ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৭ ফাল্গুন ১৪২৬, ২০ ফেব্রুয়ারি ২০২০
Risingbd
সর্বশেষ:

সঞ্চয় করবেন যেভাবে

নিউজ ডেস্ক : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০২০-০২-১২ ১:৫৪:১০ পিএম     ||     আপডেট: ২০২০-০২-১২ ২:৪০:২১ পিএম

দিন দিন বেড়েই চলেছে গৃহাস্থালীর প্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দাম। সেই সাথে বাড়ছে নিজের খরচ, ছেলেমেয়ের পড়াশোনা, যাতায়াত খরচসহ আরো অনেক কিছুর খরচ। এর মধ্যে কারো কারো ইএমআই তো রয়েছেই।

যাবতীয় সংসার খরচের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলা মধ্যবিত্তের কাছে এক বিরাট চ্যালেঞ্জ। কিন্তু সেই হারে বাড়ছে না বেতন। বছর শেষে ইনক্রিমেন্টের অঙ্কেও পাল্লা দেওয়া সম্ভব হয় না চাহিদার সঙ্গে।

তাই খরচের খাতায় কাটছাঁট করার কৌশল না জানলে মাসের শেষে টানাটানিতে পড়তে হতে পারে। আয়ের সঙ্গে ব্যয়ের সামঞ্জস্য রেখেই সাজাতে হবে খরচের খাত। দেশের মতো সংসারও যদি একটি নির্দিষ্ট বাজেট মেনে চলে, তাহলে শেষমেশ লাভ হয় নিজেদেরই।

এক্ষেত্রে জাস্ট একটু বুদ্ধি করে করতে পারলেই সংসার খরচের অনেকটা টাকা সঞ্চয় করা যায়। দিনের হিসেবে তা খুবই অল্প বলে মনে হলেও, মাসের হিসেবে ওই অল্পস্বল্প বাঁচানো টাকাই অনেক কাজে আসে। এক্ষেত্রে একটু বিশেষ দিকে খেয়াল রাখতে হয়।

খরচে লাগাম পরাতে গেলে প্রথমেই ইএমআই, অন্যান্য ঋণ, বিল ইত্যাদির টাকা জমা করার দিনগুলো খেয়াল রাখুন। যেমন ইলেকট্রিক ও ফোন বিল এগুলো মাসের গোড়ায় মিটিয়ে দিন। ইলেকট্রিক ও ফোন বিল নিজের নিয়ন্ত্রণে রাখুন।

মুদির দোকান বা বাজারের বড় ব্যয়ও মাসের প্রথমেই করুন। কী কী কিনবেন তার তালিকা করে তার পাশেই সম্ভাব্য দাম লিখে ফেলুন। হিসেব করে দেখুন, মোট কত টাকা খরচ হবে। তালিকায় সামান্য বিলাসিতা থাকলে থাকুক। কিন্তু সেই বিলাসিতার জিনিসগুলোয় যেন তালিকা ভরে না ওঠে। কোনও অপ্রয়োজনীয় জিনিস চোখে পড়লে তখনই বাদ দিন। এছাড়া বিশেষ কিছু দিনে নানা বড় বড় শপিং মলের বড় বড় রিটেইল শপে ছাড় দেয়। সেই দিন বেছেও সেরে নিতে পারেন কেনাকাটা।

খুব শপিং করার অভ্যাস থাকলে তাতে রাশ টানুন। আসলে শপিং নেশার মতো। শপিং-এ অহেতুক অপ্রয়োজনীয় জিনিস কেনা হয়, খরচও হয় বেশি। তাই চেষ্টা করুন সেলের সময় শপিং করতে বা দরকারি জিনিসটুকুই কিনতে। অনলাইন শপিং অ্যাপে প্রায়ই সেল বা ডিসকাউন্ট দেওয়া হয়। কাজে লাগাতে পারেন সে সবও।

গ্যাসের দামও ঊর্ধ্বমুখী। তাই খরচ কমাতে রান্নার সময় কমিয়েও কিছুটা টাকা সাশ্রয় করুন। প্রয়োজনে প্রেশার কুকারের ব্যবহার বাড়ান। ঢাকা-চাপা দিয়ে রান্না করলে খরচে রাশ টানা যায়। অনেক রান্নাই ঢাকা দিয়ে বা গ্যাস কমিয়ে করলে সময় বাঁচে ও গ্যাসও কম পোড়ে। সেই সব কৌশল অবলম্বন করুন।

বিদ্যুতের খরচ কমাতে শীতকালে রাতে ৭-৮ ঘণ্টা ফ্রিজ বন্ধ রাখতেই পারেন। ঘরে সাধারণ বাল্বের পরিবর্তে এলইডি আলো লাগালে বিদ্যুৎ সাশ্রয় হয়। বিদ্যুতের জায়গায় অনেকে সৌরশক্তি ব্যবহার করেন। এটি লাগাতে প্রাথমিকভাবে বেশ খরচ হয়। তবে বাকি জীবনের জন্য অনেকটা সাশ্রয়ও পাওয়া যায়। রান্নায় সোলার কুকার, ঘরে সোলার লাইট ব্যবহার করা যায়।

লক্ষ্মীর ভাঁড়ের (মাটির ব‌্যাংক বা অন‌্যান‌্য ব‌্যাংক) ব্যবস্থা ফিরিয়ে আনুন। সারা দিনে যেটুকু খুচরো বাঁচছে বা ফেরত পাচ্ছেন নানা ক্ষেত্র থেকে, সেগুলো এসে ভাঁড়ে ফেলে দিন। প্রয়োজনের সময়ে কাজে আসবে।

প্রয়োজন না হলে সংসারের জন্য বাড়তি কিছু কিনবেন না। এতেই সংসারের বাজেট ধরে রাখতে পারবেন। ধার-বাকি করে কিছু নয়। কিছু কেনার পরিকল্পনা করে নিন আগেই। কয়েক মাস ধরে টাকা জমিয়ে তা দিয়ে সেই জিনিসটি কিনুন।

ছোট ছোট হারে বিনিয়োগ করতে পারেন। এতে দরকারের সময় কিছুটা টাকা হাতে পাবেন।

বাজেটের হিসেব রাখার নানা অ্যাপ রয়েছে। সে সব ডাউনলোড করে নিতে পারেন। মাসের শেষে দেখে নিন কোন খাতে বাজেট বেড়েছে। ফলে সেখানে রাশ টানতে পারবেন পরের মাসে।

মূল কথা, সাধ্যের মধ্যেই বেধে রাখুন সাধ। যতটা আয়, সেই বুঝেই ব্যয় সাজান। আয় বড় হওয়ার সঙ্গে স্বপ্নগুলোও বড় করুন। তাহলে, অল্পতেও লক্ষী আপনার ঘরে এসে ধরা দেবে।


ঢাকা/বুলাকী

     
 

ট্যাগ :