ঢাকা, সোমবার, ৫ কার্তিক ১৪২৬, ২১ অক্টোবর ২০১৯
Risingbd
সর্বশেষ:

ঈদে ঘর সাজাতে মাটির শোপিস

শরীফ আজাদ প্রীতম : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৯-০৭-২৯ ৯:৫৫:৩৬ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৯-০৭-২৯ ৯:৫৫:৩৬ পিএম

শরীফ আজাদ প্রীতম : কয়েকদিন বাদেই ঈদুল আজহা। অর্থাৎ কোরবানির ঈদ। মুসলমানদের প্রধান ধর্মীয় উৎসবগুলোর মধ্যে একটি। ঈদ রোজার হোক কিংবা কোরবানির, ঈদ মানেই হচ্ছে আনন্দ এবং উৎসবের সমারোহ। আর উৎসবের অন্যতম অংশ হলো ঘর সাজানো।

ঈদে স্বাভাবিকের চেয়ে অতিথি আগমন বেশি থাকে। তাই ধর্মীয় এই উৎসবে পোশাক, গহনা ও প্রসাধনীর পাশাপাশি বাড়তি চাহিদা সৃষ্টি করে ঘর সাজানোর উপকরণ। বন্ধু-বান্ধব, আত্মীয়-স্বজন, পাড়া-প্রতিবেশী যেই হোক না কেন সুন্দর ও সাজানো গোছানো একটি ঘর সবাই পছন্দ করে।

তাই বলে ঈদে যে ঘর সাজাতে নতুন ও দামি আসবাবপত্র, দামি কার্পেট বা দামি ঝুমুর কিনতে হবে এমন নয়। স্বল্প খরচে ও ছোটখাটো পরিবর্তন করে বদলে ফেলতে পারেন ঘরের অভ্যন্তরীণ সাজ। যেমন ধরুন- ঘরের সৌন্দর্য বৃদ্ধি করে এমন জিনিসগুলোর মধ্যে শোপিস হচ্ছে অন্যতম। শুধু অন্যতম না, অপরিহার্য জিনিস ও বটে। আর সৌন্দর্য বর্ধনকারী সেই শোপিস যদি দেশীয় মোটিফের হয় তবে তা ঘরে এনে দেয় নান্দনিকতার ছোয়া। দেশীয় পণ্য দিয়ে তৈরি শোপিসের মধ্যে সবচেয়ে জনপ্রিয় ও নান্দনিক হচ্ছে মাটির শোপিস। আপনি নানা ভাবে আপনার ঘরে মাটির শোপিস রাখতে পারেন। এসব দেশীয় ধাচের মাটির শোপিস দিয়ে ঘর সাজালে একদিকে তা যেমন আপনার রুচির পরিচয় বহন করবে, অন্যদিকে আমাদের দেশীয় ঐতিহ্য ও সংস্কৃতিকে মানুষের কাছে তুলে ধরবে। বসার ঘর হোক কিংবা শোবার ঘর, প্রতিটি ঘরের সৌন্দর্য অনেকটা বাড়িয়ে তোলে নানা ধরনের মাটির শোপিস।

বিভিন্ন ধরনের মাটির শোপিস পাওয়া যায় বাজারে। যেমন মাটির তৈরি হাতি, ঘোড়া, ফুলদানি, মোমবাতি, গ্লাস, প্রদীপ বাটি, পারি, ল্যাম্পশেড, ডিনারসেট, টেরাকোটা, ভাস্কর্য আরো কত কি।

তবে ঘরের সব রুমে একই ধরনের শোপিস মানানসই নয়। ঘরের একেক রুমের জন্য একেক শোপিস নির্বাচন করুন। এতে ঘরের প্রতিটি রুম ভিন্ন ভিন্ন বৈচিত্র্য নিয়ে আকর্ষণীয় হয়ে উঠবে। যেমন ড্রইংরুমে মাঝারি বা বড় আকারের হাতি, ঘোড়া বা বিভিন্ন জীবজন্তুর প্রতিকৃতি রাখতে পারেন। ঘরের চার কোণায় এইসকল জীবজন্তুর প্রতিকৃতির উপস্থিতি আপনার ড্রইংরুমে নিয়ে আসবে নতুনত্ব ও আভিজাত্যের ছোঁয়া।

