ঢাকা, শনিবার, ৫ আশ্বিন ১৪২৬, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯
Risingbd
সর্বশেষ:

অনিয়ম: তিন স্থানে দুদকের অভিযান

এম এ রহমান : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৯-০৫-২২ ৫:১০:৪৪ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৯-০৫-২২ ৫:১০:৪৪ পিএম
অনিয়ম: তিন স্থানে দুদকের অভিযান

নিজস্ব প্রতিবেদক : টিকিট বিক্রিতে নানাবিধ অনিয়মের অভিযোগে কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশনে অভিযান পরিচালনা করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

আসন্ন ঈদুল ফিতর উপলক্ষে অগ্রিম টিকিট বিক্রির আজই প্রথম দিন। ভুক্তভোগী গ্রাহকরা দুদকে অভিযোগ করায় বুধবার সকালে পুলিশসহ আট সদস্যের অ্যানফোর্সমেন্ট টিম অভিযান পরিচালনা করে। দুদকের জনসংযোগ দপ্তর এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।

দুদক জানায়, টিম স্টেশনে আগত টিকিট প্রত্যাশীদের সাথে কথা বলে। অনেক যাত্রী অভিযোগ করেন, গতকাল রাত থেকে দাঁড়িয়ে লাইনের একেবারে সামনে থাকা সত্বেও শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত টিকিট পাওয়া যাচ্ছে না। ফলে এক্ষেত্রে সার্ভারে কারচুপি হয়ে থাকতে পারে জানিয়ে তারা দুদককে খতিয়ে দেখতে অনুরোধ করেন।

দুদক টিম অনলাইনে টিকিট বিক্রয়কারী প্রতিষ্ঠান সিএনএস এর মহাপরিচালক শামীমুল আলমের সাথে কথা বলে।  তিনি টিমকে বলেন, প্রচুর গ্রাহকের চাপ থাকার কারণে সার্ভারে সমস্যা হচ্ছে। দুদক টিম সার্ভারে কোনোরূপ কারচুপি/দুর্নীতির মাধ্যমে যেন টিকিট কেটে রাখা না হয় সে বিষয়টি নিশ্চিত করার জন্য পরামর্শ প্রদান করেন। এছাড়াও টিম স্টেশন ম্যানেজারের সাথে কথা বলে এবং টিকিট কালোবাজারির বিষয়ে সতর্ক থাকতে তাকে অনুরোধ করে।

এদিকে আজ কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ব্যাপক আর্থিক অনিয়ম উদ্ঘাটন করেছে দুদক। দুদক অভিযোগ কেন্দ্রে-১০৬ আগত অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে দুদক, সমন্বিত জেলা কার্যালয় এ অভিযান পরিচালনা করে।

দুদক টিম সরেজমিন অভিযানে দেখতে পায়, উক্ত স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স হতে মাত্র ৩টি গাছ বিক্রির জন্য টেন্ডার দেখিয়ে সকল গাছ বিক্রয় করে টাকাসমূহ আত্মসাৎ করা হয়েছে। দুদক টিম স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের হাসপাতালের জেনারেটরটিকে সম্পূর্ণ অকেজো অবস্থায় পায়, যা দীর্ঘকাল ধরে ব্যবহার করা হয়নি মর্মে প্রতীয়মান হয়। অথচ উক্ত জেনারেটর না চালিয়ে ব্যবহার দেখিয়ে গত ২০১৮ সাল পর্যন্ত বিল উত্তোলন করা হয়েছে এরুপ প্রমাণ পায় দুদক টিম। টিম এ অনিয়মসমূহের বিষয়ে কমিশনে বিস্তারিত প্রতিবেদন উপস্থাপন করবে।

নানাবিধ অনিয়মের অভিযোগে ঢাকা ওয়াসার উত্তরাস্থ মডস জোন-৯ এ অভিযান পরিচালনা করেছে দুদক। প্রধান কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক শেখ গোলাম মাওলার নেতৃত্বে পুলিশসহ ৫ সদস্যের অ্যানফোর্সমেন্ট টিম গত ২১ মে অভিযান পরিচালনা করে। দুদক টিম নির্বাহী প্রকৌশলীর দপ্তরে বিভিন্ন গ্রাহকদের নিকট হতে আগত চাহিদা রেজিস্ট্রার যাচাই করে এবং বেশকিছু গ্রাহকের সাথে মোবাইলে কথা বলে। পানি বহনকারী ট্রাকের ২ জন কর্মচারী গ্রাহকদের নিকট হতে অতিরিক্ত অর্থ গ্রহণ করছেন এমন তথ্য পাওয়া যায়। তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করার জন্য নির্বাহী প্রকৌশলী মো. রিয়াজ উদ্দিন ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নিকট পত্র প্রেরণ করেছেন।

পরবর্তীতে দুদক টিম ওয়াসার প্রতিনিধিদের সমন্বয়ে উত্তরা ১০ নম্বর সেক্টরের ১৮ নম্বর রোডের পানির লাইনসমূহ যাচাই করে একটি অবৈধ সংযোগের সন্ধান পায়। ওয়াসা কর্তৃপক্ষ দুদকের উপস্থিতিতে সেই সংযোগটি বিচ্ছিন্ন করে। এর ধারাবাহিকতায় আজ উত্তরা ১২ নম্বর সেক্টরে অভিযান পরিচালনা করে ওয়াসা কর্তৃপক্ষ ৬টি অবৈধ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে।

বরিশালের উজিরপুরে নদী দখলের অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে অভিযান পরিচালনা করেছে দুদক। সমন্বিত জেলা কার্যালয়, বরিশাল-এর একটি অ্যানফোর্সমেন্ট টিম এ অভিযান পরিচালনা করে। দুদক টিম স্থানীয় ভূমি অফিসের সার্ভেয়ার ও পানি উন্নয়ন বোর্ডের প্রকৌশলীকে সাথে নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখতে পায়, গৌরনদী-ধামুড়া-মিরেরহাটের ওপর দিয়ে প্রবাহিত সন্ধ্যা নদীর ধামুড়া পয়েন্টে অনেকখানি জায়গা দখল করে প্রায় ২০০ স্থাপনা গড়ে উঠেছে। দুদক টিম নদীর উক্ত অংশে কতগুলো স্থাপনা সরকারের অনুমোদনক্রমে স্থাপিত হয়েছে তা উপস্থাপন করার জন্য ভূমি অফিসকে নির্দেশনা প্রদান করে। এছাড়াও অবৈধ দোকান ও ঘর-বাড়ি উচ্ছেদে এলাকাবাসীকে অনুরোধ করা হয়। অন্যথায় তালিকা প্রাপ্তিসাপেক্ষে অবৈধ স্থাপনা যাচাইপূর্বক প্রশাসনের সহায়তায় উচ্ছেদের উদ্যোগ গ্রহণ করা হবে।

 

 

 

রাইজিংবিডি/ঢাকা/২২ মে ২০১৯/এম এ রহমান/সাইফ

ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন