ঢাকা, বুধবার, ২৪ আষাঢ় ১৪২৭, ০৮ জুলাই ২০২০
Risingbd
সর্বশেষ:

২২ বছর কলকাতায় ছিলেন মাজেদ

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০২০-০৪-০৭ ৩:৪৭:৫১ পিএম     ||     আপডেট: ২০২০-০৪-০৭ ৩:৪৭:৫১ পিএম

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হত্যা মামলায় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত পলাতক আসামি ক্যাপ্টেন (বরখাস্ত) আবদুল মাজেদকে (৭২) কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত।

মঙ্গলবার (০৭ এপ্রিল) ঢাকার চিফ মেট্টোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট (সিএমএম) এ এম জুলফিকার হায়াত তাকে কারাগারে পাঠানোর এ আদেশ দেন।

আসামি মাজেদকে এদিন আদালতের কাঠগড়ায় ওঠানোর পর পাবলিক প্রসিকিউটরের জিজ্ঞাসাবাদে জানিয়েছেন, সর্বশেষ ২২ বছর তিনি কলকাতায় পালিয়ে ছিলেন।

এর আগে বেলা ১২টার দিকে আবদুল মাজেদকে ফৌজদারি কার্যবিধির ৫৪ ধারায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে ঢাকা সিএমএম আদালতে হাজির করেন কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের উপ-পুলিশ পরিদর্শক মো. জহুরুল হক।  তিনি আসামিকে কারাগারে আটক রাখার আবেদন করেন।

আদালতে নেওয়ার পর প্রথমে মাজেদকে সিএমএম আদালতের হাজতখানার মধ্যে প্রিজনভ্যানেই রাখা হয়। এরপর দুপুর পৌনে ১টার দিকে আদালত ভবনের তৃতীয় তলার মুখ্য মহানগর হাকিমের এজলাসে ওঠানো হয়।

পুলিশের প্রতিবেদনের ওপর সহকারী পাবলিক প্রসিকিউটর হেমায়েত উদ্দিন খান (হিরণ) ও নন-জিআর শাখার জিআরও পুলিশ উপ-পুলিশ পরিদর্শক আনিসুর রহমান শুনানি করে আসামিকে কারাগারে আটক রাখার আবেদন করেন।

আদালতে আসামিপক্ষে কোনো আইনজীবী ছিলেন না। শুনানি শেষে আদালত আবদুল মাজেদকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। একইসঙ্গে কারাগারে পাঠানো সংক্রান্ত মামলার খণ্ডনথি সংশ্লিষ্ট বিচারিক আদালত ঢাকার জেলা ও দায়রা জজ আদালতে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

আদালত আদেশ দেওয়ার পর প্রিজনভ্যানে আসামি মাজেদকে কেরানীগঞ্জের কেন্দ্রীয় কারাগারে নিয়ে যায় পুলিশ।

এদিকে আদালতে শুনানি শুরুর আগে কাঠগড়ায় সাদা পাজামা ও পাঞ্জাবি, বুলেটপ্রুফ জ্যাকেট ও মাথায় হেলমেট পরিহিত থাকা আসামি আবদুল মাজেদের কাছে প্রসিকিউটর হিরণ জানতে চান, এতোদিন কোথায় ছিলেন? জবাবে তিনি জানান, ২২ বছর ভারতের কলকাতায় ছিলেন। বঙ্গবন্ধুকে কেন হত্যা করলেন? এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি হত্যা করেনি বলে জানান। তাহলে পালিয়েছিলেন কেন? প্রসিকিউটরের এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি কোনো উত্তর দেননি। 

 

ঢাকা/মামুন/জেডআর