এবার আসা যাক বেডরুমে। বেডরুমের সাইড টেবিলেও মাটির শোপিস যথেষ্ট মানানসই। সাইড টেবিলে মাটির তৈরি ফুলদানি, ল্যাম্পশেড, মোমদানি জাতীয় শোপিস রাখলে দেখতে ভালো লাগবে। বসার ঘরের দেয়ালে মাটির টেরাকোটা ও কর্ণার টেবিলে মাটির মূর্তি ও ভাস্কর্য নিয়ে আসবে আভিজাত্য।

ঈদের অন্যতম আনন্দ মজার মজার খাবার দাবারে। সুস্বাদু ও মুখরোচক খাবার ঈদের আনন্দ আরো কয়েকগুণ বাড়িয়ে দেয়। তাই খাবার পরিবেশনের ঘর ও টেবিলটি সাজিয়ে ফেলুন সুন্দর করে। ডাইনিং টেবিলটি সাজাতে পারেন মাটির প্লেট, বাটি, জগ, গ্লাসসেট, কাপ পিরিচের সেট ইত্যাদি দিয়ে। পরিবারের মানুষ সহ আত্মীয়-স্বজন ও বন্ধু-বান্ধবদের ঈদের দিন মজার মজার খাবার পরিবেশন করতে পারেন মাটির তৈরি এসব প্লেট ও বাটিতে।

মাটির তৈরি এসকল সৌখিন শোপিস রাজধানীর অধিকাংশ জায়গাতেই খুঁজলে পাওয়া যাবে। তবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্জন হল সংলগ্ন দোয়েল চত্বর, ঢাকা কলেজের সামনে, ধানমন্ডি ৬ ও ৭ নম্বর রাস্তা সংলগ্ন এলাকায়, মিরপুর ১ ও ১০ নম্বর, মোহাম্মদপুর ও গুলশান-২ এ রয়েছে মাটির তৈরি পণ্যের বিশাল সমাহার। এসকল জায়গায় মাটির তৈরি হাড়ি- পাতিল থেকে শুরু করে টেরাকোটা, মূর্তি সবই পাওয়া যায়। তবে এসকল মাটির তৈরি তৈজসপত্র ও শোপিস রাজধানীর বাইরে থেকে তৈরি হয়ে আসে। সাভার, পটুয়াখালী, কুমিল্লা, রাজশাহী ও নগরের রায়ের বাজার পাল পাড়া থেকে তৈরি হয়ে আসে এসকল মাটির পণ্য। এর মধ্যে কিছু বিশেষ পণ্য ও শোপিস রয়েছে যা সেখানে গিয়ে চাওয়া মাত্রই পাওয়া যায় না। তাই কোনো বিশেষ ধরনের শোপিসের প্রয়োজন হলে তা তাদের আগেই জানাতে হবে, অন্যথায় খালি হাতে ফিরতে হবে।

মাটির তৈরি শোপিস যে শুধু দেখতেই নান্দনিক তা নয়, দামও ধাতব শোপিস ও সিরামিকের চেয়ে কম। আর দাম যেহেতু অপেক্ষাকৃত কম, তাই ইচ্ছা হলে কিছুদিন পর পর পরিবর্তনও করা যায়। তাই ঈদে ঘর সাজাতে দামি শোপিসের কোনো প্রয়োজন নেই। শৈল্পিক নৈপুণ্য ও সৃজনশীল কারুকার্য মন্ডিত মাটির জিনিস দিয়েই আপনার ঘরে নিয়ে আসতে পারেন নতুনত্ব। ঘরকে করে তুলতে পারেন আকর্ষণীয়।


রাইজিংবিডি/ঢাকা/২৯ জুলাই ২০১৯/ফিরোজ

ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন