ঢাকা, বুধবার, ২৫ চৈত্র ১৪২৬, ০৮ এপ্রিল ২০২০
Risingbd
সর্বশেষ:

একজন ভিসেন্তে নাভারো...যাকে আটকাতে পারেনি করোনাও

ক্রীড়া ডেস্ক : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০২০-০৩-১৩ ৭:১৯:৫২ পিএম     ||     আপডেট: ২০২০-০৩-১৩ ৭:১৯:৫২ পিএম

পৃথিবীতে মহামারী আকারে ছড়িয়ে পড়েছে করোনাভাইরাস। ক্রীড়াঙ্গনেও পড়েছে এর প্রভাব। বিভিন্ন ফুটবল লিগ ইতিমধ্যে বন্ধ হয়ে গিয়েছে।

যা কিছু খেলা অনুষ্ঠিত হচ্ছে, খেলোয়াড়দের সুরক্ষার কথা ভেবে তাও হচ্ছে দর্শকশূন্য স্টেডিয়ামে। চলতি চ্যাম্পিয়নস লিগের শেষ ষোলোর ম্যাচও ফাঁকা স্টেডিয়ামে খেলতে হয়েছে দলগুলোকে। ভ্যালেন্সিয়া-আতালান্তার দ্বিতীয় লেগের ম্যাচেও দর্শকের উপস্থিতিতে নিষেধাজ্ঞা দেয় আয়োজক কর্তৃপক্ষ। স্টেডিয়ামের দরজাও রাখা হয়েছে বন্ধ। কিন্তু কোনোভাবেই স্টেডিয়ামে খেলা দেখা থেকে ভিসেন্তে নাভারোকে আটকাতে পারেনি কেউ।

ভ্যালেন্সিয়ার মাঠে অনুষ্ঠিত ম্যাচটিতে ৪-৩ গোলে আতালান্তার কাছে হেরে যায় স্বাগতিকরা। সমর্থক হিসেবে ভ্যালেন্সিয়ার পরাজয় মাঠে বসে দেখেন নাভারো। তাতে কি তার দুঃখবোধ হয়েছে! না, সেটি সম্ভব নয়। কারণ রক্ত-মাংসের নাভারো নেই এক বছর হতে চললো। তবুও এসময়ের মাঝে ভ্যালেন্সিয়ার মাঠে কোনো খেলাই মিস করেননি নাভারো। প্রতি ম্যাচে ১৫ নাম্বার সারির ১৬৪ নাম্বার সিটে বসে খেলা দেখেন এ প্রয়াত স্প্যানিয়ার্ড। কারণ ভ্যালেন্সিয়ার এ একনিষ্ঠ সমর্থকের মূর্তি ওই সিটে নির্মাণ করেছে ক্লাব কর্তৃপক্ষ।

১৯৬০ সাল থেকে ভ্যালেন্সিয়ার পাড়ভক্ত ভিসেন্তে নাভারো। তখন থেকে কখনো ভ্যালেন্সিয়ার হোম ম্যাচ দেখা বাদ দেয়নি নাভারো। ৫৪ বছর বয়সে চোখের রেটিনা নষ্ট হয়ে যাওয়ায় দৃষ্টিশক্তি হারান এ স্প্যানিয়ার্ড। তাতেও দমার পাত্র নন নাভারো। ভ্যালেন্সিয়ার ম্যাচ আর মাঠে আসবেন না তিনি এটি যেনো ভাবাই যেতো না। দৃষ্টিহীন নাভারো ছেলেকে নিয়ে মাঠে আসতেন ভ্যালেন্সিয়ার ম্যাচে। তার ছেলে তাকে খেলা বর্ণনা করে বলতেন। এছাড়াও মাঠের উত্তেজনায় নিজেও উচ্ছ্বসিত হতেন।

এভাবে চলে আরো ৪০ বছর। ২০১৯ সালে মারা যান ভ্যালেন্সিয়ার এ একনিষ্ঠ সমর্থক। তবে তাকে ভুলেনি ক্লাবও। শেষবার যে সিটে বসে খেলা দেখেছেন সেখানে গড়া হয় তার মূর্তি।

সে থেকে রোদ-বৃষ্টি, ঝড় কিংবা করোনার মতো মহামারীও ভ্যালেন্সিয়ার খেলা দেখা থেকে আটকে রাখতে পারেনি ভিসেন্তে নাভারোকে।


ঢাকা/কামরুল