভুল করেন, কিন্তু স্তন ক্যানসারের সঙ্গে সম্পর্কযুক্ত লাল স্পট সাধারণত একপাশে হয়ে থাকে।

পড়ুন : * চুলকানি যেসব মারাত্মক রোগের লক্ষণ (প্রথম পর্ব)


ঢাকা/ফিরোজ/তারা

ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন