ঢাকা, সোমবার, ৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ১৮ নভেম্বর ২০১৯
Risingbd
সর্বশেষ:

প্রাথমিক শিক্ষকরা সন্তানদের কিন্ডারগার্টেনে পড়াতে পারবেন না

হাসান মাহামুদ : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৯-০১-১৫ ৮:০৩:৩৫ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৯-০১-১৬ ১০:১৫:২৬ এএম

সচিবালয় প্রতিবেদক : এখন থেকে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা তাদের সন্তানকে কিন্ডারগার্টেন স্কুলে পড়াতে পারবেন না।

মঙ্গলবার সচিবালয়ে ভিডিও কনফারেন্সে ঢাকা জেলার প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোর শিক্ষকদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা সচিব মো. আকরাম-আল-হোসেন এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, শিক্ষকদের পেনশন পেতে সমস্যা হয়, তা দূর করা হবে।

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা সচিব ভিডিও কনফারেন্সেই স্থানীয় ই্উএনওদের বলেন, যেসব শিক্ষক আগামী দুই মাসের মধ্যে অবসরে যাবেন, তাদের ডাটাবেজ তৈরি করুন। কোনো শিক্ষক পেনশন পেতে হয়রানির শিকার হলে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

তিনি বলেন, শিক্ষকেদের পদোন্নতি শিগগিরই হবে। এ ক্ষেত্রে যে জটিলতা আছে তা দুই একদিনের ভেতর কেটে যাবে।

শিক্ষকদের সকাল ৯টার মধ্যেই স্কুলে যাওয়ার নির্দেশ দেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা সচিব। পাশাপাশি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের ইংরেজি শিক্ষার ওপর জোর দেন তিনি।

অনুষ্ঠানে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেন বলেন, প্রাথমিক স্কুল থেকে বাচ্চারা যেন আর কিন্ডারগার্টেনে বা কেজি স্কুলে না যায়, সে ব্যবস্থা করা হবে। প্রাইমারি স্কুলের মান বাড়ানো গেলে কেজি স্কুলের বাচ্চারা প্রাইমারি স্কুলে পড়তে আসবে।

এ সময় প্রাথমিক স্কুলগুলোর প্রধান শিক্ষকের সঙ্গে সহকারী শিক্ষকদের বেতন বৈষম্য দূর করা হবে এবং এ সংক্রান্ত নীতিমালা তৈরি করা হবে বলেও জানান প্রতিমন্ত্রী।

শিক্ষকদের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘আপনারা সঠিকভাবে দায়িত্ব পালন করবেন, জাতি এবং দেশ গঠনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবেন। হারাম খাবেন না। আপনারা সরকারকে সহায়তা করুন, সরকার আপনাদের সহায়তা করবে।’

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘দুর্নীতির ক্ষেত্রে জিরো টলারেন্স। আপনাদের অভাব থাকলে সরকার তা পূরণ করবে। শিক্ষকরাই পারেন বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন বাস্তবায়ন করতে। শিক্ষকরাই পারেন ভালো জাতি উপহার দিতে। আবার শিক্ষকরাই পারে জাতিকে ধ্বংস করে দিতে।’

শিক্ষকদের অনেক সমস্যা আছে, উল্লেখ করে জাকির হোসেন বলেন, ‘এসব সমস্যা উদঘাটন করে সমাধান করা হবে। প্রাথমিক শিক্ষার মান ভালো না বলে শিক্ষার্থীরা কেজি স্কুলে যাচ্ছে। সেখান থেকে শিক্ষার্থীদের কীভাবে ফিরিয়ে আনা যায় তা আপনাদের ভালো ভূমিকার ওপর নির্ভর করবে। শিক্ষার্থীদের নিজের সন্তানের মতো করে দেখুন। এটি আপনাদের কাছে আমার সবিনয় অনুরোধ।’



রাইজিংবিডি/ঢাকা/১৫ জানুয়ারি ২০১৯/হাসান/রফিক

ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন