ঢাকা, শনিবার, ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ০৭ ডিসেম্বর ২০১৯
Risingbd
সর্বশেষ:

ব্রড-ওকসের দাপটের দিনে একাই লড়লেন স্মিথ

শামীম হোসেন পাটোয়ারি : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৯-০৮-০১ ১০:৫২:৩২ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৯-০৮-০২ ১০:৪৩:০২ এএম

ক্রীড়া ডেস্ক : বিশ্বচ্যাম্পিয়ন হওয়ার দাপট অ্যাশেজের প্রথম দিনেও দেখাল ইংল্যান্ড। মর্যাদার এ সিরিজে বল হাতে প্রথম দিনেই ঝড় তুলেছেন স্টুয়ার্ড ব্রড ও ক্রিস ওকসরা। তাদের তান্ডবের দিনে অস্ট্রেলিয়ার হয়ে ব্যাট হাতে একাই বিপযর্য় সামাল দিয়েছেন স্টিভেন স্মিথ।

এজবাস্টনে টস জিতে আজ আগে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেন অস্ট্রেলিয়া অধিনায়ক টিম পেইন। দলীয় ১৭ রানেই উদ্বোধনী দুই ব্যাটসম্যানকে হারিয়ে বিপদে পড়ে অস্ট্রেলিয়া। এরপর ১২২ রানেই ৮ উইকেট হারিয়ে ধুঁকতে থাকে তারা। ইংলিশ পেসারদের তোপের মুখে ওয়ানম্যান আর্মির মতো প্রথম দিনে দলকে টেনেছেন স্টিভেন স্মিথ। তার দাপুটে সেঞ্চুরিতে সবকটি উইকেট হারিয়ে ২৮৪ রান করতে সক্ষম হয়েছে অস্ট্রেলিয়া। জবাবে ১০ রানে কোনো উইকেট না হারিয়ে প্রথম দিনের খেলা শেষ করে ইংল্যান্ড।

ক্রিকেট ইতিহাসের দুই চিরশত্রু ইংল্যান্ড-অস্ট্রেলিয়া। বিশ্বকাপের চেয়ে অ্যাশেজের উত্তাপও তাদের কাছে কম কিছু নয়। এবার সেই ঐতিহাসিক লড়াইয়ে যুক্ত হলো আরও দু’টি ইতিহাস। অ্যাশেজ সিরিজ দিয়ে প্রথমবারের মতো শুরু হয়েছে টেস্ট চ্যাম্পিয়নশীপ। প্রথমবার সাদা জার্সিতে দেখা গেল খেলোয়াড়দের নাম ও নাম্বার। আজ ম্যাচের শুরুতেই ইংলিশ ওপেনার ওয়ার্নার আউট হওয়ার পর স্যান্ডপেপার দেখিয়ে বিতর্ক উসকে দিয়েছে ইংলিশ সমর্থকরা।

স্পট ফিক্সিংয়ের নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে ডেভিড ওয়ার্নারের সাদা পোশাকে ফেরাটা সুখকর হয়নি। বার্মিংহামের ২৫ হাজার দর্শক শুরুতে দুই অজি ওপনারকে স্বাগত জানায় হলুদ সিরিজ কাগজ দেখিয়ে। এই অপমান হয়তো সইতে পারেননি তারা। ব্রডের বলে রুটকে ক্যাচ তুলে দিয়ে সাজঘরে ফেরেন ব্যানক্রফট (৮)। এলবিডব্লিউ’র ফাঁদে পড়ে ব্রডকে দ্বিতীয় উইকেট উপহার দেন ওয়ার্নার (২)। ওকসের বলে তাদের দেখানো পথে হাঁটেন ওয়ানডাউনে নামা উসমান খাজা (১৩)।

দলের এমন দুঃসময়ে কঠিন পরীক্ষায় পাস করেছেন নিষেধাজ্ঞা থেকে ফেরা আরেক অসি ব্যাটসম্যান স্টিভেন স্মিথ। অন্যদের আসা যাওয়ার মাঝে মাটি কামড়ে থেকে প্রথমে ফিফটি তুলে নেন স্মিথ। শুরুতে ট্রাভিস হেডের সঙ্গে কিছুটা জুটি গড়ার চেষ্টা করলেও থিতু হতে পারেননি হেডও। দু’জনের জুটি যখন ৬৪ রানের তখন ব্যক্তিগত ৩৫ রানে ফেরেন হেড। এই জুটি অসিদের প্রথম ধাক্কা কিছুটা সামাল দিয়েছিল।

প্রাক্তন অধিনায়ক হেডের পর ওকস তৃতীয় শিকার হয়েছেন ম্যাথু ওয়েড (১)। অধিনায়ক টিম পেইন ৫ রান করে ফেরেন। এছাড়া জেমস প্যাটিনসন (০) ও প্যাট কামিন্স (৫) করে সাজঘরে ফেরেন।

দলীয়  ১২২ রানে ৮ উইকেট হারানোর পর অস্ট্রেলিয়াকে টেনে তোলার বাকি কাজটা করেন স্মিথ ও পিটার সিডল। নবম উইকেটে তাদের ৮৮ রানের জুটি অস্ট্রেলিয়ার দলীয় সংগ্রহ দুইশো পেরোতে সাহায্য করে। শেষদিকে মঈন আলীর বলে বাটলারের হাতে ধরা পড়ার আগে ৮৫ বলে সিডলের ৪৪ রানের ইনিংসটা বেশ কার্যকর ভূমিকা রেখেছে। শেষপর্যন্ত ২১৯ বলে ১৬ চার ও ২ ছক্কায় ১৪৪ রান করে ব্রডের শিকার হয়েছেন স্টিভেন স্মিথ।

বল হাতে ইংল্যান্ডের হয়ে ব্রড নিয়েছেন ৪ উইকেট। তার সঙ্গে ওকস পেয়েছে ৩ উইকেটে। এছাড়া মঈন আলী ও বেস স্টোকস একটি করে উইকটে নিয়েছেন।


রাইজিংবিডি/ঢাকা/১ আগস্ট ২০১৯/শামীম

ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন