ঢাকা, সোমবার, ২২ আষাঢ় ১৪২৭, ০৬ জুলাই ২০২০
Risingbd
সর্বশেষ:

শোক প্রকাশ করে প্রোফাইল ছবি পরিবর্তন করল ফেসবুক

বিজ্ঞান-প্রযুক্তি ডেস্ক : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০২০-০৬-০১ ৯:২১:১৩ পিএম     ||     আপডেট: ২০২০-০৬-০১ ৯:২১:১৩ পিএম

গত ২৫ মে যুক্তরাষ্ট্রের মিনেসোটা রাজ্যে পুলিশের বর্ণবৈষম্য মানসিকতার বলি হোন জর্জ ফ্লয়েড নামের এক কৃষ্ণাঙ্গ ব্যক্তি। একজন পুলিশ অফিসার হাঁটু দিয়ে তার গলা চেপে ধরার পর ওই ব্যক্তির মৃত্যু দেশটিতে সংখ্যালঘু বর্ণ সম্প্রদায়ের বিরুদ্ধে পুলিশের নৃশংসতাকে আবার সামনে এনেছে। এ ঘটনায় বর্ণবৈষম্যের বিরুদ্ধে প্রতিবাদের আগুন ছড়িয়ে পড়েছে যুক্তরাষ্ট্রজুড়ে।

আর এবার এই প্রতিবাদে যুক্ত হলো সামাজিক যোগাযোগ্য মাধ্যম ফেসবুক। ‘ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটার’ আন্দোলনের প্রতি সমর্থন জানিয়ে সোমবার ফেসবুক তাদের প্রোফাইল এবং কাভার ফটো কালো রঙে আপডেট করেছে। এছাড়া কোম্পানিটির মালিকানাধীন হোয়াটসঅ্যাপ এবং ইনস্টাগ্রামের প্রোফাইল ও কাভার ফটোও কালো রঙে আপডেট করা হয়েছে।

ফেসবুকের নীল, হোয়াটসঅ্যাপের সবুজ এবং ইনস্টাগ্রামের লাল রঙের পরিবর্তে শোক প্রকাশ করে তা কালো রঙে প্রকাশ করা হয়েছে।

ফেসবুকে প্রধান নির্বাহী মার্ক জাকারবার্গ সোশ্যাল সাইটটির অফিসিয়াল পেজে সোমবার এক ব্যাপারে এক পোস্টে বলেন, ‘গত সপ্তাহের বেদনাদায়ক ঘটনা আমাদের স্মরণ করিয়ে দেয় যে, প্রতিটি ব্যক্তিকে মর্যাদা ও শান্তিতে বাঁচার স্বাধীনতা দিতে আমাদের দেশকে কতদূর যেতে হবে। আমেরিকার কৃষ্ণাঙ্গরা আজ যে সহিংসতার সঙ্গে বাস করছে তা বর্ণবাদ এবং অবিচারের দীর্ঘ ইতিহাসের অংশ। এটা পরিবর্তন করার দায়িত্ব আমাদের সকলেরই। আমরা কৃষ্ণাঙ্গ সম্প্রদায়ের পাশে আছি। আমি জানি, এই লড়াইয়ে সহায়তা করার জন্য আমাদের প্ল্যাটফর্মের মাধ্যমে কৃষ্ণাঙ্গ সম্প্রদায়ের সমঅধিকার এবং নিরাপত্তা সমর্থন করার জন্য ফেসবুকের আরো কিছু করা দরকার।’

৪৬ বছর বয়সী জর্জ ফ্লয়েডকে গত সপ্তাহে জালিয়াতির অভিযোগে আটক করা হয়। ভাইরাল হওয়া একটি ভিডিওতে দেখা যায়, আটকের পর কৃষ্ণাঙ্গ ওই যুবকের গলায় হাঁটু দিয়ে চেপে ধরে নির্যাতন করছে এক পুলিশ কর্মকর্তা। কৃষ্ণাঙ্গ ওই যুবক বাঁচার আকুতি জানিয়ে বারবার বলছিল- আমার নিঃশ্বাস বন্ধ হয়ে যাচ্ছে, আমি নিঃশ্বাস নিতে পারছি না। এক সময় নিস্তেজ হয়ে পড়ে সে। তাকে হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

মার্ক জাকারবার্গ তার পোস্টে এ প্রসঙ্গে বলেন, ‘এটা দেখাটা বেশ কঠিন ছিল, আমি কৃতজ্ঞ যে ডার্নেলা ফ্রেজিয়ার ফেসবুকে এই নির্মম ঘটনার ভিডিওটি পোস্ট করেছিলেন। কারণ আমাদের সবার এটি দেখার দরকার ছিল। জর্জ ফ্লয়েডের ঘটনাটি আমাদের জানা দরকার। ফেসবুকে পক্ষপাতিত্বের ঘটনা যেন বৃদ্ধি না পায় তা নিশ্চিতে আমরা আরো বেশি কাজ করবো।’


ঢাকা/ফিরোজ