ঢাকা, শুক্রবার, ৩০ কার্তিক ১৪২৬, ১৫ নভেম্বর ২০১৯
Risingbd
সর্বশেষ:

রাজ্জাকের ১২ উইকেটের পর জমে উঠেছে ম্যাচ

ক্রীড়া প্রতিবেদক : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৯-১১-০৪ ৯:২১:৩৫ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৯-১১-০৪ ৯:২৩:১৮ পিএম

দারুণভাবে জমে উঠেছে খুলনা ও রংপুর বিভাগের ম্যাচ। শেষ দিনে জিততে পারে যে কোনো দলই।

প্রথম স্তরের এই ম্যাচে ২০৩ রানের লক্ষ্য তাড়ায় সোমবার তৃতীয় দিন শেষে খুলনার সংগ্রহ ৫ উইকেটে ১৩০ রান। জিয়াউর রহমান ও মেহেদী হাসান- দুজনই ৩০ রানে অপরাজিত আছেন। জয়ের জন্য এখনো খুলনার দরকার ৭৩ রান, রংপুরের চাই ৫ উইকেট।

মিরপুরে দ্বিতীয় ইনিংসে আগের দিনের ৪ উইকেটে ৬৭ রান নিয়ে তৃতীয় দিন শুরু করেছিল রংপুর। এদিন স্কোরবোর্ডে ২ রান যোগ হতেই রুবেল হোসেনের শিকার হয়ে ফেরেন রংপুর অধিনায়ক সাজেদুল ইসলাম।

আগের দিনের আরেক অপরাজিত ব্যাটসম্যান নাসির হোসেন এরপর প্রতিরোধ গড়েন আরিফুল হককে সঙ্গে নিয়ে। লাঞ্চের আগে দুজন আর কোনো বিপদ হতে দেননি।

লাঞ্চ থেকে ফিরে দুজনই তুলে নেন ফিফটি। জুটির রান ছাড়িয়ে যায় একশ। কিন্তু ১১০ রানের জুটি ভাঙতেই ধস নামে রংপুরের ইনিংসে। ৩২ রানের মধ্যেই তারা হারায় শেষ ৫ উইকেট। নাসির ৭৬ ও আরিফুল করেন ৫৮ রান।

শেষ পাঁচ উইকেটের তিনটি নেন মেহেদী হাসান, দুটি আব্দুর রাজ্জাক। রাজ্জাক আগের দিনের ৩টিসহ ৭১ রানে নেন ৫ উইকেট। প্রথম ইনিংসে পেয়েছিলেন ৭ উইকেট। ম্যাচে ১৪০ রানে ১২ উইকেট নিয়েছেন এই ম্যাচে ৬০০ উইকেটের মাইলফলক স্পর্শ করা অভিজ্ঞ বাঁহাতি এই স্পিনার।

লক্ষ্য তাড়ায় খুলনা ১১ রানেই হারায় ইমরুল কায়েসকে। ভারত সফরের আগে নিজের শেষ ম্যাচে দুই ইনিংসের একটিতেও দুই অঙ্কে যেতে পারলেন না বাঁহাতি এই ব্যাটসম্যান।

দ্বিতীয় উইকেটে ৪০ রানের একটা জুটি গড়েছিলেন ইমরান উজ্জামান ও এনামুল হক বিজয়। এরপরই সোহরাওয়ার্দী শুভর ঘূর্ণি জাদুতে এলোমেলো হয়ে যায় খুলনা। নিজের টানা চার ওভারে ৪ উইকেট তুলে নেন বাঁহাতি স্পিনার। একে একে ফেরেন বিজয় (৩৪), তুষার ইমরান (০), নুরুল হাসান সোহান (২) ও ইমরান (২৫)।

১ উইকেটে ৫১ থেকে খুলনার স্কোর তখন ৫ উইকেটে ৬৮! এরপর জিয়াউরকে নিয়ে প্রতিরোধ গড়েন প্রথম ইনিংসে অবিশ্বাস্য সেঞ্চুরি করা মেহেদী। ষষ্ঠ উইকেটে ৬২ রানের জুটিতে অবিচ্ছিন্ন আছেন এই দুজন।


ঢাকা/পরাগ

ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন