ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৭ ফাল্গুন ১৪২৬, ২০ ফেব্রুয়ারি ২০২০
Risingbd
সর্বশেষ:

চাচাতো ভাইকে হত‌্যা : ৭ ভাইয়ের বিরুদ্ধে মামলা

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০২০-০২-১৩ ৭:০৭:১৪ পিএম     ||     আপডেট: ২০২০-০২-১৩ ৭:০৭:১৪ পিএম

রাজধানীর দক্ষিণখান এলাকায় জমি-জমা নিয়ে বিরোধের জেরে চাচাতো ভাই আবুল কালাম আজাদ লিটনকে খুনের অভিযোগে সাত ভাইয়ের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

লিটনের বড় ভাই আব্দুস সালাম হিরন গত ২৭ জানুয়ারি দক্ষিণখান এলাকায় ওই সাত ভাইয়ের বিরুদ্ধে মামলাটি দায়ের করেন।

আসামিরা হলেন- দক্ষিণখান থানার কাওলার ব্যাপারী বাড়ির মৃত আব্দুল করিম ব্যাপারীর ছেলে আলমগীর ব্যাপারী (৩৮), জাহাঙ্গীর ব্যাপারী (৩৯), সবুজ ব্যাপারী (৩৫), কাকুল ব্যাপারী (৩৭), মুকুল ব্যাপারী (৪০), স্বপন ব্যাপারী (৫০) ও বাবুল ব্যাপারী (৪৮)।

প্রথমে আসামিদের বিরুদ্ধে হত্যাচেষ্টার মামলা দায়ের করা হয়। মামলা দায়েরের পরই স্বপন ব্যাপারী ও কাকুল ব্যাপারীকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। পরে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা দক্ষিণখান থানার এসআই মুহাম্মদ জয়নুল আবেদীন তাদের সাত দিনের রিমান্ড আবেদন করেন। আদালত রিমান্ডের আবেদন নামঞ্জুর করে জেলগেটে জিজ্ঞাসাবাদের নির্দেশ দেন।

চিকিৎসাধীন লিটন মারা যাওয়ার পর তদন্ত কর্র্মকর্তা ৩০২ ধারা সংযোজন করার আবেদন করলে আদালত তা মঞ্জুর করেন।

এরপর গত ৩০ জানুয়ারি ওই দুই আসামির ফের সাত দিনের রিমান্ড আবেদন করা হয়। আদালত দুই ভাইয়ের তিন দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন। রিমান্ড শেষে বৃহস্পতিবার আসামিদের আদালতে হাজির করা হয়।

কাকুল ব্যাপারী হত্যার দায় স্বীকার করে ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ জসিমের আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন। এরপর তাকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। একই আদালত স্বপন ব্যাপারীকেও কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

মামলার অভিযোগ থেকে জানা যায়, দীর্ঘদিন ধরে দুই পরিবারের মধ্যে জমি-জমা নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল। গত ২৬ জানুয়ারি লিটন একটি জমিতে আগাছা পরিষ্কার করতে যান। জাহাঙ্গীর আলম ভিকটিমের উদ্দেশ্যে ঢিল ছোঁড়েন। লিটন এর কারণ জানতে চাইলে তাদের মধ্যে তর্ক-বিতর্ক শুরু হয় এবং আসামিরা তাকে এলোপাথাড়ি মারধর করেন।

ভিকটিমের বড় ভাই হিরন সেখানে গেলে আসামিরা তাকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেয় এবং তাকেও মারধর করেন। সেসময় লিটন বড় ভাইকে রক্ষা করতে গেলে আসামিরা তার মাথায় হাতুড়ি দিয়ে আঘাত করেন। এতে মারাত্মক জখম হন লিটন। হিরনকেও আহত করেন আসামিরা।

পরে আশে-পাশের লোকজন এসে তাদেরকে উদ্ধার করে। লিটনকে চিকিৎসার জন্য আগারগাঁও নিউরো সাইন্স হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ২৮ জানুয়ারি মারা যান লিটন।

 

ঢাকা/মামুন খান/সনি