ঢাকা, বুধবার, ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭, ২৭ মে ২০২০
Risingbd
সর্বশেষ:

করোনায় ১৬ বছরের জুলির প্রাণ গেল ফ্রান্সে

কেএমএ হাসনাত : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০২০-০৩-২৮ ৩:৪৫:৪৩ পিএম     ||     আপডেট: ২০২০-০৩-২৮ ৩:৪৫:৪৩ পিএম

মাত্র ১৬ বছরের দুরন্ত কিশোরী, সবেমাত্র মাধ্যমিক পরীক্ষা শেষ করেছে। তার দু’চোখে ছিল নতুন স্বপ্ন, স্বপ্ন দেখতো বড় হওয়ার। পড়ালেখার পাশাপাশি সে নাচ-গানে সমান পারদর্শী ছিল। দুবোনের মধ্যে সে ছিল ছোট। ফ্রান্সের বাইরে ছোট একটি শহরে সে বড় হচ্ছিল। করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার আগের দিনও বড়বোন সেরেনার সঙ্গে তার ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা নিয়ে কথা বলেছে। এর একদিন পরেই সে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়। হাসপাতালের বেডে একদিন থাকার পরই তার সব স্বপ্নের আলো নিভে যায়, মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে।

 এভাবেই ফ্রান্সের জনপ্রিয় পত্রিকা লে প্যারিসিয়েনে ষোড়শী জুলির মৃত্যুর সংবাদ ছাপা হয়। জুলির মৃত্যুকে বলা হয়েছে, তার বয়সে ফ্রান্সে প্রথম মৃত্যু। 

গত ২৪ মার্চ ফ্রান্সে জুলি নামের স্কুল বালিকার অকাল মৃত্যু করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর বয়স নিয়ে সকল মিথ উলটপালট করে দিয়েছে। যে মৃত্যু ফরাসীদের শোকের সাগরে ভাসিয়েছে, যে মৃত্যু নতুন করে হিসাব-কিতাব করতে বসিয়ে দিয়েছে মেডিকদের, তা নিয়ে নতুন করে ভাবতে হচ্ছে, কেবল বৃদ্ধ-বৃদ্ধা নয়, এই অদৃশ্য ভাইরাসে যে কোন বয়সে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করতে পারে মানুষ।

ফ্রান্সের বহুল প্রচারিত লে প্যারিসিয়েন পত্রিকায় সংবাদটি প্রকাশিত হওয়ার পর দেশটির জনগনও করোনাভাইরাস নিয়ে নতুন করে ভাবতে শুরু করেছে। তারা আরও সতর্কতা অবলস্বন করছে।

পত্রিকাটির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, জুলি গত মঙ্গলবার করোনভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে প্যারিসের নেকা হাসপাতালে মারা যায়।

তার বড় বোন ফোনে বলেন, গত শনিবার ‘তার সবেমাত্র কাশি হয়েছিল, সে তার মায়ের সঙ্গে বাড়িতে কোয়ারেন্টিনে ছিলো, প্রথম দিকে এসন প্রভিন্সের বাসিন্দা এই স্কুলছাত্রী শ্বাসকষ্টের কারণে সোমবার হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিল।  পুলিশের দেয়া তথ্য অনুসারে সে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় প্যারিসের নেকার হাসপাতালে মারা যায়। এর আগে তার কোন অসুস্থতা ছিল না। সে ফ্রান্সের এই রোগে মারা যাওয়া প্রথম নাবালিকা রোগী। ফলে ফ্রান্স জুড়ে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়া নিয়ে নতুন করে ভাবতে শুরু করেছে।

ধারনা ছিল, করোনাভাইরাসে বেশি বয়সের মানুষগুলোই আক্রান্ত হচ্ছে বা হবে, সে তুলনায় অল্প বয়স্কদের ঝুঁকি অনেক কম। ফ্রান্সের ১৬ বছরের জুলির মৃত্যু বিশ্ববাসীর সে ধারণা পাল্টে দিয়েছে। সুতরাং সতর্ক না থাকলে করোনাভাইরাস যে কোন বয়সের মানুষ আক্রান্ত হতে পারেন।

 

ঢাকা/হাসনাত/সাজেদ