ঢাকা, মঙ্গলবার, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭, ২৬ মে ২০২০
Risingbd
সর্বশেষ:

করুণ মৃত্যু, করোনার জন্য কিশোরের প্রার্থনা

কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০২০-০৪-০৮ ৩:৪২:৫৫ এএম     ||     আপডেট: ২০২০-০৪-০৮ ৮:৪৯:৫৩ এএম

করোনাকাল কিশোর মাহিনের মনে দুর্ভাবনার ছাপ ফেলেছিল। এই দুর্যোগ থেকে মুক্তি পেতে আল্লাহর দরবারে সে জানিয়েছিল ফরিয়াদ। এ জন্য কাঁচা হাতে একটি চিঠিও লিখেছিল। চিঠির প্রাপক সৃষ্টিকর্তা স্বয়ং। সেই চিঠি আল্লাহর দরবারে পৌঁছেছে কিনা জানার উপায় নেই। তবে মাহিনের বিদেহী আত্মা সেখানে পৌঁছে গেছে।

গত ৫ এপ্রিল বাড়ির ছাদে ঘুড়ি ওড়ানোর সময় অসাবধানতাবশত পাঁচতলা থেকে নিচে পড়ে যায় আরাফাত ইসলাম মাহিন (১৩)। ঘটনাস্থলেই তার মৃত‌্যু হয়। মাহিন কিশোরগঞ্জ সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়ের ৭ম শ্রেণির ছাত্র ছিল। সাদা রঙের সেই ঘুড়িতে সে লিখেছিল: ‘হে আল্লাহ করোনা থেকে আমাদের সবাইকে রক্ষা করো।’ শুধু তাই নয়, ঘুড়িতে বিপদ থেকে উদ্ধারের দোয়াও লিখেছিল সে।

মাহিন নরসিংদী জেলার বিন্নাবাইদ ইউনিয়নের জহিরুল ইসলামের সন্তান। মাহিনের মৃত্যুর কয়েক ঘণ্টা পর জহিরুল ইসলাম ফেইসবুকে একটি স্ট্যাটাস দেন। পুত্রহারা শোক বুকে নিয়ে তিনি সেখানে মাহিনের হাস্যোজ্জ্বল একটি ছবি পোস্ট করে লিখেছেন: ‘গত রাতের ছবি। আজকে রাতে সে থাকবে কবরে। ছেলের লাশ বহন করার মতো সৌভাগ্যবান বাবা আমি!’ বাবার এই বেদনাভার ফেইসবুক ব্যবহারকারীদের হৃদয় ছুঁয়ে যায়। অনেকেই কমেন্টস-এ মাহিনের আত্মার শান্তি কামনা করেছেন। অনেকে দীর্ঘশ্বাস লুকিয়ে বলেছেন, এর কোনো সান্ত্বনা হয় না।

জহিরুল ইসলাম টাঙ্গাইলে প্রাইভেট কোম্পানিতে চাকরি করেন। স্ত্রী ও দুই ছেলেমেয়ে নিয়ে সংসার। করোনাভাইরাসের কারণে অফিস বন্ধ হয়ে যাওয়ায় পরিবারের কাছে ছুটে এসেছিলেন। তিনি কিশোরগঞ্জ শহরে বাড়ি তৈরি করে পরিবারকে সেখানেই রাখতেন। দুঃখ ভারাক্রান্ত মনে তিনি রাইজিংবিডিকে বলেন, কীভাবে কী হয়ে গেল কিছুই বুঝতে পারছি না। এতো অসময়ে ও আমাদের ছেড়ে চলে যাবে আমাদের কল্পনাতেও ছিল না।

মাহিনের স্মৃতিচারণ করে তিনি বলেন, ওর মাঝে বরাবরই দেশপ্রেম ছিল। করোনাভাইরাস সম্পর্কে জানার পর থেকেই মানুষের জন‌্য সে ভাবতো। প্রতিদিন মানুষের মৃত‌্যুর খবর ‍শুনে ওর মধ্যে এক ধরনের আবেগ কাজ করতো। যে কারণে ‍ঘুড়িতে চিঠি লিখে সে আল্লাহর কাছে পৌঁছে দিতে চেয়েছিল। সে জানতো, আল্লাহ আকাশে থাকে।


রুমন চক্রবর্তী/তারা