ঢাকা, মঙ্গলবার, ৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ১৯ নভেম্বর ২০১৯
Risingbd
সর্বশেষ:

বৃদ্ধা রাবেয়ার মা হওয়া-ই যেনো অপরাধ !!

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৯-১১-০৭ ১০:০১:১৬ এএম     ||     আপডেট: ২০১৯-১১-১৫ ৩:৫০:২৬ পিএম

তিনি রাবেয়া খাতুন। বয়স পঞ্চশ পেরিয়েছে। স্বামীকে হারিয়েছেন ১৯ বছর আগে। যখন তিনি স্বামীহারা হন তখনও তার যৌবন ছিল।

কিন্তু তিন ছেলের কথা ভেবেই তিনি আর বিয়ে করেন নি। ভেবেছিলেন এই সন্তানরাই হবে তার ভবিষ্যত। সন্তানরাই তাকে সুখে রাখবে। ফুটপাতে দোকান করে, অন্যের বাড়ি কাজ করে সন্তানদের বড় করেছেন রাবেয়া। কিন্তু সন্তানরা বড় হয়ে মায়ের মুখে দু’মুটো অন্ন তুলে দিবে এমনটা আর হলো না। উল্টো মাদকাসক্ত সন্তানের মার খাওয়া-ই যেনো তার নিত্য রুটিন।

রাবেয়ার বড় ছেলে পেশায় গাড়ি চালক। কিন্তু মায়ের কোন খোঁজ রাখেন না, মেঝো ছেলে বখাটে। পুলিশ এই বখাটে ছেলেকে গ্রেপ্তার করে জেলে পাঠালে তাকে জামিন করাতে নিঃস্ব হয়েছেন রাবেয়া। আর ছোট ছেলে মাদকাসক্ত। মাদকের টাকার যোগান না পেলে মায়ের উপর অত্যাচার চালায় এই ছেলে। ঘটনাটি চট্টগ্রামের কোতোয়ালী থানার আদালত ভবন এলাকার।

রোগে-শোকে আক্রান্ত এই মা এখন আদালত ভবনে আইনজীবীদের ফরমায়েশ খেটে নিজের পেট চালান কিন্তু এরপরও বখাটে মাদকাসক্ত সন্তানের অত্যাচার সহ‌্য করেই তাকে বাঁচতে হয়।

বৃদ্ধা রাবেয়াকে গাছ দিয়ে মেরে মোবাইল ও ব্যাগ নিয়ে পালিয়ে যাওয়ার সময় চট্টগ্রামের কোতোয়ালী থানা পুলিশ এক যুবককে গ্রেপ্তার করে। পরে পুলিশ জানতে পারে এই যুবক ওই বৃদ্ধারই সন্তান। পরে রাবেয়া পুলিশকে তার করুণ কাহিনী খুলে বলেন-

পুরো ঘটনাটি কোতোয়ালী থানার অফিসার ইনচার্জ বর্ণনা করেছেন এভাবে-

ঘটনাটি বুধবার দুপুরের। পঞ্চাশোর্ধ্ব বৃদ্ধাকে ছেলেটা গাছ দিয়ে মারছিল। কয়েকজন লোক ছাড়িয়ে নিলে ছেলেটা ইট দিয়ে মারা শুরু করে। এক পর্যায়ে বৃদ্ধার ব্যাগ ও মোবাইল নিয়ে পালাতে চেষ্টা করে ছেলেটা। এসময় কোতোয়ালী পুলিশের একটি টহল টিম তাকে আটক করে। উদ্ধার করে সেই বৃদ্ধাকে।

কোতোয়ালী থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ মহসিন রাইজিংবিডিকে জানান, আমাদের ধারণা ছিল, ছিনতাইকারী পথচারীর ব্যাগ ছিনতাইয়ের জন্য এসব করছিল। পরে জানলাম, এই বৃদ্ধা এই ছেলেরই মা! মাদক সেবনের টাকা না পেয়ে ছেলেই প্রকাশ্য রাস্তায় অমানুষের মতোই মারছিল নিজ জন্মদাত্রী মাকে!!

বার্ধক্যজনিত নানা রোগের সাথে রাবেয়ার সখ্যতা অনেক আগে থেকেই। রোগগুলো তার উপর প্রভাব বিস্তার করা শুরু করলেও মুখ বুজে সহ্য করা ছাড়া রাবেয়ার করণীয় কিছুই নেই। কারণ, দিনের খাবার জুটাতেই যেখানে তাকে হিমশিম খেতে হয় সেখানে ওষুধটা তার জন্য বিলাসিতা। 

বৃদ্ধা রাবেয়া জানান, মাত্র মাস ছয়েক আগেই তার থাকার ঘর ছিল। আয়ের দোকান ছিল। কিন্তু বখাটে ছেলেকে জেলে থাকা জামিন করাতে গিয়ে নিজে নিঃস্ব হয়েছেন তিনি।

শুধুমাত্র বেঁচে থাকার তাগিদেই এই বয়সেও আদালত ভবনে আইনজীবীদের ফরমায়েশ খেটে কোনরকমে পেট চালান। প্রতিদিনের মতো গতকাল বুধবারও তিনি এই কাজ করছিলেন। হঠাৎই তার ছোট ছেলে মনিরুল এসে তার কাছে দুই হাজার টাকা চায়। তিনি দিতে অস্বীকৃতি জানালে সাথে সাথেই তাকে গাছের বাটাম দিয়ে মারতে শুরু করে মনিরুল।

এইসময় আশেপাশের লোকজন ছুটে এসে মনিরুলের কাছ থেকে গাছ কেড়ে নিলে সে তার মাকে ইট দিয়ে মারার চেষ্টা করে। এক পর্যায়ে সে তার মায়ের ফোন ও ভ্যানিটি ব্যাগ ছিনিয়ে নিয়ে পালানোর চেষ্টা করে। এসময় কোতোয়ালী থানা পুলিশের একটি টহল টিম মনিরুলকে আটক করে। পরে মনিরুলের বিরুদ্ধে দ্রুত বিচার আইনে মামলা দায়ের করে আদালতে সোপর্দ করে পুলিশ।

বৃদ্ধা মা রাবেয়া রাইজিংবিডিকে জানান, তার স্বামী মারা যান ২০০০ সালে। সন্তানদের সুখের কথা ভেবেই তিনি আর বিয়ে করেননি। কিন্তু সেই সন্তনেরাই তার জীবন এখন দুর্বিষহ করে তুলেছে। এক ছেলে ড্রাইভার পেশায় থেকে টাকা আয় করলেও মাকে খাওয়ানোর জন্য তার টাকা নেই। অপর দুই ছেলে বখাটে আর মাদকাসক্ত। মাকে অত্যাচার করে মায়ের কাছ থেকে টাকা হাতিয়ে নেয়াই যেনো তাদের কাজ। অসহায় বৃদ্ধা রাবেয়ার মা হওয়া-ই যেনো অপরাধ !!


চট্টগ্রাম/রেজাউল/বুলাকী

ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন