ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৫ আষাঢ় ১৪২৭, ০৯ জুলাই ২০২০
Risingbd
সর্বশেষ:

ছাত্রলীগ নেতার সহযোগিতায় মাকে ফিরে পেলো শিশুটি

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সংবাদদাতা : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০২০-০৪-১৯ ৮:৪৮:০৯ এএম     ||     আপডেট: ২০২০-০৪-১৯ ৮:৪৮:০৯ এএম

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় আখাউড়ার এক ছাত্রলীগ নেতার সহযোগিতায় হারিয়ে যাওয়া মাকে ফিরে পেয়েছে নিখোঁজে থাকা এক শিশু।

শনিবার (১৮ এপ্রিল) রাত সাড়ে ৮টার দিকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর থানা পুলিশ শিশুটিকে তার মায়ের কাছে হস্তান্তর করে।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সদর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. শাহজাহান।

নিখোঁজ শিশুটির নাম হাজেরা আক্তার (৮)। তার মা সুলতানা একজন ভাসমান (ছিন্নমূল) নারী।  

হাজেরা তার মা সুলতানা বেগমের সঙ্গে আখাউড়া রেলওয়ে স্টেশনে থাকে। ভিক্ষাবৃতি ও কাগজ কুঁড়িয়ে দিন যাপন করে তারা।

এদিকে, হারিয়ে যাওয়া হাজেরার মাকে হৃদয় ঘোষ খুঁজে বের করে পুলিশের সহযোগিতায় তার মায়ের হাতে তুলে দেন। হৃদয় ঘোষ পৌর এলাকার ৬ নম্বর ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক।

সদর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. শাহজাহান জানান, গত শুক্রবার আখাউড়া রেলওয়ে জংশন স্টেশন থেকে নিখোঁজ হয় হাজেরা। সেখান থেকে অন্য এক নারী ভিক্ষুক হাজেরাকে সঙ্গে নিয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় চলে আসেন। শুক্রবার রাতে ব্রাহ্মণবাড়িয়া রেলওয়ে স্টেশনে থাকে হাজেরা। সকালে জেলার বিভিন্ন মহল্লার বাড়ি বাড়ি গিয়ে ভিক্ষা করে কাপড় ও ৩০ টাকাও পায় সে। দুপুরে একটি বাড়ি থেকে চেয়ে খাবার খায় সে।

শনিবার বেলা পৌনে ৪টার দিকে জেলা শহরের ঘোড়াপট্টির সেতু (ফকিরাপুল) এলাকা সংলগ্ন হাজেরা কমপ্লেক্সের লাগোয়া জেলার শহর খাল এলাকায় শিশু হাজেরা বসে ছিলো। হাজেরার সঙ্গে সেসময় ওই নারীও ছিলেন। সেসময় স্থানীয় করিম মিয়া নামে এক ব্যক্তির কাছে সাহায্য চায় হাজেরা। করিম ওই মহিলা ও শিশুটিকে আটক করে বিভিন্ন বিষয় জিজ্ঞাসাবাদ করে। শিশুটি ওই নারীকে চিনে না এবং ওই নারীই তাকে জেলায় নিয়ে এসেছে বলে স্থানীয়দের জানান।

পরে স্থানীয় লোকজন ও জেলার এক গণমাধ্যমকর্মী হাজেরাকে পুলিশে সোপর্দ করেন। ওই গণমাধ্যমকর্মী বিষয়টি আখাউড়ার স্বেচ্ছায় রক্তদানকারী সংগঠন আত্মীয়ের প্রতিষ্ঠাতা সমীর চক্রবর্তী ও পরে ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক হৃদয় ঘোষকে জানান।

হৃদয় ঘোষ শনিবার বিকেলে বৃষ্টিতে ভিজে উপজেলার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে শিশুটির মাকে খুঁজে বের করে রাতে থানায় নিয়ে যান। রাত সাড়ে ৮টার দিকে সদর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. শাহজাহান ও উপ-পরিদর্শক (এসআই) শিশুটিকে মা সুলতানার কাছে হস্তান্তর করেন।

হৃদয় ঘোষ বলেন, ‘মানুষ মানুষের জন্য। একটি শিশু হারিয়ে গেছে। ফেসবুকে একজন শিশুটির ছবি আমাকে পাঠায়। এরপর অনেক খোঁজাখুঁজির পর স্টেশন এলাকায় তার মায়ের সন্ধান পাই। পরে শিশুটিকে আনতে মায়ের সঙ্গে আমার এক ছোট ভাই ইউসুফকে সদর থানায় পাঠিয়েছি।’

সদর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. শাহজাহান জানান, শিশুটির মা একজন ছিন্নমূল নারী। পেটের দায়ে শিশুটি হয়তো বিভিন্ন জায়গায় ঘোরাফেরা করতে করতে অন্য আরেক নারীর সঙ্গে জেলায় চলে এসেছে। শিশুটিকে মায়ের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

 

রুবেল/বুলাকী