ঢাকা, শনিবার, ২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ১৬ নভেম্বর ২০১৯
Risingbd
সর্বশেষ:

তবুও ট্রেন চলছে...

রুমন চক্রবর্তী : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৯-০৭-০৬ ৯:৩৩:২০ এএম     ||     আপডেট: ২০১৯-০৭-১৫ ৪:০০:৫৬ পিএম

কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি: কিশোরগঞ্জের নরসুন্দা নদীর উপর নির্মিত রেল ব্রিজটি ঝুঁকিপূর্ণ। এই ব্রিজটির কারণে কিশোরগঞ্জ-ময়মনসিংহ রেলপথে চলাচলও মহা ঝুঁকির। তবু এই পথে ট্রেন চলছে।

প্রতিদিন চট্টগ্রাম থেকে কিশোরগঞ্জ হয়ে ময়মনসিংহ পর্যন্ত বিজয় এক্সপ্রেস, চট্টগ্রাম মেইল, ভৈরব মেইল ও লোকাল ট্রেনের হাজার হাজার যাত্রী যাতায়াত করছে এ রেলপথে।

জানা যায়, নরসুন্দা নদীর উপরের প্রায় ১৫০ মিটার দীর্ঘ এই রেল ব্রিজটি ব্রিটিশ আমলে নির্মিত। সংস্কারের অভাবে বর্তমানে ব্রিজটি খুবই জরাজীর্ণ। ব্রিজের উপর রেল লাইনের দুই পাশে নেই কোন রেলিং। রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে অনেক পুরনো কাঠের স্লিপার ভেঙ্গেচুরে গেছে। নিরাপত্তা ব্যবস্থা না থাকায় রেল লাইনের কাঠের স্লিপারের সঙ্গে লাগানো হুক বোল্ট ও ডগ স্পাইক নষ্ট হয়েছে এবং চুরিও হয়েছে। এসব কারণে যাত্রীরা এই ব্রিজের উপর দিয়ে ট্রেন চলাচল ঝুঁকিপূর্ণই মনে করছেন এবং আতঙ্ক নিয়েই যাতায়াত করছেন এ রেলপথে।

সরেজমিনে গেলে দেখা যায়, কাঠের স্লিপারগুলোও অনেক পুরনো ও একটি স্লিপার থেকে অন্যটির দূরত্বও অনেক বেশি। জোড়াতালি দিয়ে ঝুঁকিপূর্ণভাবে ব্যবহৃত হচ্ছে ব্রিজটি। ট্রেন এই ব্রিজের ওপর আসলেই আতঙ্কে থাকেন যাত্রীরা। ব্রিজটি ছোট হলেও যাত্রীরা খুব ভয়ের মধ্যে ওই সময়টা পার করেন।

 

স্থানীয়দের অভিযোগ, বার-বার রেল কর্তৃপক্ষকে জানালেও এর কোন প্রতিকার মিলছে না। এখানে রেল লাইন তদারকির কাজে নিয়োজিত কর্মীদের উপস্থিতিও অনিয়মিত। মাঝে মধ্যে রেললাইনের টুকিটাকি সংস্কার হলেও রেলব্রিজটিতে তাদের যেন কোন দায়দায়িত্ব নেই।

কথা হয় কিশোরগঞ্জ থেকে বিজয় এক্সপ্রেসে ময়মনসিংহের যাত্রী মো. খালেক মাহমুদ এর সাথে। তিনি বলেন, ‘প্রায় সময়ই আমাকে ব্যবসায়িক কাজে কিশোরগঞ্জ আসতে হয়। ট্রেনটি ময়মনসিংহের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হওয়ার পরপরই এই ব্রিজটির উপর দিয়ে খুব ধীরগতিতে চলতে থাকে এবং হেলে-দুলে যায়। দীর্ঘদিন দেখে আসছি এ ব্রিজটি ছোট হলেও অরক্ষিত। ব্রিজের পিলারগুলোতে ছোট-বড় বট গাছ ও আগাছার জন্ম হয়েছে। যার ফলে বিভিন্ন জায়গায় ফাটলও দেখা দিয়েছে। দ্রুত ব্রিজটির পূর্ণাঙ্গ সংস্কার না করা হলে যে কোন সময় বড় বিপদ ঘটতে পারে।’

ময়মনসিংহের গৌরিপুরের ইফতেখার আলম অনার্সে কিশোরগঞ্জ গুরুদয়াল কলেজে ভর্তি হয়েছেন। পড়াশোনার চাপে প্রতিদিনই সকালে লোকাল ট্রেনে তাকে কিশোরগঞ্জ আসতে হয়। তিনি বলেন, ‘ময়মনসিংহ থেকে লোকাল ট্রেনটি গৌরিপুর হয়ে কিশোরগঞ্জ আসে। কিন্তু লোকাল ট্রেন হওয়ায় প্রচুর যাত্রী থাকে। ট্রেনটি কিশোরগঞ্জ ষ্টেশনে ঢোকার পূর্বে যখন ব্রিজটি অতিক্রম করে তখন আল্লাহ আল্লাহ করা ছাড়া আর উপায় থাকেনা। কারণ ব্রিজটির দু’পাশে কোন রেলিং নেই। বিভিন্ন জায়গায় কাঠের স্লিপার এবং হুক বোল্টও নেই।’

কিশোরগঞ্জ রেলওয়ে স্টেশন মাস্টার মো. রফিকুল ইসলাম বললেন, ‘রেল লাইন ও ব্রিজ মেরামত সংক্রান্ত কাজ রেলওয়ে প্রকৌশল বিভাগের। এ ব্যাপারে যা যা করণীয় সব কিছুই তারা করবেন। আমরা শুধু ট্রেন ও যাত্রীসেবার কাজে নিয়োজিত আছি।’

এ ব্যাপারে কথা বলতে রেলওয়ে প্রকৌশল বিভাগের কাউকে পাওয়া যায়নি।

 

রাইজিংবিডি/ কিশোরগঞ্জ/৬ জুলাই ২০১৯/রুমন চক্রবর্তী/টিপু

ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন